শাহেদ মিজান, সিবিএন

মহেশখালী উপজেলা প্রকৌশলী ছৈয়দ জাকির হোছাইনকে মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে হত্যার হুমদি দেয়ার অভিযোগে গিয়াস উদ্দিন আজম নামে এক যুবলীগ নেতাকে আটক করেছে পুলিশ। বুধবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলা পরিষদ ভবনের নিজ কার্যালয়েই পিস্তল ঠেকিয়ে হত্যার হুমকি দেয়ার পর সন্ধ্যা ৬টায় গিয়াস উদ্দীন আজমকে আটক করা হয়। তিনি উপজেলার বড় মহেশখালী ইউনিয়নের জাগিরাঘোনা এলাকার মৃত মো: হোছাইন এর পুত্র ও কেন্দ্রীয় যুবলীগের সদস্য।  বিষয়টি নিশ্চিত করেন মহেশখালী থানার ওসি (তদন্ত) একেএম শফিকুল আলম চৌধুরী।

গিয়াস উদ্দীন আজমকে আটক করে নিয়ে যাচ্ছে পুলিশ।

উপজেলা প্রকৌশলী ছৈয়দ জাকির হোছাইন অভিযোগ করেছেন, যুবলীগ নেতা গিয়াস উদ্দীন আজম একজন ঠিকাদার। প্রকল্পের কাজের টাকা নিয়ে মনোমালিন্যকে কেন্দ্র করে গিয়াস উদ্দীন আজম প্রকাশ্যে অবৈধ অস্ত্র নিয়ে উপজেলা প্রকৌশলী ছৈয়দ জাকির হোছাইনের কার্যালয়ে ঢুকেন। ঢুকেই তিনি কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে মাথায় অস্ত্র ঠেকিয়ে হত্যার হুমকি দেন। হুমকি দিয়ে তিনি ওই স্থান ত্যাগ করেন। তবে বিকালে দিকে উপজেলা পরিষদ কম্পাউন্ডে এসে স্বাভাবিক ভাবে বিচরণ করেন। সেখান  থেকেই তাকে আটক করেন পুলিশ।

খবর পাওয়া পর্যন্ত (রাত পৌনে ৮টা) উপজেলা নির্বাহী কার্যালয়ে রয়েছে আটক গিয়াস উদ্দীন আজম। সেখানে দু’পক্ষের মধ্যে বৈঠক হয়।

এ ব্যাপারে মহেশখালী থানার ওসি (তদন্ত) একেএম শফিকুল আলম চৌধুরী বলেন, ‘উপজেলা প্রকৌশলীর অভিযোগ পেয়ে গিয়াস উদ্দীন আজমকে আটক করা হয়। আটকের পর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কক্ষে বসে বিষয়টি যাচাই-বাছাই করা হয়। অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় গিয়াস উদ্দীন আজমের বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •