শেখ হাসিনার অধীনেই নির্বাচনে যাবে বিএনপি?

শেখ হাসিনার অধীনেই নির্বাচনে যাবে বিএনপি?

ডেস্ক নিউজ:

বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে কোনো নির্বাচন নয়- এই মৌলিক দাবি থেকে সরে আসছে বিএনপি। বিএনপি এবং কূটনৈতিক সূত্রে প্রাপ্ত খবরে জানা গেছে, শর্তসাপেক্ষে শেখ হাসিনার অধীনেও নির্বাচনে যেতে রাজি বিএনপি। এ ব্যাপারে বিএনপির নেতারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাছে তাদের মনোভাব জানিয়েছে। এই তিনটি দেশই বিএনপির নেতৃবৃন্দকে অনুরোধ করেছিল বর্তমান সাংবিধানিক কাঠামোর অধীনেই একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচনী ফর্মুলা তৈরির জন্য। এই প্রেক্ষাপটে বিএনপি ৫ টি শর্ত পূরণ সাপেক্ষে দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাওয়ার সম্মতি জানিয়েছে। এই পাঁচ শর্ত হলো:

১. নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে বর্তমান জাতীয় সংসদ ভেঙে দিতে হবে।

২. নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে।

৩. বর্তমান নির্বাচন কমিশন ভেঙে দিয়ে সকল রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে গ্রহণযোগ্য নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করতে হবে।

৪. আলোচনার মাধ্যমে নির্বাচনকালীন সরকারের কার্যপরিধি সুনির্দিষ্ট করা হবে।

৫. বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের উপর নিপীড়নমূলক সকল মামলা প্রত্যাহার করতে হবে এবং আটক নেতা-কর্মীদের ফেরত দিতে হবে।

যোগাযোগ করা হলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য এই প্রস্তাবের কথা স্বীকার করেছেন। তবে তিনি বলেছেন, ‘এ ধরনের কোনো আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব আমরা দেইনি। দাতা দেশগুলোর সঙ্গে আমাদের নিয়মিত কথাবার্তা হচ্ছে। সেখানে আমরা বলেছি, ‘এটা হলো বটম লাইন। নূন্যতম এটুক হলে আমরা নির্বাচনে যেতে পারবো।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন,  ‘আমরা একটা অদ্ভুত অবস্থার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি। বিএনপি নির্বাচনে যেতে মরিয়া আর আওয়ামী লীগ সর্বশক্তি দিয়ে আমাদের নির্বাচনে অংশগ্রহণে বাধা সৃষ্টি করছে। তারা একের পর এক এমন কাজ করছে যেন বিএনপি নির্বাচন না আসে। বিএনপি নির্বাচনে এলে তাদের ভরাডুবি নিশ্চিত।’ তিনি বলেন, ‘আমরা নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক এর দাবি থেকে সরে আসিনি। আমাদের কথা খুব স্পষ্ট, আমরা এমন একটা নির্বাচন চাই যেখানে জনগণের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটবে।’

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, দাতা দেশগুলোই এখন সহায়ক বা তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ধারণাকে সমর্থন করে না। তবে তাঁরা চায়, এখন একটি নির্বাচনী পরিবেশ যেখানে বিএনপি অংশ নিতে পারে। এই পরিপ্রেক্ষিতেই বিএনপি এই পাঁচ শর্ত দিয়েছে। তবে বেগম জিয়ার মুক্তি এবং নির্বাচনে অংশগ্রহণের প্রসঙ্গটি বিএনপির পাঁচ দফা দাবির মধ্যে নেই। অবশ্য পঞ্চম দাবিতে বিএনপি সব নেতাকর্মীদের মামলা প্রত্যাহারের কথা বলেছে। কৌশলগত কারণে বেগম জিয়ার মুক্তির ইস্যুটি তাঁরা আলাদাভাবে বলেনি।

দাতা দেশগুলো চাইছে নির্বাচনের আগে একটা রাজনৈতিক সমঝোতা। তাঁরা এই পাঁচটি ইস্যু নিয়ে আওয়ামী লীগের সঙ্গেও কথা বলবে। তবে আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ বলেছেন, এইসব পুরনো দাবি। এই দাবিগুলো যে গ্রহণযোগ্য নয় তা আগেই আওয়ামী লীগ বলেছে।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

কক্সবাজার সদর-রামু আসনে নৌকা পাচ্ছেন কে?

ভারতের রাজনীতিতে যেভাবে প্রভাব ফেলবে বাংলাদেশের নির্বাচন

চার পয়েন্টকে গুরুত্ব দিয়ে তৈরি হচ্ছে আ.লীগের ইশতেহার

মহেশখালীতে অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার

দলের সিদ্ধান্ত কতটুকু মানবেন বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীরা?

মওলানা ভাসানীর ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

বিয়ের আগেই ৪৫০ কোটি টাকার বাংলো উপহার

ভারতের তামিলনাডুতে ‘গাজা’র আঘাতে প্রাণ গেল ৩০ জনের

প্রিন্স সালমানই খাশোগিকে হত্যার নির্দেশ দিয়েছিলেন : সিআইএ

শতভাগ সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না: কবিতা খানম

নির্যাতিত হয়ে সৌদি আরব থেকে ফেরত আসলেন ২৪ নারী কর্মী

মিয়ানমারের মানবতাবিরোধী অপরাধের তদন্ত করবে জাতিসংঘ

চট্টগ্রামের প্রয়াত চারনেতার বিশেষত্ব ছিল এরা দুঃসময়ে সাহসী : নাছির

বদরখালীতে কিশোরের জুতার ভেতর থেকে ইয়াবা উদ্ধার

জাতীয়করণ হলো টেকনাফ এজাহার বালিকা উচ্চবিদ্যালয়

৪ বছরের শিশু নিহানকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

অপরাধ দমনে চট্টগ্রামে আইপি ক্যামেরা বসাচ্ছে সিএমপি পুলিশ 

বিশ্ব ইজতেমা স্থগিত হয়নি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়

রামুতে ৩৮ হাজার ইয়াবার ট্রাক সহ আটক ২

খুরুস্কুল বাসীকে কাঁদিয়ে চির বিদায় নিল মেধাবী ছাত্র মিশুক