প্রেস বিজ্ঞপ্তি
“প্রেরণার বালাকোট চেতনার স্মারক” শীর্ষক আলোচনা সভা করেছে কক্সবাজার ইসলামী সাহিত্য ও গবেষণা পরিষদ। ৬ মে ঐতিহাসিক বালাকোট দিবসে সংগঠনটি এ আয়োজন করে। রবিবার, বাদে মাগরিব অস্থায়ী কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় আলোচকবৃন্দ বলেন, ১৮৩১ সালের ৬ মে বালাকোটের ময়দানে এক অসম যুদ্ধে শহীদ হয়েছিলেন শাহ সৈয়দ আহমদ শহীদ বেরলভী (রহ.), শাহ ইসমাঈল শহীদ বেরলভী রহ. সহ বহু মর্দে মুজাহিদ।
বদর-উহুদ,খায়বারের প্রেরণায় আমিরুল মুজাহিদীন হযরত শাহ সৈয়দ আহমদ বেরলভী রহ. বিজাতীয় আগ্রাসন থেকে মুসলমানদের সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক মুক্তির এক আপোষহীন সংগ্রাম পরিচালনা করেন। ঈমান-আকীদা, ইসলামী তাহযীব-তামাদ্দুনের সুরক্ষা সর্বোপরি আল্লাহর দ্বীনের ঝান্ডাকে বুলন্দ করার এ সংগ্রামে বীরদর্পে লড়াই করে বালাকোটের যুদ্ধে শাহ সৈয়দ আহমদ বেরলভী (র.) ও তাঁর অনেক সহযোদ্ধা শাহাদাৎ বরণে করেন। এরই মধ্যদিয়ে ভারতে মুসলমানগণ আজাদী আন্দোলনের মাধ্যমে পৃথক আবাসভূমি লাভে উজ্জীবিত হন। তাই বালাকোটের সেই যুদ্ধ স্বাধীনতা প্রিয় মানুষের জন্য প্রেরণার উৎস, চেতনার স্মারক। ঐতিহাসিক বালাকোটের প্রেরণায় উজ্জীবিত হয়ে হকের প্রতিষ্ঠা ও বাতিলের মোকাবিলায় সংগ্রামী প্রয়াস চালিয়ে যেতে হবে।
সংগঠনের সহ-সভাপতি, বিশিষ্ট মুহাদ্দিস মাওলানা মুফতি কামাল হোছাইনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তারা আরো বলেন, ১৮৩১ সালের ৬ মে বালাকোটের যুদ্ধের রক্তিম ইতিহাসের মতো ২০১৩ সালের ৫ মে দিবাগত গভীর রাতে ( ৬মে) শহীদানের রক্তে রঞ্জিত শাপলা চত্বরও ঈমানী চেতনার নতুন বালাকোট হিসেবে অনন্ত প্রেরণা হয়ে থাকবে।
যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাফেজ মুহাম্মদ আবুল মঞ্জুরের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা কাজী মোহাম্মদ এরশাদুল্লাহ। এতে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করেন, সংগঠনের উপদেষ্টা কবি কাজী মোহাম্মদ আলী, রামু রাজারকুল আজিজুল উলুম মাদ্রাসার পরিচালক মাওলানা মোহাম্মদ মোহছেন শরীফ, বিশিষ্ট লেখক ও গবেষক প্রাবন্ধিক আখতারুল আলম, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এড. হোছাইন আহমদ আনছারী, সংগঠনের সহ-সভাপতি মাওলানা নুরুল হক চকোরী, অর্থ সম্পাদক মাওলানা হাফেজ মুবিনুল হক, তরুণ আলেম মাওলানা এজাজুল করিম শফী, হাফেজ সাইফুল ইসলাম । এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, সংগঠনের নির্বাহী সদস্য মাওলানা জসিম উদ্দিন, তরুণ লেখক খলীলুল্লাহ ফুরকান আমেল, আহমদ ছৈয়দ ফরমান, মাওলানা দিদারুল আলম প্রমুখ।
শেষে সৈয়দ আহমদ শহীদ বেরলভী রহ.সহ ঈমানী আন্দোলনের বীর শহীদানের সুউচ্চ মকাম ও সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মরহুম মাওলানা আব্দুচ্ছালাম কুদছী রহ. এর রুহের মাগফিরাত কামনা করে মহান আল্লাহর দরবারে বিশেষ মুনাজাত করা হয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •