সিভিল সার্জন অফিসের বারান্দায় পড়ে আছে ফাইলেরিয়া রোগের ৩০ লক্ষ ট্যাবলেট

আব্দুল আলীম নোবেল:
কক্সবাজার সিভিল সার্জন কার্যালয়ে ফাইলেরিয়া রোগের ৩০ লক্ষ ট্যাবলেট নষ্টের পথে। যে ওষুধ গুলোর মেয়াদ আছে প্রায় দেড় মাস। কক্সবাজার সিভিল সার্জন অফিসের বারান্দায় খোলা অবস্থায় পড়ে আছে দীর্ঘদিন ধরে। গত এক মাস আগে রংপুর সিভিল সার্জন অফিস থেকে কক্সবাজার সিভিল সার্জন অফিসে পাঠানো হয়েছে বিশাল ওষুধের এই চালানটি। অথচ কক্সবাজার সিভিল সার্জন অফিস থেকে এই ওষুধের কোন চাহিদা পত্র পাঠানো হয়নি।
কি কারণে, কি উদ্দেশ্যে, কোন স্বার্থ হাসিলের জন্য এই বিশাল সংখ্যাক ফাইলেরিয়ার ওষুধ এখানে পঠানো হয়েছে তা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন বলে মনে করছেন সচেতন মহল। এই এলাকায় এই রোগের কোন রুগি নাই বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞ ডাক্তাররা। এত গুলো ফাইলেরিয়া ওষুধ রাখতে রীতিমত হিমসিম খাচ্ছে ষ্টোর কিপারও। অপর দিকে ওধুষ গুলো কি করবে খোদ সিভিল সার্জনও কোন সিন্ধান্ত নিতে পারেনি এখনও। মেয়াদ শেষ হওয়া ওষুধ গুলো নিয়ে বেকায়দায় কর্তৃপক্ষ। প্রায় কোটি টাকার সরকারী সম্পদ নষ্ট হলেও যেন দেখার কেউ নেই।
কক্সবাজার সিভিল সার্জন অফিসের ষ্টোর কিপার মোঃ শাহনেওয়াজ খান জানান, কোন প্রকার চাহিদা পত্র ছাড়া ৩০ লক্ষ ফাইলেরিয়া ট্যাবলেট তার অফিসে পাঠানো হয়েছে। তবে এই বিষয়ে তিনি কিছুই জানে না, কেন পঠানো হয়েছে, কার জন্য পঠানো হয়েছে। ওষুধের প্যাকেটের গায়ে লেখা রয়েছে ওষুধ গুলো ২০১৬ সালের জানুয়ারী উৎপাদন করা হয়েছে। মেয়াদ উত্তীর্ণ হবে ২০১৮ সালের মে মাসে এই তথ্যটি নিশ্চিত করেন তিনি।
কক্সবাজার সিভিল সার্জন ডা: মোঃ আব্দু সালাম বলেন, ওষুধ গুলোর ব্যপারে এখনও আমি কোন সিন্ধান্ত নিতে পারেনি। ওই ওষুধের মেয়াদও প্রায় শেষের পথে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক তরফ থেকে ওষুধ গুলো রংপুর সিভিল সার্জন অফিস থেকে পাঠানো হয়েছে কক্সবাজার সিভিল সার্জন অফিসে।
কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের তত্ত্ববধায়ক ডা: পুচনু জানান, ফাইলেরিয়া বা গোদ হচ্ছে এমন এক সংক্রামক রোগ যা এক প্রকার পরজীবি জীবাণু( প্যারাসাইট) দিয়ে হয় এবং এতে শরীরের লসিকা ( এক প্রকার বর্ণহীণ রস) পরিসঞ্চলন ব্যবস্থা আক্রান্ত হয়। এ রোগে বিষেশ এক ধরনের (কিউলেক্স) মশার মাধ্যমে ছড়ায়। আক্রান্ত ব্যক্তির শরীর থেকে মশা প্রথমে রক্তের সংগে এই রোগের জীবাণু নিজের দেহে নিয়ে নেয় ও পরে কামড়ানোর মাধ্যমে সুস্থ লোকের দেহে ছড়ায়। দেশের উত্তরাঞ্চালে এই রোগের প্রাদুর্ভাব সব চাইতে বেশি। কক্সবাজারে এই রোগের তেমন কোন আলমত পাওয়া যায়নি।
কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন জানান, বিষয়টি অবগত নয় এখনও তিনি, সংশ্লিষ্টদের সাথে আলাপ করে সিন্ধান্ত নেওয়া হবে। সূত্রে জানাগেছে, রোহিঙ্গাদের জন্য এই ওষুধ পাঠানো হয়েছে। তবে এই অফিসের কেউ সেটি স্বাীকার করেনি।

সর্বশেষ সংবাদ

শ্রীলঙ্কায় ধারাবাহিক বিস্ফোরণে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২১৫

কলেজে ভর্তি কার্যক্রম শুরু ১২ মে

বলী খেলার নামে জুয়ার আসর বসাতে মরিয়া প্রভাবশালী মহল!

পেকুয়ায় ৪’শ কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যের বীজ ও সার বিতরণ

শ্যালিকাকে ঢিল ছোড়ার প্রতিবাদ করায় বোন জামাইয়ের বাড়িতে বখাটের হামলা

পটিয়ার কেলিশহরে আন্তঃধর্মীয় সম্মেলন

হালিশহরে অজ্ঞাত বস্তাবন্দী লাশ উদ্ধার

মাহফুজউল্লাহ মারা যাননি, জানাল বিএনপি

সৌদি আরবেও ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলা : চার হামলাকারী নিহত

রমজানের পবিত্রতা রক্ষায় অসামাজিক কার্যকলাপ প্রতিরোধ কমিটির ৮ দফা দাবি

‘মিথ্যা’ মামলায় খরুলিয়ার মা-মেয়ে কারাগারে:  এএসপির ঘটনাস্থল পরিদর্শন

সাতকানিয়ায় ৪ হাজার পিস ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার ২

নতুন কমিটি পেয়ে সৌদিআরব প্রবাসী কক্সবাজার জেলা শ্রমিক দলের মিষ্টি বিতরণ

শ্রীলঙ্কায় ছয় বিস্ফোরণে নিহত ১৫৬

আমরা বর্বর, আমরা জ্ঞানপাপী!!

ধর্ম প্র‌তিমন্ত্রীর রে‌ডি‌য়েন্ট ফিস ওয়ার্ল্ড প‌রিদর্শন

টেকনাফে র‍্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নাইক্ষ্যংছড়ির মাদক কারবারী নিহত

শ্রীলঙ্কায় ছয়টি ভয়াবহ বিস্ফোরণে নিহত ৪২, আহত ২৮০

গোশতের বাজারে মগের মুল্লুক!

কোচিং করলে মেলে অগ্রিম প্রশ্ন!