চকরিয়ার সন্তান রাগিব ‘অরগ্যানিক ড্যান্স সং’ নির্মাণ করে চমক

এম.মনছুর আলম,চকরিয়া:

কক্সবাজারের চকরিয়ার উদীয়মান তরুণ প্রতিভাবান কৃতি সন্তান আফতাব উদ্দিন ছিদ্দিকী রাগিব (বিহঙ্গ চৌধুরী) দেশে প্রথমবারের মতো ‘অরগ্যানিক ড্যান্স সং’ নির্মাণ করে চমক সৃষ্টি করেছে। বাংলাদেশে তিনিই প্রথমবারের মত কেবল অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের নাচ সম্বলিত এ মিউজিক ভিডিও নির্মাণ করে।সোজা কথায় যাকে বলা যায়,অরগ্যানিক ড্যান্স সং।বিহঙ্গ চৌধুরীর নির্মিত ভিডিও ইতিমধ্যে মুক্তি পেয়েছে।শনিবার(১২মে) সন্ধ্যায় সংগীত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সিএমভি’র (সেন্ট্রাল মিউজিক অ্যান্ড ভিডিও) ইউটিউব চ্যানেলে গানটি মুক্তি পায়।তরুণ প্রতিভাবান শিল্পী আফতাব উদ্দিন ছিদ্দিকী রাগিব (বিহঙ্গ চৌধুরী) চকরিয়া উপজেলার কাকারা ইউনিয়নের দক্ষিণ কাকারা মাষ্টার ঘাটা এলাকার জসিম উদ্দিন ছিদ্দিকী’র পুত্র।তিনি পেশায় বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের একজন আইনজীবি ও জাতীয় দৈনিক কালের কন্ঠের নিয়মিত কলাম লেখক।

‘’সুখ-পিয়াস’’ শিরোনামের ব্যাতিক্রম ধরণের এই জীবনমুখী-রক গানে কণ্ঠ দিয়েছেন উদীয়মান তরুণ কণ্ঠশিল্পী বিহঙ্গ চৌধুরী (রাগিব) নিজেই।তিনি গানটির কন্ঠের পাশাপাশি নির্মিত ওই ভিডিও গানের কথা, সুর, সংগীত রচনা ও মিউজিক ভিডিও পরিকল্পনায় ছিলেন আফতাব উদ্দিন ছিদ্দিকী রাগিব।এতে সংগীত আয়োজনে ছিলেন মার্সেল ও নাহিয়ান।

এ মিউজিক ভিডিওর গানটিতে অনন্য ব্যাতিক্রম ধরণের বৈশিষ্ট্য হচ্ছে শরীরের ১১টি অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের (মাথা, চোখ, চোখের ভ্রূ, মুখ, গলা, ঘাড়, হাত, কবজি, কোমর, হাঁটু ও পায়ের পাতা) পৃথক পৃথক নাচ সংযোজিত হয়।গানের চিত্রায়নে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের (অর্গান) এমন বিশেষ ব্যবহার আগে কখনো হয়নি।তা ছাড়া বাংলাদেশের কোনো গানে ভ্রূ-নাচের ব্যবহারও এই প্রথম।কণ্ঠ দেওয়ার পাশাপাশি শিল্পী নিজেই গানটির নাচে অংশ নিয়েছেন।সাথে ছিলেন নৃত্যশিল্পী নিশু ও মুজাহিদ।

ব্যতিক্রমধর্মী এ গান প্রসঙ্গে শিল্পী আফতাব উদ্দিন ছিদ্দিকী রাগিব (বিহঙ্গ চৌধুরী) কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটি সম্পূর্ণ নিরীক্ষাধর্মী একটি গান।নিরীক্ষা হলেও বিনোদনের প্রচুর উপকরণ রয়েছে গানটিতে।এখন দর্শক গ্রহণ করলে আমাদের চেষ্টা সার্থক।

সিএমভির কর্ণধার এস.কে শাহেদ আলী পাপ্পু বলেন, আমরা বৈচিত্র্যে বিশ্বাসী। আশা করি, মিউজিক ভিডিওতে ‘অরগ্যানিক ড্যান্স’ বা ভ্রূ নাচের ব্যবহার সংগীতাঙ্গনে নতুন মাত্রা যোগ করবে।

বর্তমানে মুক্তি পাওয়া গানটি সিএমভির ইউটিউব চ্যানেলের পাশাপাশি শোনা যাবে তাদের ওয়েবসাইট, জিপি মিউজিক, ইয়ন্ডার মিউজিক, বাংলালিংক ভাইব, বাংলালিংক স্প্ল্যাশ ও বাংলাফ্লিক্সে।