কক্সবাজারে হত্যা মামলার আসামী ধরতে আইও’র অনীহা

 বিশেষ প্রতিবেদক:
হত্যা মামলার আসামীকে আটক করে মামলার আইওকে খবর দিলো বাদি পক্ষ। কিন্তু আসামী ধরে আনতে অনিহা দেখালো মামলার আইও। ২ বিভিন্ন নাটক ও ঘন্টা অপেক্ষার পরে খোদ মামলার বাদি ও নিহতের স্বজনেরা ঐ আসামীকে ধরে থানায় নিয়ে এসে পুলিশের হাতে তুলে দিলো। ঘটনাটি ঘটেছে কক্সবাজার সদর মডেল থানায়।
জানা গেছে, কক্সবাজারের কলাতলি মোহাম্মদিয় গেস্ট হাউসে নির্যাতন করে গাড়ি জামাল ড্রাইভার হত্যা করা হয়। বাদি পক্ষ ও নিহতের স্বজনেরা মঙ্গরবার দুপুরে মামলার অন্যতম আসামী ইউনুসকে পুলিশ লাইন এলাকায় ধরেফেলে। মামলার বাদির বড় ভাই বদি আলম ফোনে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কক্সবাজার সদর থানার এসআই মনিরকে খবর দেয়। এসআই মনির আসামী ধরে আনতে অপারগতা প্রকাশ করে ফোনের লাইন কেটে দেয়। এর পরে নিহতের স্বজনেরা একাধিকবার সদর থানায় যোগাযোগ করলেও ডিউটি অফিসার তাদের এস আই মনিরের সাথে কথা বলতে বলে। ২ ঘন্টা পুলিশের নানান টালবাহানার পরে নিহতের স্বজনেরা ঐ আসামীকে থানায় নিয়ে আসে।
তবে মামলার আইও এস আই মনির ঐ আসামী প্রকৃত আসামী নয় বলে ছেড়ে দিতে বাদি পক্ষেকে হুমকি দিচ্ছে। কামাল উদ্দিন প্রকাশ জামাল ড্রাইভার হত্যারর পর থেকেই আসামীদের গ্রেফতারে এসআই মনিরের রহস্যজনক আচরন করে আসছে। তদন্তের শুরু থেকেই এমন অভিযোগ করে আসছে মামলার বাদি ও নিহত জামালের স্বজনেরা। আসামী পক্ষ থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়ে এস আই মনির আসামীদের পক্ষে নিয়েছে বলে অভিযোগ বাদি পক্ষের। এনিয়ে এ হত্যাকান্ডের সঠিক তদন্ত নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে।
আসামী ছেড়ে দিতে বাদিকে হুমকি ও অসামী ধরতে অনিহার অভিযোগ অস্বীকার করে মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা কক্সবাজার সদর থানার এসআই মনির হোসেন জানান, আমরা আসলে খুব ব্যস্ত থাকি। ব্যস্তাতার কারনেই আসামী ধরতে যেতে পারিনি। মামলার তদন্ত কাজ সঠিকভাবে চলছে। গ্রেফতার হওয়া আসামীদের রিমান্ড চাওয়া হলে আদালত জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দেন। তদন্তের আসামীর দেয়া তথ্য প্রকাশ করা যাচ্ছে। দ্রুত এই মামলার তদন্ত শেষ হবে বলেও জানান এই কর্মকর্তা।
এই বিষয়ে জানতে চাইলে কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ফরিদ উদ্দিন খন্দকারের মুঠোফোনে একাধিকবার চেষ্টা করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
উল্লেখ্য যে, গত ১৫ ফেব্রুয়ারী নিজ বাসা থেকে ডেকে নিয়ে জামালকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। এরপর হত্যাকান্ডের শিকার জামালের স্ত্রী নুর নাহার বেগম বাদী হয়ে ১৭ ফেব্রুয়ারী কক্সবাজার সদর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় চারজনকে আসামী করা হয়। মামলার প্রধান আসামী রফিকুল ইসলাম বাবুলকে পুলিশ গ্রেফতার করে পুলিশ। পরবর্তী মঙ্গলবার মামলার বাদীর ভাই নিজেই আসামীকে ধরে থানায় নিয়ে যান।

সর্বশেষ সংবাদ

বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতায় উদ্বিগ্ন, সুচিকিৎসার দাবি ১০১ চিকিৎসকের

ডাকসুর দায়িত্ব নিলেন নুর-রাব্বানীরা

সুবর্ণচরের সেই রুহুল আমিনের জামিন বাতিল

টেকনাফ সমিতি-ইউএই’র বার্ষিক বনভোজন’১৯ সম্পন্ন

কাদের সম্পূর্ণ সুস্থ, কমানো হচ্ছে ঘুমের ওষুধ

কক্সবাজারে ৫ উপজেলার ভোট কাল, প্রস্তুত প্রশাসন

উখিয়ার বড়বিলের আমির হামজা আর নেই : বিকেল ৫টায় জানাজা

ভেনেজুয়েলার কাছে ৩-১ গোলে হেরেছে আর্জেন্টিনা

নাফ ট্যুরিজম পার্কে হচ্ছে ক্যাবলকার

‘মসজিদে সন্ত্রাসী হামলাকারীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হবে’

রাতে ঘুম হয় না টেকনাফ থানার ওসি’র

কক্সবাজার জেলায় ১৯৫টি গণহত্যা

আজ ডাকসুর দায়িত্ব নেবেন নুর-রাব্বানীরা

কো-চেয়ারম্যান পদ থেকে জিএম কাদেরকে অব্যাহতি

জালালাবাদে কাইয়ুম উদ্দিনের ব্যাপক গণসংযোগ ও পথসভা

বান্দরবানে জাতীয়করণ না হওয়ায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষার্থীরা বিপাকে 

মক্কা প্রবাসী ঐক্য কল্যাণ পরিষদের ইউনিয়ন ভিত্তিক ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল

কক্সবাজার পরিবেশ, মানবাধিকার ও উন্নয়ন ফোরামের বিশ্ব পানি দিবস উদযাপন

‘আনারস’ প্রতীক নিয়ে সেলিম আকবরের বিভিন্ন এলাকায় ব্যাপক গনসংযোগ

সদর উপজেলাকে মডেল উপজেলা করার সুযোগ দিন : কায়সারুল হক জুয়েল