মা-মাতৃকা ও লাল-সবুজের পতাকার টানে দেশে ফিরতে উদগ্রীব সালাহউদ্দিন

মো: আকতার হোছাইন কুতুবী ॥
বাংলাদেশের রাজনীতিতে বিএনপি তথা জাতীয়তাবাদী ও ইসলামী মূল্যবোধে বিশ্বাসী, সাধারণ আম-জনতার পক্ষে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের দিকপাল, সাবেক সাংসদ, মন্ত্রী ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য বর্তমানে ভারতে নির্বাসিত মজলুম জননেতা সালাহউদ্দিন আহমেদ মা-মাতৃকা ও লাল-সবুজের পতাকার টানে ভারতের শিলং থেকে বাংলাদেশে ফিরতে উদগ্রীব হয়ে অপেক্ষার প্রহর গুণছেন। মামলা শেষ হওয়ার পরপরই তিনি দেশে ফিরবেন বলে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে। তিনি স্বেচ্ছায় ভারতে যাননি, আদালত কর্তৃক এটা প্রমাণ করতেই আইনী লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। সাবেক মন্ত্রী সালাহউদ্দিন আহমেদকে যখন চোখ-মুখ বাঁধা অবস্থায় শিলং-এ গাড়ি থেকে নামিয়ে দেয়া হয়, তখন তিনি চোখের কাপড় খুলে সামনে একটু হেঁটে গিয়ে একটি দোকানের সামনে বেঞ্চে বসে পড়ে। ওই সময় মর্নিং ওয়ার্ক করতে আসা কিছু লোকের কাছ থেকে তিনি জানতে চান, এটি কোন জায়গা? উত্তরে তারা বলেছিলেন এটি মেঘালয়ের শিলং শহর। তখন তিনি পুলিশ স্টেশন কোথায় জানতে চান। মর্নিং ওয়ার্ক করতে আসা লোকজনদের তিনি অনুরোধ করে বলেন, নিকটস্থ পুলিশের কাছে তার খবরটি পৌঁছে দেয়ার জন্য। সেখানকার পুলিশ খবর পেয়ে শিলং সদর থানায় তাকে নিয়ে যায়। পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদে তার কাছে জানতে চায় শিলংয়ে কিভাবে এসেছে। পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বিএনপির সিনিয়র এ নেতা সালাহউদ্দিন আহমেদকে পুলিশ হেফাজতে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়, “মিমহানস” হাসপাতালে। ভারতের নির্বাসিত জীবনের ৩ বছর পূর্ণ হলো ১১ মে। মেঘালয় রাজ্যের রাজধানী শিলং শহরে ২০১৫ সালের ১১ মে একটি গাড়ি থেকে চোখ-মুখ বাঁধা অবস্থায় তাকে নামিয়ে দেয়া হয়। সালাহউদ্দিন আহমেদ শুরু থেকে আজঅব্দি আদালত ও মিডিয়াকে বলেছেন, অচেনা অপহরণকারীরাই তাকে তুলে নিয়ে গিয়েছিল এবং শিলং-এ রাস্তায় উদভ্রান্ত অবস্থায় সেখানকার পুলিশ তাকে উদ্ধার করে। তার বিরুদ্ধে অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশ করার অভিযোগে ফরেনার্স এ্যাক্টেও মামলা করা হয়। আর সে মামলা থেকে শর্ত-সাপেক্ষে জামিন পেয়ে শিলং-এ অবস্থান করছেন। জননেতা সালাহ উদ্দিন আহমেদ ১০ মে এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, তিনি কখনো স্বেচ্ছায় ভারতে আসেননি। আদালতে সেটা প্রমাণ করতে পারলেই আমি আমার প্রিয় জন্মভূমি বাংলাদেশে ফিরে যাব। আমিতো প্রতিদিন, প্রতি মুহূর্ত ও প্রতিক্ষণ অপেক্ষা করছি কখন আমার বাংলাদেশে ফেরত যাওয়া হবে। মামলাটি বর্তমানে যুক্তিতর্ক শুনানীর অপেক্ষায় আছে। বলা যেতে পাওে ঠিক রায়ের আগের পর্যায়ে। ফলে বলতে পারেন চূড়ান্ত মুহূর্তে পৌঁছে গেছে। এখন শুধু তারিখের উপর তারিখ পড়ছে। শুনানী হতে বিলম্ব হচ্ছে। রায়টা হয়ে গেলে বুঝতে পারতাম কখন দেশে ফিরতে পারবো। শিলং-এ অবস্থানকালে সালাহউদ্দিন আহমেদ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়েছিলেন। দিল্লীতে উন্নত চিকিৎসা করান আদালতের অনুমোতিক্রমে। দিল্লীতে গিয়ে ঘাড়ের ও কিডনির অস্ত্রোপচার করান। সেখানে তিনি সুস্থ থাকলেও বর্তমানে বাংলাদেশে রাজনৈতিক কর্মকা- দেখে চিন্তিত। শহীদের রক্তভেজা স্বাধীন ও সার্বভৌমত্ব বাংলাদেশের মাটিতে জনগণের গণতন্ত্র বন্দী থাকবে সেটা উন্নয়নের ফেরিওয়ালাখ্যাত সালাহউদ্দিন আহমেদ মেনে নিতে পারেন না। তিনি চিরসবুজ বাংলাদেশের গণতন্ত্রের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। এদেশের জনগণ ও মাটির প্রতি তার দরদ রয়েছে হৃদয় থেকে। সাধারণ জনগণের কতটুকু ভালবাসা, দোয়া ও শ্রদ্ধা থাকলে মানুষ কালজয়ী হয়। সালাহউদ্দিন আহমেদ তেমনি একজন মানুষÑযিনি মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে এসেছিল ১১ মে!
পর্যটন রাজধানী খ্যাত অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি, বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারের পেকুয়ায় সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে তার জন্ম। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএল.বি অনার্স, এলএল.এম করে কিছুদিন আইন পেশায় নিয়োজিত ছিলেন। পরবর্তীতে বিসিএস পাস করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে সরকারি চাকরিতে যোগদান করেন। জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে চৌকসতার পরিচয় দিয়েছিলেন। বিএনপি রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হলে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া এপিএস হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে চকরিয়া থেকে পেকুয়াকে আলাদা উপজেলায় রূপান্তরিত করেন। ঐ এলাকাসহ পুরো জেলাতে উন্নয়নের তিলোত্তমা ঘটান। সরকারি চাকরি ইস্তফা দিয়ে চকরিয়া-পেকুয়া থেকে বিপুল ভোটে ১৯৯৬ সালে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।
২০০১ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীকে বিশাল ব্যবধানে পরাস্ত করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে জেলাবাসীকে মন্ত্রীত্ব পদে আসীন হয়ে গৌরবান্বিত করেন। স্বাধীনতা পরবর্তী তিনি দক্ষিণ চট্টলা তথা কক্সবাজারের প্রথম মন্ত্রী সভার সদস্য। মন্ত্রী হওয়ার পর তিনি আর পেছনে ফিরে তাকাননি। তার একটি শ্লোগান ছিল “প্রতিদিন উন্নয়ন-প্রতিদিন সংগঠন”। সে শ্লোগানের প্রতিটি অক্ষর তিনি পালন করেছেন উন্নয়ন ও সংগঠনকে উজ্জীবিত করার মধ্য দিয়ে। জাতীয় এই নেতা শয়নে-সপনে-জাগরণে বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষ ও মাটিকে এতোবেশি ভালবাসেন তা লিখে শেষ করা যাবে না। ওয়ান ইলেভেনের পর তাকে যখন গ্রেফতার করা হয়, তখন আজকের সুবিধাবাদী ও সুকৌশলে পদ-পদবী দখলকারী রাজনীতিবিদরা মহাখুশিতে নৃত্য করেছিল। কিন্তু জনগণ ও জিয়াপ্রেমী কর্মীরা তাকে হৃদয়ের গভীর থেকে ভালবাসে। তাই তার মুক্তির পর কক্সবাজার ও চকরিয়া-পেকুয়ায় সংবর্ধনা হয়েছিল লক্ষ লক্ষ জনগণের উপস্থিতিতে। একজন রাজনীতিবিদ এত জনপ্রিয় হতে পারে সেটা তার এলাকাসহ পুরো চট্টগ্রামের জনগণ ও দলের কর্মীদের সাথে কথা না বললে বা তার এলাকা পরিদর্শন না করলে বুঝা যাবে না। তিনি একটি নাম-একটি ইতিহাস।
১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনের মধ্য দিয়ে গঠিত সংসদ তৎকালীন বিরোধী দলের দাবিকে প্রাধান্য দিয়ে বিএনপি সংসদ ভেঙ্গে দেন। পরবর্তীতে তথা কথিত মঈনুদ্দীন-ফখরুদ্দিনের সেনা শাসিত আমলে তার বিরুদ্ধে অনেক হয়রানিমূলক মামলা দায়ের করা হয় ও কারারুদ্ধ করা হয়। জননেতা সালাহউদ্দিন আহমেদ কারারুদ্ধ থাকাবস্থায় তার স্ত্রী হাসিনা আহমেদ চকরিয়া-পেকুয়া আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীকে পরাজিত করে বিপুল ভোটে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। এরই নাম জনগণের ভালোবাসা। সালাহউদ্দিন আহমেদের ভালবাসা ও উন্নয়নের জোয়ারে ঘরের বধূকেও তখন সংসদে পাঠিয়েছিল জনতার রায়। বিচক্ষণ বিএনপির এ রাজনীতিবিদি জাতীয়তাবাদী দলের কার্যনির্বাহী কমিটির দীর্ঘদিন যুগ্ম-মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করেছিলেন সুচারুভাবে। এদেশের রাজনীতিকে মেধাশূন্য করার জন্য ও স্বাধীন সাবভৌম বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবারে খাটো করার জন্য লেবাসধারী পলিটিশিয়ানরা গুম, খুন ও অগণতান্ত্রিক রাজনীতির জন্ম দিতে নগ্ন খেলায় মেতে উঠেছেন। ২০০৮-এ আওয়ামী লীগ সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন করে ক্ষমতায় আসেন। জেল-জুলুম হুলিয়াকে মাথায় নিয়ে জিয়াপ্রেমী সালাহউদ্দিন আহেমদ এদেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন অগ্রভাগে। জাতীয়তাবাদ ও ইসলামী মূল্যবোধে বিশ্বাসী এবং জিয়া পরিবারে ঘনিষ্ঠ সহচর সালাহউদ্দিন আহমেদ তার মেধা, যোগ্যতা ও সৃষ্টিশীল মনকে কাজে লাগিয়ে টেকনাফ থেকে তেতুলিয়া, রূপসা থেকে পাটুরিয়া তৃণমূলের নেতাকর্মীদের হৃদয়ের মনিকোঠায় জায়গা করে নিয়েছেন। দুর্নীতি ও মোনাফেকদের আতঙ্কের অপর নাম সালাহউদ্দিন। তার স্বভাবগত দীক্ষা ভিন্ন, তিনি কখনো দেশ-জাতি, কলঙ্কিত হোক সে রাজনীতি করেননি। ২০১৪ সালে ৫ জানুয়ারি প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াত অংশগ্রহণ করেনি। কারণটি ছিল নির্দলীয়-নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাতিল। বিএনপিসহ ২০ দলীয় জোটের দাবি ছিল তত্ত্বাবধায়ক সরকার পুনর্বহাল না করলে নির্বাচনে যাবে না। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ১৫৪ আসনে বিনা ভোটে নির্বাচিত হয়ে আবারো স্বাধীন বাংলাদেশের ক্ষমতার মসনদে আসীন হন। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলেন, শেখ হাসিনা ক্ষমতাকে পাকা পোক্ত করার জন্য বিরোধী দলের মিছিল-মিটিং গণতান্ত্রিকভাবে করতে না দেয়া ও নেতাকর্মীদের গ্রেফতার এবং দমনমুলক রাষ্ট্র পরিচালনা করে ইতিহাসের এক কলঙ্কজনক অধ্যায়ের রচনা করেছেন। যা এখনো চলমান।
সূত্রে আরো জানা যায়, কক্সবাজারের ভূমিপুত্র সালাহউদ্দিন আহমেদ বাংলাদেশে গ্রেফতারের পর বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের ও আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত বিভিন্ন দলিলাদি শিলং-এ আদালতে উপস্থাপন করেছেন। সালাহউদ্দিন আহমেদ আশা প্রকাশ করেন আমার উপস্থাপিত ও আমার রাজনৈতিক অবস্থান দেখে মাননীয় আদালত উক্ত মামলা থেকে আমাকে খালাস দেবেন বলে আমি প্রত্যাশা রাখছি। ২০১৫ সালে ১০ মার্চ রাতে ঢাকার উত্তরার একটি বাসা থেকে সাদা পোশাকধারী একদল লোক আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী পরিচয় দিয়ে বিএনপির নেতাকে আটক করে। ওই তারা চোখ দুটি গামছা বেধে গাড়িতে তুলে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। দল, মানবাধিকার সংগঠন ও পরিবারের দাবি-দাওয়ার প্রেক্ষিতে দীর্ঘ ৬২ দিন অজ্ঞাত স্থানে আটক রাখার পর ভারতের মেঘালয়ের শিলং শহরে সড়কের উপর মাইক্রোবাস থেকে তাকে নামিয়ে দিয়ে গাড়িটি দ্রুত স্থান ত্য্যগ করে। যা আমি বর্তমান চিকিৎসা ভারতের শিলং মেঘালয়ের রাজধানীর কেন্দ্রস্থল থেকে ৫ কিলোমিটার দূরে লাভান এলাকায় একটি কটেজে অবস্থান করছেন। নান্দনিক এই কটেজটি দেখার মতো। রয়েছে নৈপুন্যতায় ভরপুর। এই কটেজের মধ্যে একটি রুমেই তিনি থাকেন। সাবেক এমপি হাসিনা আহমেদ ছেলেয়েদের সাথে নিয়ে বছরে ৩/৪ বার দেখা করার জন্য শিলং-এ যান। এভাবেই দিন কাটাচ্ছেন বাংলাদেশের দাপুটে রাজনীতিবিদ বিএনপির স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য, সাবেক মন্ত্রী, মেধাবী রাজনীতিবিদের পথিকৃত জননেতা সালাহউদ্দিন আহমেদ।
লেখক পরিচিতি : মো: আকতার হোছাইন কুতুবী, সহ-সম্পাদক, জাতীয় দৈনিক আমার কাগজ, দি গুডমর্নিং, প্রধান সম্পাদক জাতীয় ম্যাগাজিন জনতার কণ্ঠ, উপদেষ্টা সম্পাদক জাতির আলো, ঢাকা। ই-মেইল : [email protected]  মোবাইল : ০১৭১২১৮০২৬৩।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

যুক্তরাষ্ট্রকে ১০০ মিলিয়ন ডলার দিল সৌদি আরব

মাহবুব তালুকদারের প্রস্তাব সংবিধানের সাথে সাংঘর্ষিক : কবিতা খানম

অবৈধভাবে বিদেশে যাচ্ছে রোহিঙ্গারা

ছেলেদের যে বিষয়গুলো খেয়াল করে মেয়েরা

শেখ রাসেলের জন্মদিন আজ

স্বামীর ‘ভুয়া মৃত্যু’র খবরে দুই সন্তান নিয়ে স্ত্রীর আত্মহত্যা

শিশু চালকদের হাতে গাড়ি 

বদলে যাচ্ছে প্রাথমিকের পাঠদান

২৭ অক্টোবর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের চট্টগ্রাম বিভাগীয় মহাসমাবেশ

নির্বাচনী গণসংযোগ-প্রচারনায় সরব ইলিয়াছ এমপি

কক্সবাজার জেলা আ. লীগ নেতৃবৃন্দের শহরের বিভিন্ন পূজা মন্ডপ পরিদর্শন

চকরিয়ায় এক যুবককে পিটিয়ে জখম, টাকা ছিনতাই

হারবাং দাখিল মাদরাসা সুপার সড়ক দূর্ঘটনায় আহত

ঈদগাঁওতে কেন্দ্র সচিব আগুনে পুড়ালেন বোর্ড পরীক্ষার উত্তরপত্র

‘ভাবি’ ইজ হারাম!

১০১ হিন্দু রোহিঙ্গা পরিবারে দুর্গোৎসব, প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা উপহার

প্রাথমিকের নতুন সচিবের ৯ নির্দেশনা, বদলাচ্ছে পাঠদান পদ্ধতি

রামুর বিভিন্ন পূজামন্ডপ পরিদর্শনে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার

পেকুয়ায় নিজস্ব জমি ও নতুন ভবনে দুর্গা পূজার উৎসব

শহরে বসতবাড়ী থেকে মোটরসাইকেল চুরি