প্রেস বিজ্ঞপ্তি :

কক্সবাজার জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভানেত্রী ও জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান কানিজ ফাতেমা মোস্তাক বলেছেন-গুণীজনরাই হচ্ছে সমাজের আলোর প্রদীপ। যে সমাজে ভালো কাজের প্রশংসা করা হয়না সে সমাজ গুণে ধরা। তাঁদের সম্মান করা না গেলে গুণীজনের সৃষ্টি হবে না। কারণ গুণীজনদের সম্মান করলে সমাজে গুণীজনের সৃষ্টি হয়। মানুষ সামাজিক জীব। যেখানে মানুষ কর্মের সুবাদে বসবাস করে স্বাভাবিক কারণেই সেখানকার লোকজনের সাথে তার আত্মার সম্পর্ক সৃষ্টি হয়ে যায়। তাই মানুষকে তার কর্মের মাধ্যমে মূল্যায়ন করতে হবে। তিনি শুক্রবার সকালে শহরের ঘোনারপাড়াস্থ সার্বজনীন শ্রীশ্রী কৃষ্ণানন্দধাম প্রাঙ্গনে সেবামূলক সংগঠন “সমন্বয়” আয়োজিত আলোচনা সভা, প্রীতি সমাবেশ ও গুণীজন সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন। সমন্বয়ের সভাপতি দুলাল ধরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রথম পর্বের এই অনুষ্ঠান ছাড়াও দ্বিতীয় পর্বের শিক্ষা বৃত্তি, সেলাই মেশিন বিতরণ ও বৃদ্ধভাতা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের সহযোগি অধ্যাপক ডাঃ বিনয় পাল। অনুষ্ঠানে উদ্বোধক ছিলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও দানশীল ব্যক্তিত্ব পলাশ ধর। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন সহকারী পুলিশ সুপার বাবুল চন্দ্র বণিক ও মূখ্য আলোচক ছিলেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যাপক অজিত দাশ। এতে গুণীজন হিসেবে সংবর্ধিত করা হয়েছে রামু খিজারী উচ্চ বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সাধন কুমার দে, সদর হাসপাতালের সাবেক তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ দুলাল চন্দ্র পাল, আর্দশ পিতা আবুল বশর চৌধুরী, আর্দশ মাতা মিনা রাণী পাল ও বিশিষ্ট সাংবাদিক মোহাম্মদ আলী জিন্নাতকে। সমন্বয়ের উপদেষ্টা মাস্টার মানিক চন্দ্র দে’র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত উক্ত অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্যে রাখেন-কক্সবাজার সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ শাহীন আবদুর রহমান চৌধুরী, কক্সবাজার পৌরসভার কাউন্সিলর ও অনুষ্ঠানের আহবায়ক রাজ বিহারী দাশ, গুণীজন নেপাল ভট্টাচার্য্য, সমন্বয়ের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক উত্তম কুমার ভৌমিক, শিক্ষাবিদ নিহার কান্তি চক্রবর্তী, সাংবাদিক বলরাম দাশ অনুপম প্রমুখ। এতে সমন্বয়ের আদর্শ ও কর্মকান্ড নিয়ে আলোচনা করেন সমন্বয়ের স্বপ্নদ্রষ্টা প্রণব দাশ। এবার ৫ জন গুণীজনকে সংবর্ধনা ছাড়াও ৭২ জন মেধাবী শিক্ষার্থীকে শিক্ষা বৃত্তি প্রদান, ২ জনকে সেলাই মেশিন বিতরণ ও ১০ জনকে বৃদ্ধ সহায়তা ভাতা প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতেই গীতাপাঠ করেন কক্সবাজার পৌরসভার উপ-সহকারী প্রকৌশলী টিটন দাশ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •