cbn  

হাফিজুল ইসলাম চৌধুরী :
দীর্ঘ আট বছর পর নানা জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে- অবশেষ আজ (২মে) অনুষ্ঠিত হচ্ছে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন ও কাউন্সিল।

সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহবায়ক ক্যউচিং চাক বলেন, গত ১৪ এপ্রিল ছিল সম্মেলনের সভাপতি-সম্পাদক প্রার্থীদের মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন। ওই সময় সভাপতি পদে তিনজন আর সম্পাদক পদে দুজন মনোনয়ন দাখিল করেছিলেন। তবে গত ১৮ এপ্রিল সভাপতি পদ থেকে তিন জনের মধ্যে আবু তাহের কোম্পানি স্বেচ্ছায় মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেন।

বাকি চার প্রার্থীর মধ্যে, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সদস্যসচিব অধ্যাপক মো.শফিউল্লাহ ছাতা প্রতীক ও সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো.তারেক রহমান চেয়ার প্রতীক নিয়ে সভাপতি পদে এবং বর্তমান সদস্যসচিব ইউপি সদস্য মোহাম্মদ ইমরান প্রজাপতি প্রতীক ও ডা.সিরাজুল হক চশমা প্রতীক নিয়ে সাধারণ সম্পাদক পদে লড়ছেন।

এবারের সম্মেলনে ১৮০জন কাউন্সিলর নিজেদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করার কথা রয়েছে। নাইক্ষ্যংছড়ি সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তসলিম ইকবাল চৌধুরী বলেন, সর্বশেষ ২০১০ সালে অনুষ্ঠিত উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে দোছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো.হাবিবুল্লাহ সভাপতি আর তিনি সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন। ঠিক তেমনি আজকে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের রায়ে নতুন সভাপতি-সম্পাদক নির্বাচিত করা হবে।

এদিকে কাউন্সিল ঘিরে দলীয় নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের মাঝেও উৎসাহ-উদ্দীপনা বিরাজ করছে। প্রার্থীরা তাঁদের ঘুম হারাম করে গত একমাস প্রচার প্রচারণা চালিয়েছেন। খোঁজখবর নিয়ে জানা গেছে, ভোটের মাধ্যম আর সিলেকশন যেটাই হোক- সভাপতি পদে অধ্যাপক মো.শফিউল্লাহ (ছাতা) এবং সাধারণ সম্পাদক পদে মোহাম্মদ ইমরান (প্রজাপতি) এগিয়ে রয়েছেন। কারণ বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এবং জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ক্যশৈহ্লার বিশ^স্ত ব্যক্তি হিসাবে ইতোমধ্যে অধ্যাপক মো.শফিউল্লাহ দিন দিন নিজের বিকাশ ঘটিয়ে চলেছেন।

একাধিক কাউন্সিলরের সঙ্গে কথা হলে তাঁরা বলেন, ‘শফিউল্লাহ সভাপতি নির্বাচিত হলে দল অনেক শক্তিশালী হবে। তাই ১৮০ ভোটের মধ্যে ১২০ ভোটের অধিক তিনিই পাবেন! পাশাপাশি সাধারণ সম্পাদক পদে ইমরান অনেকটা সহজেই নির্বাচিত হবেন।’

উপজেলা আওয়ামী লীগের শীর্ষ এক নেতা বলেন, ত্যাগি নেতা তারেক রহমান সভাপতি পদে না দাঁড়িয়ে সাম্পাদক পদে নির্বাচন করলে ভালো হত। বিষয়টি আমরা তাঁকে অবগতও করেছিলাম। কিন্তু তিনি মানেননি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •