কক্সবাজার শহরের ইয়াবা ব্যবসায়ীরা ধরাছোঁয়ার বাইরে

বিশেষ প্রতিবেদক :

চলমান ধরপাকড়ে চিহ্নিতরা টার্গেট হলেও কক্সবাজার শহরের এবং শহরতলির ২ শতাধিক ইয়াবা বিক্রেতা অনেকটায় আলোচনার বাইরে রয়ে গেছে। ফলে সরকারের সফল অভিযানের জন্য তাদের ও গ্রেফতারের আওতায় আনা জরুরি বলে মনে করেন ভুক্তভোগিরা।

শহরের পশ্চিম বাহারছড়ার আলোচিত অনেক মাদক ব্যবসায়ি এখনো বহাল রয়েছে বলে দাবি এলাকাবাসির। উক্ত সিন্ডিকেট কয়েকবার ইয়াবাসহ পুলিশের হাতে আটক হওয়ার পর পুনরায় জামিনে এসে পুরনো ব্যবসায় জড়িয়ে পরিবেশ নষ্ট করছে বলে অভিযোগ অনেক অভিভাবকের । এদেে মধ্যে অন্যতম পশ্চিম বাহারছড়ার আলোচিত মোঃ আলীর পুত্র ফারুক । গতবছর ইয়াবাসহ চট্টগ্রামে আটক হওয়ার পর জামিনে এসে পুনরায় ইয়াবা বিক্রিতে জড়িয়ে পড়ে সে। তার বিরুদ্ধে ৩টি মাদক দ্রব্য আইনে মামলা রয়েছে বলে জানা গেছে। একই এলাকার মোঃ সেলিম ও টিপু সুলতান চালিয়ে যাচ্ছে ইয়াবা ব্যবসা। গত বছর বাস টার্মিনাল এলাকায় টিপু সুলতান ২ বার পুলিশের হাতে আটক হলেও জামিনে এসে পুনরায় একই ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ে। মাত্র রং মিস্ত্রি থেকে শহরের মধ্যে রাতারাতি ৪/৫ তলা ভবনের মালিক ইয়াবা বিক্রি না করে আদৌ সম্ভব নয় বলে দাবি স্থানিয়দের। কৌশলে ইয়াবা বানিজ্য করছে একই এলাকার শওকত আলীর পুত্র ওসমান গনি। সরকারি চাকুরির সুবাধে অনেকটা কৌশলে বন্ধুর সহযোগিতায় ২/৩ বছর যাবৎ কলাতলির বিভিন্ন হোটেলে ইয়াবা উক্ত সিন্ডিকেট ইয়বা ব্যবসা চালাচ্ছে বলে জানা গেছে।একই এলাকার ফেন্সিডিল ব্যবসায়ি কালুর আটকের পর তার ব্যবসায় হাল ধরেছে তারই শালা কেরামত আলী । গত বছর কালুর বিরুদ্ধে বাহারছড়াবাসি তীব্র আন্দোলন করার পর পুলিশ কালুকে ফেন্সিডিল সহ আটক করে এবং তার আস্তানা গুড়িয়ে দেয়। মাস দেড়েক ব্যবসা বন্ধ থাকার পর তার শালা কেরামত পুনরায় বাংলা মদ ও ফেন্সিডিল বিক্রি শুরু করে। কবে তার বিরুদ্ধে ইয়াবা বিক্রির কোন অভিযোগ নেই বলে দাবি এলাকাবাসির। শুধুমাত্র বাহার ছড়ায় রয়েছে ১৫/২০ জনের মাদক সিন্ডিকেট। তাদেও চলাচল এবং বেশভুষা হঠাৎ পরিবর্তনের কারনে স্বল্প সময়ের মধ্যে বড় দালানের কারনে স্থানিয়দের মনে সন্দেহ তীব্র আকার ধারন করছে ।

অপরদিকে মাঝারি মানের ইয়াবা ব্যবসায়ি হওয়ার সুযোগে পুলিশের ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছে টেকপাড়া, পাহাড়তলি, তারাবনিয়ারছড়া, বিজিবি ক্যাম্প, বাসটার্মিনাল , কলাতলি, সৈকতপাড়া, এসএমপাড়া, সিকদারপাড়া, নুনিয়াছড়ার ২ শতাধিক ব্যবসায়ি। অনেকে পুলিশের কাছে চিহ্নিত অনেকে অগোচরে ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে আসছে । একটু খোঁজ নিলে তাদের ব্যাপারে প্রশাসন অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাবে বলে বিশ্বাস সংশ্লিষ্ট এলাকাবাসির।

চলমান তীব্র অভিযানের এই সময়ে উক্ত মাঝারি ও খুচরা ইয়াবা বিক্রেতাদের চিহ্নিত করে অংকুরে সমূলে বিনষ্ট করতে করতে পারলে ডালপালা গজাবেনা।

এ ব্যাপারে কক্সবাজার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন খন্দকার জানান, মাদকের বিরুদ্ধে সরকার জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহন করেছে ।এখানে ছোট বড় মাদক ব্যবসায়ি বলে কথা নেই। যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ পায় তাদের ছাড় দেওয়া হবেনা। বিশেষ করে ইয়াবার মত দেশ ধবংসকারি মাদক যেন আমাদের আগামি প্রজন্ম কে গ্রাস করতে না পারে সে ব্যাপারে আমরা সজাগ রয়েছি। তিনি আমাদের আশেপাশে সন্দেহ জনক কাউকে দেখলে পুলিশে খবর দেওয়ার অনুরোধ জানান।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

বিপুল নেতাকর্মী নিয়ে চকরিয়া ও ঈদগাঁও’র জনসভায় যোগ দিলেন ড. আনসারুল করিম

সুন্দর বিলবোর্ড দেখে নয় জনপ্রিয় নেতাকে মনোনয়ন দেওয়া হবে : ঈদগাঁওতে ওবায়দুল কাদের

জাতীয় ক্রীড়ায় কক্সবাজারের অনন্য সফলতা রয়েছে: মন্ত্রী পরিষদ সচিব

নদী পরিব্রাজক দলের বিশ্ব নদী দিবস পালন

মহেশখালীতে ১১টি বন্দুক ও বিপুল পরিমাণ সরঞ্জামসহ কারিগর আটক

টেকনাফে ২ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার

যারা আন্দোলনের কথা বলেন, তারা মঞ্চে ঘুমায় আর ঝিমায় : চকরিয়ায় ওবায়দুল কাদের

কোন অপশক্তি নির্বাচন বানচাল করতে পারবে না : হানিফ

৭-২৮ অক্টোবর ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ

আলীকদমে সেনাবাহিনী হাতে ১১ পাথর শ্রমিক আটক

শ্লোগান দিয়ে নয় মানুষকে ভালবেসে নৌকার ভোট নিতে হবে : আমিন

জাতীয় ঐক্যের ডাক দিয়ে মঞ্চে নেতারা ঝিমাচ্ছে : ওবায়দুল কাদের

সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদের পেশাদারীত্বের সাথে দায়িত্ব পালন করতে হবে : শফিউল আলম

কক্সবাজার জেলা সংবাদপত্র হকার সমিতির নতুন কমিটি গঠিত

অবশেষে জামিনে মুক্তি পেলেন আইনজীবী ফিরোজ

বিএনপি জামাতের প্রতারণার শিকার বাংলার জনগন : ব্যারিষ্টার নওফেল

নির্বাচন করবেন যেসব সাবেক আমলা

মরহুম এড. খালেকুজ্জামান : হৃদয় কর্ষণে বেড়ে উঠা জনতার কৃষক

মরহুম এড. খালেকুজ্জামান স্মরণে ৩য় দিনে মসজিদে মসজিদে দোয়া

ভিয়েতনামকে হারিয়েই দ্বিতীয় রাউন্ডে বাংলাদেশ