‘রাখাইনে বিশৃঙ্খলা তৈরির পেছনেও ফেসবুক’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
মিয়ানমারের উত্তরাঞ্চলের রাখাইনে গত বছরের শেষের দিকে ‘বিশৃঙ্খলা’ তৈরির জন্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুককে দায়ী করেছেন বিশেষজ্ঞরা। রোহিঙ্গা সঙ্কটের শুরুতেই দেশটিতে ব্যাপকভাবে হিংসাত্মক ও ঘৃণামূলক বার্তা ছড়ালেও ফেসবুক কোনো ব্যবস্থা নেয়নি বলে এক বিশ্লেষণে ওঠে এসেছে।

মিয়ানমারে বিদ্বেষমূলক বার্তা ছড়াতে ফেসবুক মূল ভূমিকা পালন করেছে বলে অভিযোগ উঠার পর বিশ্লেষকরা তাদের দাবির স্বপক্ষে তথ্য-প্রমাণ তুলে ধরেছেন।

গত বছরের ২৫ আগস্ট রাখাইনে দেশটির সীমান্তরক্ষী বাহিনীর ওপর রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের হামলার জেরে ব্যাপক সামরিক অভিযানের মুখে প্রায় সাড়ে ছয় লাখ রোহিঙ্গা মুসলিম বাংলাদেশে পালিয়েছে।

ডিজিটাল গবেষক ও বিশ্লেষক রেমন্ড সেরাটো মিয়ানমারের উগ্রপন্থী জাতীয়তাবাদী বৌদ্ধ গোষ্ঠী মা বা থা গ্রুপের সমর্থকদের প্রায় ১৫ হাজার ফেসবুক পোস্ট বিশ্লেষণ করেছেন। রাখাইনের সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ার এক বছরের বেশি সময় আগে মা বা থা গ্রুপের সদস্যরা প্রথম রোহিঙ্গাবিরোধী ফেসবুক পোস্ট দেয় ২০১৬ সালের জুনে।

রোহিঙ্গাবিরোধী পোস্ট দেয়ার মাত্রা বৃদ্ধি পায় পরের বছর। ২০১৭ সালের ২৪ ও ২৫ আগস্ট চূড়ান্ত মাত্রায় বিদ্বেষ ছড়ায়। ওইদিন রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের সংগঠন আরসার সদস্যরা সরকারি বাহিনীর ওপর হামলা চালায়। এই হামলার পর দেশটির সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাবিরোধী ‘ক্লিয়ারেন্স অপারেশন’ শুরু করে। যার ফলে মিয়ানমারের সীমান্ত পাড়ি দিয়েছে লাখ লাখ রোহিঙ্গা।

সেরাটোর বিশ্লেষণে দেখা যায়, রোহিঙ্গাবিরোধী কট্টরপন্থী বৌদ্ধ জাতীয়তাবাদী গোষ্ঠী মা বা থার ৫৫ হাজার সদস্য রয়েছে। ওই সময় এই গোষ্ঠীর সদস্যদের ফেসবুক পোস্ট ২০০ শতাংশ বৃদ্ধি পায়।

সেরাটো বলেন, ‘মিয়ানমার সংঘাতে সমাজের বিশেষ একটি গোষ্ঠীকে স্পষ্টভাবে সহায়তা করেছে ফেসবুক।

তিনি বলেন, ‘যদিও অতীতে ভুল তথ্য এবং ঘৃণাত্মক বক্তব্য-বিবৃতি ছড়াতে ফেসবুককে ব্যবহার করা হয়। তবে (আরসার) ওই হামলার পর এটি আরো ব্যাপক আকারে ব্যবহৃত হয়।’

ফেসবুকের বিরুদ্ধে মিয়ানমারে সহিংসতা ছড়ানোর এই অভিযোগ এমন এক সময় এল যখন সামাজিক যোগাযোগের জনপ্রিয় এই মাধ্যমটির বিরুদ্ধে ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য ফাঁস, ভুয়া খবর ও ঘৃণাত্মক বার্তা ছড়ানোর জেরে টালমাটাল হয়ে উঠেছে।

মিয়ানমারে ঘৃণাত্মক বার্তা নিয়ে দুই বছর ধরে গবেষণা করেছেন ইনস্টিটিউট অব ওয়ার অ্যান্ড পিসের বিশ্লেষক অ্যালান ডেভিস। তিনি বলেন, ‘আগস্ট মাসের আগে তিনি ফেসবুকে যেসব পোস্ট দেখেছেন সেসবের অধিকাংশই ছিল পরিকল্পিত, সংগঠিত ও ঘৃণাত্মক ও সামরিকী ধাঁচের।’

সূত্র : দ্য গার্ডিয়ান।

সর্বশেষ সংবাদ

রামু উপজেলা ছাত্রদলের মতবিনিময় সভা

শফিক চেয়ারম্যানের কারামুক্তি কামনায় মসজিদে মসজিদে দোয়া

নুসরাত হত্যা: সোনাগাজী উপজেলা আ. লীগ সভাপতি আটক

চকরিয়া উপকূলীয় এলাকার শীর্ষ মাদক বিক্রেতা জিয়াবুল ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার

রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে বাংলাদেশকে চীনের সহযোগিতার আশ্বাস : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

শবেবরাত ঐতিহাসিক রজনী : যখন আসমানের দরজা সমুহ খুলে দেওয়া হয়!

নষ্টখাদ্য ক্ষতি করছে পৃথিবীকে!

কক্সবাজার সদর থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার-৯

লামায় পিকআপ দূর্ঘটনায় শিশু নিহত, নারীসহ আহত- ৪

আবারো বিয়ে করছেন শ্রাবন্তী

বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সাথে লামা বৌদ্ধ সমিতির শুভেচ্ছা বিনিময়

প্রচন্ড গরম, পুড়ছে মানুষ বাড়ছে রোগি

হতাশ হবেন না, বিএনপি নিঃশেষ হয়ে যায়নি : ফখরুল

লোহাগাড়ায় দুই দিন ব্যাপী জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ সমাপ্ত

দশ টাকার টিকিট কেটে চোখ দেখালেন প্রধানমন্ত্রী

গৃহযুদ্ধকবলিত লিবিয়ায় ৫০০ বাংলাদেশি আটকে পড়ার আশঙ্কা

সাগরে সার্ফিং শিখতে গিয়ে ভেসে যাওয়া থেকে তরুণ উদ্ধার

‘খালেদা জিয়া-তৃতীয় বিশ্বের কণ্ঠস্বর’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন

চৌফলদন্ডী রবিজিয়া তাহফিজুল কোরআন হেফজখানার দস্তারবন্দি

কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ঠিকাদারের হাতে তত্ত্বাবধায়ক লাঞ্ছিত