মাদকাসক্ত তিন সন্তানের যন্ত্রণায় ঘরছাড়া বৃদ্ধ পিতা

ইমাম খাইর, সিবিএন:
‘আজ প্রায় এক মাস, ঘরে যেতে পারিনা। দোকানে থাকি, হোটেলে খাই। নেই গোসল-আসল। খেয়ে না খেয়ে কষ্টে বড় করা সন্তানেরা জ্বালাতন করছে। আমার পায়ে কোপ মেরেছে। শত শত মানুষের সামনে বেইজ্জত করেছে অনেকবার। ঘরে গেলে জবাই করে দেবে বলছে। ৩ ছেলে মো. ছলিম উল্লাহ, মো. মুছা, অলি উল্লাহ মাদকাসক্ত হয়ে পড়েছে। অনৈতিক কাজে বাঁধা দেয়ায় বেশ কয়েকবার মারধর করেছে। সহায় সম্পদ বিক্রি করে দিচ্ছে। তাদের কারণে আমি সমাজে মুখ দেখাতে পারছিনা।
কথাগুলো অঝোর নয়নে বলছিলেন ষাটোর্ধ ছৈয়দ হোছন। তিনি কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়নের মধ্যম নিদানিয়া এলাকার মৃত এরশাদ উল্লাহর ছেলে। ৯ এপ্রিল বিকালে সোনারপাড়া বাজারে একটি দোকানে বসে কথাগুলো যখন বলছিলেন, তখন চাদিদিকে অনেক মানুষ জড়ো হয়। তারা শুনে বিস্মিত, হতবাক। ছৈয়দ হোছনও মাঝে মধ্যে খুব আবেগ তাড়িত হয়ে যাচ্ছিলেন। ঢুঁকরে কেঁদে বর্ণনা দেন তার দুঃখভরা সব কাহিনী।
তিনি বলেন, আমি জীবনে খুব কষ্ট করেছি। বনের লাড়কি এনে বাজারে বিক্রি করেছি। মানুষের লেবারি করেছি। ২৮টি বছর প্রবাসে কাটিয়েছি। সংসারের প্রয়োজনে রাত দিন পরিশ্রম করেছি। নিজের সুখ কোন দিন দেখিনি। বেশ কিছু সম্পদেরও মালিক হয়েছি। সেই সম্পদ আজ আমার জন্য কাল হয়ে গেছে মনে করছি। সম্পদের লোভে নিজের জন্ম দেয়া সন্তানেরা আমাকে ঘর থেকে বের করে দিয়েছে।
পৃথিবীটা বড়ই নিষ্ঠুর মনে হচ্ছে। কেন জানিনা এমন নিয়তি। আমার মুখের দাড়ি-গোপ সাদা হয়ে গেছে। এই বয়সে পৌঁছে জন্মদাতা সন্তানরা মারধর করছে। মরার বয়সে আমাকে ঘরের বাইরে রাত কাটাতে হচ্ছে।
ছৈয়দ হোছনের প্রথম স্ত্রী মারা যায়। সেই ঘরে ৫ ছেলে সন্তান রয়েছে। দ্বিতীয় স্ত্রীর সংসারে আছে ১ মেয়ে ২ ছেলে। প্রথম স্ত্রীর ৫ সন্তানের মধ্যে ৩ জন মাদকাসক্ত। বাকী দুই ছেলে রহমত উল্লাহ ও ছালামত উল্লাহর বিরুদ্ধে অভিযোগ নেই।
ছৈয়দ হোছন আক্ষেপ করেন, ইয়াবার টাকা জোগাড় করতে ঘরে থাকা ৬টি গরু, ২০ কহন সুপারী বিক্রি করে ফেলেছে। দ্বিতীয় স্ত্রী তিন সন্তান আমিরা, সামির ও জমিরকে বাড়ীতে যেতে দিচ্ছেনা। তারাও আমার সাথে হোটেলে খেয়ে দোকানে থাকে। মেয়ে আমিরা স্কুলে গেলেও পড়ালেখা করার সুযোগ পায়না। প্রতিনিয়ত পারিবারিক টেনশনে বেড়ে উঠেছে তারা। তিন সন্তানের ভবিষ্যৎ নিয়ে আমি উদ্বিগ্ন।
এদিকে তিন সন্তান মোহাম্মদ মুছা, অলি উল্লাহ ও ছলিম উল্লাহর বিরুদ্ধে উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন বাবা ছৈয়দ হোছন। গত ২ এপ্রিল দেয়া অভিযোগে তিনি নগদ ৪ লাখ টাকা, ২ ভরি স্বর্ণালংকার ও ২০ কহন সুপারী লুটের অভিযোগ আনেন। বাঁধা দিতে গিয়ে তাকে এলোপাতাড়ী মারধর, টানা হেঁছড়া করে ঘরে ঢুকিয়ে তালাবদ্ধ করে রাখা হয় বলে উল্লেখ করেন। এর আগে কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা করেন। মৌজদারী মামলা নং-১৮৮/২০১৬। এই মামলায় দুই ছেলে ছলিম উল্লাহ ও মোহাম্মদ মুছার বিরুদ্ধে মাদক, মানবপাচার, সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ও অস্ত্র ব্যবসার অভিযোগ আনেন পিতা ছৈয়দ হোছন।
এ প্রসঙ্গে উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নিকারুজ্জামান বলেন, লিখিত অভিযোগটি উখিয়া থানার ওসিকে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তদন্তপূর্বক তিনি ব্যবস্থা নেবেন। ওসি মো. আবুল খায়ের বিষয়টি গুরুত্বের সাথে তদন্ত করা হচ্ছে বলে জানান। জালিয়াপালং ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আমিন চৌধুরী বলেন, ছৈয়দ হোছনের অভিযোগ সত্য। নিজের সন্তানেরা তাকে খুব যন্ত্রণা দিচ্ছে। আমাদের সাধ্য মতো সমাধানের চেষ্টা করে যাচ্ছি।

 

সর্বশেষ সংবাদ

সেন্টমার্টিন বি এন স্কুলে কলেজ শাখার পাঠদানের অনুমোদন

৩০ এপ্রিলের মধ্যে শপথ না নিলে বিএনপি এমপিদের আসন শূন্য

ঈদগাঁওতে ঘন ঘন দিবারাত্রী লোডশেডিং

রাঙামাটি থেকে গ্রেফতার হলো নুসরাত হত্যা মামলার অন্যতম পরিকল্পনাকারি রানা

অসহায় প্রতিবন্ধী পরিবারের আর্তনাদে আকাশ বাতাস ভারী হয়ে উঠেছে

সামিটের এলএনজির জাহাজ এখন মহেশখালীতে

শনিবার রাত থেকে ইন্টারনেটের গতি ধীর হতে পারে

আজ পবিত্র শবে বরাত

ঈদের পর সরকারকে ১০ নম্বর হুঁশিয়ারি!

এবার খুরুশ্কুল আশ্রয়ণ প্রকল্পের সড়কের জমিতে ভবন নির্মাণ

মাতামুহুরী ব্রীজে ফের দেবে গেছে,  দূর্ঘটনার আশঙ্কা

চকরিয়ায় মাংসের মূল্য নির্ধারণ করলেন প্রশাসন

ভালুকিয়া যুব কল্যাণ সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক কাশেমের অকাল মৃত্যু

সব ধর্মের অনুসারীদের নিজ ধর্ম পালনের সমান সুযোগ নিশ্চিত করেছে সরকার-ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

শহরের বায়তুশ শরফ এলাকা থেকে ৪ দিন ধরে কন্যা শিশু নিখোঁজ

সীতাকুণ্ডে কক্সবাজারের ‘ইয়াবাপ্রেমী’ দুই প্রেমিক যুগল আটক,২০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার

‘ধারালো দা’সহ আটক হামলাকারীর বিরুদ্ধে মামলা নেয়নি পুলিশ’

স্বপ্নজালের জরুরী সভা অনুষ্ঠিত

জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে মানববন্ধন

লামায় প্রান্তিক কৃষকের তামাক লুটের অভিযোগ, মারধরে আহত ৭