শফিক আজাদ,উখিয়া :

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের নিয়ন্ত্রণে উখিয়া নিউ ফরেষ্ট অফিস সংলগ্ন স্থানে বসানো হয় একটি চেকপোষ্ট। উক্ত চেকপোষ্টে বসানোর পর থেকে সাধারণ যাত্রীদের বিভিন্ন ভাবে হয়রানী এবং রোহিঙ্গাদের নিকট থেকে টাকা নিয়ে অবাধে বিচরণের সুযোগ দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কুতুপালং থেকে এক জানাযার নামাজ শেষে কক্সবাজার জেলা পরিষদের সদস্য ও উখিয়া বঙ্গমাতা মহিলা কলেজের অধ্যাপক হুমায়ুন কবির চৌধুরী মন্টু সহ বেশ কয়েকজন গাড়ী যোগে উখিয়ার আসার পথে নিউ ফরেষ্ট অফিস সংলগ্ন চেকপোষ্টে পৌঁছলে গাড়ীটি গতিরোধ করে চেকপোষ্টে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা। এসময় তাদের নিকট থেকে জাতীয় পরিচয়পত্র দেখতে চান। গাড়ীতে থাকা জেলা পরিষদ সদস্য সহ অন্যান্যরা কার্ড বাসায় রেখে এসেছে বলে জানালে দায়িত্বরত পুলিশ তাদের সাথে দুর্ব্যবহার করে। ফলে উভয় পক্ষের বাক-বিতন্ডা লেগে যায়। তখন সাধারণ যাত্রী ও গাড়ী চালকের বিক্ষুব্ধ হয়ে সড়ক অবরোধ করে এবং চেকপোষ্ট ঘেরাও করে। এসময় দু’পাশ্বে শত শত যানবাহন আটকা পড়ে। পরবর্তীতে দীর্ঘ ১ ঘন্টা পর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নিকারুজ্জামান চৌধুরী, রাজাপালং ইউপি চেয়ারম্যান ও সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী এবং উখিয়া থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক মিন্টলের মধ্যস্থতায় সড়ক যোগাযোগ সচল হয়।
এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নিকারুজ্জামান চৌধুরী বলেন, সামান্য ভুল বুঝাবুঝির কারনে ঘটনাটি সৃষ্টি হলেও পরে উভয়পক্ষের মধ্যস্থতায় তা সমাধান করা হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •