যুক্তফ্রন্ট কার?

যুক্তফ্রন্ট কার?

ডেস্ক নিউজ:

অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরীর যুক্তফ্রন্টে থাকা না থাকা নিয়েই কি ভাঙছে বিএনপি? বিএনপির নেতৃবৃন্দের মধ্যেই এই প্রশ্ন উঠেছে। বিএনপিতে অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী বিরোধীরা বলছেন, বিএনপি ভাঙতে সরকার যুক্তফ্রন্ট তৈরি করেছে। যুক্তফ্রন্ট দিয়ে বিএনপি ভাঙার চেষ্টা চলছে। পবিত্র রমজান মাসে দুটি ইফতার পার্টিতে যুক্তফ্রন্ট নেতা অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরীর বক্তব্যের পর প্রশ্ন উঠেছে যুক্তফ্রন্ট আসলে কার? সরকার না বিএনপির?

যদিও যুক্তফ্রন্টের নেতারা বলছেন, ‘যুক্তফ্রন্ট হলো আওয়ামী লীগ এবং বিএনপির বিকল্প। তৃতীয় ধারা।’ যুক্তফ্রন্টের আহ্বায়ক এবং বিকল্প ধারার প্রধান অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেছেন, ‘আমরা রাজনীতিতে একটি সুস্থ ধারার সূচনা করতে চাই। আমরা সব সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে। আমরা সব দুর্নীতির বিরুদ্ধে। আমরা অপশাসনের বিরুদ্ধে।’

উল্লেখ্য, এই বছরের গোড়ার দিকে বিকল্পধারা, নাগরিক ঐক্য, আ. স. ম. আব্দুর রবের জেএসডি সহ কয়েকটি দল মিলে যুক্তফ্রন্ট গঠিত হয়। বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর দল কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ এবং ড. কামাল হোসেনের গণফোরাম যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে আছে বলে দাবি করা হয়। কিন্তু যুক্তফ্রন্টের সকল কর্মসূচিতে এই দল দুটি থাকছে না। অবশ্য যুক্তফ্রন্টের নেতা অধ্যাপক বি. চৌধুরী দাবি করেছেন, তারা যুক্তফ্রন্টে আছে। ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে তাঁর কথা হয়েছে বলে তিনি জানান।

আপাত দৃষ্টিতে যুক্তফ্রন্ট সরকারের সমালোচক। বিএনপি সরকারের যে দোষত্রুটি বা নেতিবাচক দিকগুলো নিয়ে কথা বলতে পারছে না, সেসব বিষয় নিয়ে সোচ্চার যুক্তফ্রন্ট। যে কারণেই বিএনপিপন্থী সুশীল সমাজ এবং বুদ্ধিজীবীরা যুক্তফ্রন্টের কর্মসূচিতে যুক্ত হচ্ছেন।

বিএনপির নেতারাও ডাকলেই ছুটে যাচ্ছেন। বিএনপির সুরেই যুক্তফ্রন্ট অবাধ, সুষ্ঠু এবং অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের কথা বলছে। নির্বাচন কমিশন পুন:গঠনের কথাও বলছে। তাই অনেকেরই ধারণা, এটা বিএনপিরই একটি বর্ধিত অংশ। জামাতের সঙ্গে সম্পর্কের কারণে যারা বিএনপির অনুষ্ঠানে যেতে আগ্রহী নন, তাঁদের জন্য এটা একটা প্ল্যাটফর্ম।

কিন্তু সরকারের লোকজনও যুক্তফ্রন্টে খুশি। আওয়ামী লীগের একজন প্রভাবশালী নেতা বলেছেন,‘আমরা তো সুস্থ এবং গণতান্ত্রিক বিরোধী দল চাই। যুক্তফ্রন্ট যদি শক্তিশালী হয়। সেটা দেশের গণতন্ত্রের জন্যই ইতিবাচক।’

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহলের একাংশ মনে করেন, ২০১৪ সালের নির্বাচনের অভিজ্ঞতার আলোকেই যুক্তফ্রন্টের সৃষ্টি। ঐ নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করেনি। বিএনপির সঙ্গে সুর মিলিয়ে দেশের সিংহভাগ রাজনৈতিক দলই দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জন করেছিল। যুক্তফ্রন্ট যে আগামী নির্বাচনে অংশ নেবে, সেটা এই ফ্রন্টের নেতাদের কথাবার্তাতেই স্পষ্ট। তাহলে কি বিএনপি নির্বাচনে অংশ না নিলে যুক্তফ্রন্ট এই অবস্থান পূরণ করবে? যুক্তফ্রন্টে আসবে বিএনপির একটি বড় অংশ? সরকার সারাবিশ্বকে দেখাবে বিএনপি ছাড়াও অংশগ্রহণমূলক অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হয়? এই প্রশ্নগুলোর উত্তর খুঁজতে হবে আরও গভীরভাবে। এর সঠিক উত্তর পাওয়া যাবে নির্বাচনের সময়। তখনই উত্তর মিলবে যুক্তফ্রন্ট কার?

সর্বশেষ সংবাদ

ভেনেজুয়েলার কাছে ৩-১ গোলে হেরেছে আর্জেন্টিনা

নাফ ট্যুরিজম পার্কে হচ্ছে ক্যাবলকার

‘মসজিদে সন্ত্রাসী হামলাকারীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হবে’

রাতে ঘুম হয় না টেকনাফ থানার ওসি’র

কক্সবাজার জেলায় ১৯৫টি গণহত্যা

আজ ডাকসুর দায়িত্ব নেবেন নুর-রাব্বানীরা

কো-চেয়ারম্যান পদ থেকে জিএম কাদেরকে অব্যাহতি

জালালাবাদে কাইয়ুম উদ্দিনের ব্যাপক গণসংযোগ ও পথসভা

বান্দরবানে জাতীয়করণ না হওয়ায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষার্থীরা বিপাকে 

মক্কা প্রবাসী ঐক্য কল্যাণ পরিষদের ইউনিয়ন ভিত্তিক ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল

কক্সবাজার পরিবেশ, মানবাধিকার ও উন্নয়ন ফোরামের বিশ্ব পানি দিবস উদযাপন

‘আনারস’ প্রতীক নিয়ে সেলিম আকবরের বিভিন্ন এলাকায় ব্যাপক গনসংযোগ

সদর উপজেলাকে মডেল উপজেলা করার সুযোগ দিন : কায়সারুল হক জুয়েল

কচ্ছপিয়ায় জীপ গাড়ীর চাকায় পিষ্ট হয়ে ৪ বছরের শিশুর মৃত্যু

উখিয়ায় ২ হাজার ইয়াবাসহ আটক-১

পেকুয়ায় নৌকার পক্ষে প্রচারণায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান সাঈদী

কাল রামু উপজেলা পরিষদ নির্বাচন

অবেহেলিত জনপদে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগাতে বই মার্কায় ভোট দিন : রশিদ মিয়া

মাদক ও জন হয়রানিমুক্ত আধুনিক টেকনাফ গড়তে নৌকায় ভোট দিন

হারবাংয়ে মহাসমারোহে ভদন্ত উ রাজিন্দা মহাথেরোর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া অনুষ্ঠিত