লামায় জিম্মায় থাকা ২৭ হাজার ঘনফুট পাথর উধাও

মো. নুরুল করিম আরমান, লামা:

নিলামের আগেই বান্দরবানের লামা উপজেলায় জব্দকৃত ২৭ হাজার ঘনফুট পাথর উধাও হয়ে গেছে। স্থানীয়রা শনিবার স্টকে কোন পাথর না দেখে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। এ নিয়ে সংশ্লিষ্ট মহলে বিস্ময়ের সৃষ্টি হয়েছে। সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের দুর্বলতা ও উদাসীনতাকেই দায়ী করা করছেন সচেতন মহল।

জানা গেছে, গত ২৫ ফেব্রুয়ারী উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের বনপুর এলাকার ৩টি স্তুপে অবৈধভাবে উত্তোলন ও মজুদকৃত ২৭ হাজার ঘনফুট পাথর আটক করে ডিশডেবা বিজিবি’র সদস্যরা। পরে উপজেলা প্রশাসনকে পাথর আটকের বিষয়টি জানালে নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. সায়েদ ইকবাল ঘটনাস্থলে গিয়ে পাথরগুলো জব্দ করে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য আপ্রুচিং মার্মার জিম্মায় দেন। পরবর্তীতে পাথর আটকের ঘটনায় উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক বান্দরবান জেলা প্রশাসনের কাছে মতামত চাইলে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশ দেয় জেলা প্রশাসক। এ প্রেক্ষিতে উপজেলা প্রাশাসনের নির্দেশে লামা থানা পুলিশ মালিক বিহীন পাথরগুলো নিলামের অনুমতি চেয়ে লামা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আবেদন করে। আদালত এখনো কোন সিদ্ধান্ত দেয়নি। এরই মধ্যে গত ৫দিনে জব্দকৃত স্টকের পাথরগুলো উধাও হয়ে যায়। প্রসঙ্গত, গত ৩ মে ২০১৮ইং স্থানীয় আলী হোসেন মিজান, প্রদীপ কান্তি দাশ ও মো. নাছির উদ্দিনের নামে এক মাসের মেয়াদে ৪০ হাজার ২শত ঘনফুটের ৩টি পাথরের পারমিট প্রদান করে বান্দরবান জেলা প্রশাসন। অভিযোগ উঠেছে, এই তিনটি পারমিট দিয়ে সমগ্র উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে প্রতিদিন লক্ষাধিক ঘনফুট পাথর পাচার হয়ে যাচ্ছে। এদিকে জব্দকৃত পাথর উধাও হয়ে যাওয়ায় বিস্ময় প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা। তারা বলেন, উধাও হওয়া পাথরগুলি নিলাম হলে সরকারের কমপক্ষে ৩ লক্ষাধিক টাকা রাজস্ব আয় হত।

পাথরের জিম্মাদার আপ্রুচিং মার্মা বলেন, জিম্মায় থাকা পাথরগুলো গত কয়েকদিন ধরে কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার পাথর ব্যবসায়ী হুমায়ন, জামাল উদ্দিন ফকির ও মহিউদ্দিন মহিম গায়ের জোরে নিয়ে গেছেন। তাদের সংঘবদ্ধ গ্রুপ রয়েছে। জীবনের মায়ায় আমি প্রতিবাদ কিংবা বাঁধা প্রদান করতে পারিনি। তবে লামা থানাকে জানিয়েছিলাম। জেলা প্রশাসনের নির্দেশে পাথরগুলো দেখার দায়িত্ব ছিল লামা থানা পুলিশের।

লামা থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক গিয়াস উদ্দিন বলেন, জিম্মায় থাকা পাথর উধাও হওয়ার বিষয়ে শুনিনি। তবে জব্দকৃত পাথরগুলো স্থানীয় ইউপি সদস্যের জিম্মায় দেয়া হয়েছিল। স্টক থেকে পাথর উধাও হয়ে গেলে জিম্মাদারকে জবাব দিহি করতে হবে।

লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার নুর-এ জান্নাত রুমি বলেন, যেহেতু জব্দকৃত পাথরের ঘটনায় উপজেলা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা চলমান, সেহেতু এ বিষয়ে মন্তব্য করা ঠিক হবেনা। আদালতের নির্দেশনা পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান তিনি।

সর্বশেষ সংবাদ

একটি রাত

চট্টগ্রামে ইয়াবাসহ গ্রেফতার ১

জাকির নায়েকের বক্তব্য দেয়া নিষিদ্ধ করল মালয়েশিয়া

অপরাধীদের শাস্তি দ্রুত নিশ্চিত না করায় ধর্ষণ বেড়েছে: হাইকোর্ট

প্রত্যাবাসনের তালিকাভুক্ত রোহিঙ্গাদের সাক্ষাৎকার শুরু আজ

নবম ওয়েজবোর্ডের গেজেট প্রকাশে বাধা নেই

ডেঙ্গু রোগীরা ছয়মাস পর্যন্ত কাউকে রক্ত দিতে পারবেন না

পেকুয়ায় বন্দুকযুদ্ধে উপকূলের শীর্ষ জলদস্যু বাদশা নিহত, অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার

কর্ণফুলীতে বীরদর্পে ছুরি উচিয়ে চাঁদা দাবি, থানায় অভিযোগ

হাটহাজারীতে গৃহবধুর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

কর্ণফুলীতে বিক্ষুব্ধ জনতার পুলিশ বক্স ভাংচুর , টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়শঙ্কর ৩দিনের সফরে ঢাকায়

“ভোটার হবার কী উপায়”

কাশ্মীর: ‘বাড়ি বাড়ি গিয়ে যুবকদের তুলে নেয়া হচ্ছে’

লুৎফুর রহমানের আত্মার মাগফিরাত কামনায় দোয়া অনুষ্ঠান

হুফফাজুল কুরআন ফাউন্ডেশনের ৬ দিনব্যাপী হিফজ শিক্ষক প্রশিক্ষণ কোর্স সম্পন্ন

২১ আগস্ট উপলক্ষ্যে পৌর আওয়ামী লীগের প্রস্তুতি সভা

মুক্তির সভাপতি শিবুলাল দেবদাসের বিরুদ্ধে কোটি টাকার মানহানি মামলা

হোটেল সী-প্যালেসের মার্কেট থেকে ১৩ কেজি ৬৫০ গ্রাম শীশাসহ সরঞ্জাম উদ্ধার, ব্যবসায়ী আটক

মহেশখালী পাহাড়ে পুলিশের অভিযানে ২টি লম্বা বন্দুক,৪রাউন্ড কার্তুজ, টেটা উদ্ধার