বিশেষ প্রতিবেদক:
কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের আওতাধীন ফুলছড়ি রেঞ্জর এক বনপ্রহরীকে মেরে হাত ভেঙে দিয়েছে বনখেকোরা। এ সময় লুট করা হয়েছে ৭ রাউন্ড কার্তুজসহ শটগান ও ব্যবহারের দুইটি মোবাইল সেট।
বৃহস্পতিবার (১৯ এপ্রিল) দিবাগত রাত ১১ টার দিকে জুমনগর এলাকায় ঘটনাটি ঘটে। আহত বনপ্রহরী আল আমিন (৩৫) কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।
আহতের সুত্রে জানা গেছে, রাতের বেলায় নিজ দায়িত্ব পালন করতে গেলে চিহ্নিত বনখেকো ও দখলবাজ মুজিবুর রহমান, নুরুল হুদা, এহেছান, বার্মাাইয়া আমিন, নুরুল আমিন, বেদার, ইসমাঈলসহ ১৫/২০ জনের একটি চিহ্নিত বনখেকো তার উপর হামলে পড়ে। হাতুড়ি, লোহার রড় ও লাঠিসোঠা দিয়ে মেরে শারা শরীর থেঁতলে দেয়। ব্যাপক মারধরে বনপ্রহরী আল আমিনের ডান হাতের কবজি ভেঙে গেছে। ফেটে দেয়া হয়েছে তার মাথা। খবর পেয়ে অন্যান্য সহকর্মীরা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। এ সময় আবদুল আজিজ (৩২) নামে আরো একজন বনপ্রহরী আহত হন। তবে, তার আঘাত গুরুতর নয়। ঘটনার নেপথ্যে স্থানীয় দুইজন জনপ্রতিনিধি জড়িত আছে বলে বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে।
ফুলছড়ি রেঞ্জ অফিসার ছৈয়দ আবু জাকারিয়া জানান, খবর পেয়ে মূমুর্ষ অবস্থায় বনপ্রহরী আল আমিনকে উদ্ধার করা হয়। লুট করা শটগান পরে জঙ্গলে রেখে গেলেও কার্তুজ ও মোবাইল ফেরত দেয়নি।
কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা হক মাহবুব মোর্শেদ জানান, সরকারী দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে এভাবে হামলার শিকার হওয়া খুবই দুঃখজনক। যারা ন্যাক্কারজনক ঘটনাটি ঘটিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এছাড়া আর কারা ইন্দন যুগিয়েছে তাদের বিরুদ্ধেও কঠোর পদক্ষেপ নেয়া হবে। সরকারী সম্পদ রক্ষায় কোন অপশক্তিকে ছাড় দেয়া হবেনা।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •