এম.মনছুর আলম,চকরিয়া :

কক্সবাজারের চকরিয়ায় বসতভিটার সীমানা বিরোধকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে বয়োবৃদ্ধসহ একই পরিবারের ৩ ব্যক্তিকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করা হয়েছে।শুক্রবার সন্ধ্যা ৬ টার দিকে উপজেলার বিএমচর ইউনিয়নের ৬নম্বর ওয়ার্ডের বাঁশখালীয়া পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।ঘটনায় আহত ব্যক্তিরা হলেন,ওই এলাকার মৃত আবদুল কাদেরের পুত্র বয়োবৃদ্ধ রমিজ উদ্দিন (৬০) তার দু’পুত্র জাহেদ (২৫) ও মুরাদ মিয়া (২২)।ঘটনাস্থল থেকে আহতদের স্থানীয়রা উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।এনিয়ে আহত পরিবারের পক্ষথেকে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে সূত্রে জানায়।

স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে বিএমচর ৬নম্বর ওয়ার্ডের বাঁশখালীয়া পাড়া এলাকায় রমিজ উদ্দিনের বসতভিটার সীমানা দিয়ে পাশ্ববর্তী দুলাল উদ্দিন ও গিয়াস উদ্দিন বৃষ্টির জমে থাকা ও ময়লার পানি চলাচল করায় বাঁধা দেয়।এসময় আহত রমিজ উদ্দিনের সীমানা দিয়ে পানি না নেয়ার জন্য নিষেধ করলে দুলালের নেতৃত্বে তার ভাই,স্ত্রী ও পুত্ররা ধারালো অস্ত্রদিয়ে দা, লোহার রড নিয়ে রমিজ উদ্দিনের উপর অর্তকিত হামলা চালায়। এসময় বাধা দিতে গেলে রমিজ উদ্দিন দুই পুত্র জাহেদ ও মুরাদকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে দুলালের লোকজন এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতর জখম করে।পরে স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করায়।

হামলায় আহত মুরাদ মিয়া বলেন,দীর্ঘদিন ধরে পার্শ্ববর্তী দুলাল উদ্দিন পরিবারের সাথে বসতভিটা সীমানা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল।সন্ধ্যার দিকে আমাদের সীমানার উপর দিয়ে ময়লাযুক্ত ও বৃষ্টির পানি চালায় দুলাল উদ্দিন।এতে নিষেধ করায় দুলালের ভাই ও তার পরিবারের সদস্যরা অতর্কিত ভাবে আমার বৃদ্ধ পিতাকে হামলা চালিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে।এ সময় বাঁধা দিতে গেলে আমাকে ও বড় ভাইকেও কুপিয়ে গুরুতর জখম করা হয়েছে। এ ঘটনার ব্যাপারে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে চকরিয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো:বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরীর কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান,হামলার ঘটনার ব্যাপারে এখনো কোন অভিযোগ পাইনি।লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •