বান্দরবানে জলকেলির মাধ্যমে শেষ হলো সাংগ্রাই উৎসব

নুরুল কবির,বান্দরবান :

প্রতিবছরই ১৩ই এপ্রিল মঙ্গল শোভাযাত্রার মধ্যে দিয়ে শুরু হয় ৪দিনব্যাপী মারমাদের প্রাণের উৎসব ও সামাজিক অনুষ্ঠান সাংগ্রাই। এতে জলকেলি (পানি খেলা) ছাড়াও ঘিলা খেলা, নদীতে ফুল ভাসানো, বুদ্ধ মূর্তি স্নান, বয়োজ্যেষ্ঠ পূজাসহ বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। আদি আচার-অনুষ্ঠান, কৃষ্টি-সংস্কৃতি ঐতিহ্য ধারায় এবারও সাংগ্রাই উৎসব পালন করছেন পাহাড়ী মারমা সম্প্রদায়। আর ঐতিহ্যবাহী জলকেলি (পানি খেলা), বৌদ্ধমূর্তি স্নান, হাজারো মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলন, পিঠা তৈরিসহ আনন্দ-উল্লাসে মেতে উঠে পাহাড়ীরা। তারা একে অপরকে গায়ে পানি বর্ষণের মাধ্যমে বর্ষবরণ ও বিদায়ের পাশাপাশি পূর্বের সকল ভুলত্রুটি ও গ্লানী ধুয়ে মুছে দিয়েছে। আর মারমাদের আদি বৈচিত্রময় এ অনুষ্ঠান দেখতে বান্দরবানে ঢল নেমেছে দেশী-বিদেশী পর্যটকদের। জলকেলি (পানি খেলা) উৎসব, বৌদ্ধ বিহারগুলোতে সমবেত প্রার্থনা এবং দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনায় শেষ হয় পাহাড়িদের ৪দিন ব্যাপী এ সাংগ্রাই উৎসব।

আদিবাসী মারমা সম্প্রদায় সাংগ্রাই (বৈসাবী) উৎসবকে স্বাগত জানিয়ে ১৩এপ্রিল শুক্রবার বান্দরবান শহরে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার মধ্যদিয়ে এর আনুষ্ঠানিকতা শুরু করে। রবিবার (১৫এপ্রিল) বিকালে বান্দরবান রাজার মাঠে এবছরের সবচেয়ে বড় ঐতিহ্যবাহী জলকেলি উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। বান্দরবানে মারমা সম্প্রদায়ের সাথে এসময় জলকেলি উৎসবে অংশ নেয় পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর এমপি ছাড়াও জেলা প্রশাসক মোঃ আসলাম হোসেন, পুলিশ সুপার মোঃ জাকির হোসেন মজুমদার,পৌর মেয়র মোহাম্মদ ইসলাম বেবীসহ বিভিন্ন অফিসের কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন তরুণ-তরুণীরা। এর মাধ্যমে পাহাড়ী মারমা সম্প্রদায় যুগ যুগ ধরে একে অপরের গায়ে পানি বর্ষণের মাধ্যমে বর্ষবরণ ও বিদায়ের পাশাপাশি পূর্বের সকল ভুলত্রুটি ও গ্লানী ধুয়ে মুছে নেয়।

স্থানীয় নারী অং মে প্রু বলেন, সাংগ্রাই হচ্ছে আমাদের সামাজিক উৎসব। এ উৎসবে আমরা পানি খেলা খেলেছি। বুদ্ধ মূর্তিকে স্নান করিয়েছি। পুরো চারদিন খুব মজা করেছি আমরা এ উৎসবকে ঘিরে।

মারমা তরুনী এমেচিং মারমা বলেন, প্রথম দিন আমরা র‌্যালী মাধ্যমে এ উৎসবটি শুরু করেছি। পরে বয়ষ্কপূজা,বুদ্ধ মূর্তি স্নান ও মূল আর্কষণ পানি খেলা খেলেছি। আমরা বিশ্বাস করি এ পানি উৎসবের মাধ্যমে আমাদের আগের সকল পাপ ধুয়ে মুছে যায়।

উৎসব উৎযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক কো কো চিং মারমা বলেন, সাংগ্রাই এ বছর আমরা অনেক সুন্দর ভাবে আমাদের এ উৎসব উদযাপন করতে পেরেছি। এবারে আমাদের কোন সমস্যা হয়নি।

পাহাড়িরা বছরের শেষের ১দিন এবং নতুন বছরের প্রথম ৩দিন বৈচিত্রময় নানা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিদায়ী বছরের সকল পাপাচার ও গাল্লানী ধুয়ে মুছে দিতে ও নতুন বছরকে বরণ করে নিতে যুগ যুগ ধরে এ বৈসাবি উৎসব পালন করে আসছে।

সর্বশেষ সংবাদ

হিন্দু কলেজ ছাত্রীকে কোরান বিলির নির্দেশ ভারতের আদালতের

মিন্নির পাশে কেউ নেই! পুলিশ সুপারের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ

রুবেল মিয়ার মেজ ভাইয়ের মৃত্যুতে সদর ছাত্রদলের শোক প্রকাশ

হালদা দূষণের অপরাধে বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ রাখার নির্দেশ : জরিমানা ২০ লাখ টাকা

তরুণ সাংবাদিক হাফিজের শুভ জন্মদিন আজ

চকরিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান সাঈদী’র বরাদ্দ থেকে ১৫০০ পরিবারে চাউল বিতরণ

কলেজ আমার কাছে দ্বিতীয় পরিবার

রামু উপজেলা ছাত্রদল যুগ্ম আহবায়ক সানাউল্লাহ সেলিম কে শোকজ

No more than 2500 Easy Bikes in the city, Acting D.c Ashraf

An awaiting repatriation

25 elites relate to Yaba, SP Masud Hussain

উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণ নেই : সড়ক বিভাগের জমিতেই নান্দনিক ৪ লেন সড়ক

কক্সবাজারে এইচএসসিতে পাসের হার ৫৪.৩৯%

নিজেকে চেয়ারম্যান ঘোষণা করতে পারেন কাদের

ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করবেন যেভাবে

নিমিষেই এনআইডি যাচাই করবে ‘পরিচয়’

মনের শক্তিতে জিপিএ-৫ পেলো পটিয়ার সাইফুদ্দিন রাফি

হজে এবার ৮০০ কোটির ওপরে আয় করবে বিমান

ধর্মীয় নেতাদের উসকানিমূলক বক্তব্য নিয়ন্ত্রণের প্রস্তাব ডিসি সম্মেলনে

ওসি খায়েরের চ্যালেঞ্জ ছিল রোহিঙ্গা, মনসুরের চ্যালেঞ্জ ইয়াবা