গুলফরাজ-হাশেম ফাউন্ডেশনের ২০তম বর্ষপূর্তিতে টেকনাফে ২১২৩জন রোগিকে বিনামূল্যে স্বাস্থ্য সেবা

সংবাদদাতা:

‘শিক্ষার আলো জ¦ালো-স্বাস্থ্য রাখো ভালো’ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বিভিন্ন ধরনের রোগীকে ফ্রি-চিকিৎসা সেবাসহ বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে কক্সবাজারের টেকনাফের সেবামূলক প্রতিষ্ঠান হ্নীলা গুলফরাজ-হাশেম ফাউন্ডেশনের ২০তম বর্ষপূর্তি পালিত হয়েছে।

শুক্রবার সকাল ৮টায় উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের ফুলের ডেইলে ফাউন্ডেশন মাঠে ফ্রি-চিকিৎসা, শিক্ষার্থীদের বৃত্তি, সনদ প্রদান, গুণীজন সম্মাননা পদক এবং বেলা ১১টায় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ফাউন্ডেশনের সভাপতি শফিক আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. শিরিন আকতার, বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক খুরশিদ জামিল চৌধুরী, চট্টগ্রাম ইন্টার ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজের অধ্যাপক চিকিৎসক মো. আমির হোসেন, চট্টগ্রাম মা ও শিশু মেডিকেল কলেজের কিডনী রোগ বিভাগে অধ্যাপক এম এ কাশেম, চট্টগ্রাম চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. ফরিদ উদ্দিন আহমদ, বিআইটিআইডি অবসর প্রাপ্ত পরিচালক চিকিৎসক মো. আবু তৈয়ব, টেকনাফ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রফিক উদ্দিন, হ্নীলা ইউপির চেয়ারম্যান এইচকে আনোয়ার, রাজনৈতিক ও সামাজিক ব্যক্তিত্ব আদিল উদ্দিন চৌধুরী প্রমূখ। সভা পরিচালনা করেন ফাউন্ডেশনের চট্টগ্রামের সদস্য বখতিয়ার উদ্দিন। অনুষ্ঠানের শুরুতে ফাউন্ডেশন প্রতিষ্টাতা, সাধারণ স¤পাদক এবং হ্নদরোগ বিশেযজ্ঞ জামাল আহমদ স্বাগত বক্তব্য রাখেন।চিকিৎসা ক্যাম্পে মেডিসিন, ডায়াবেটিস, হ্নদ রোগ, নাক-কান-গলা, চর্ম, স্ত্রী ও সার্জারী বিভাগের ২ হাজার ১২৩জন রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠান শেষে ৯ গুণীজনকে সম্মাননা পদক, ৫১ শিক্ষার্থীকে বৃত্তির অর্থ প্রদান, ১১জন গরীর মেধাবী শিক্ষার্থী বৃক্তি ও আর্থিক অনুদান ও ৫১জন শিক্ষার্থীকে শিক্ষা উপকরণ তুলে দেওয়ার হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে ফাউন্ডেশন প্রতিষ্টাতা, সাধারণ স¤পাদক এবং হ্নদ রোগ বিশেযজ্ঞ জামাল আহমদ বলেন, ১৯৯৮সালের ৫ মার্চ মা-বাবার নামে এ ফাউন্ডেশনটি গড়ে তোলা হয়। অবহেলিত এ জনপথের সাধারণ মানুষের কল্যাণের জন্য কাজ করা। সুস্বাস্থ্য এবং শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দেওয়া। মানুষের মৌলিক চাহিদার মধ্যে স্বাস্থ্য ও শিক্ষা ছাড়া একজন মানুষ এগিয়ে যেতে পারে না, এগিয়ে যেতে পারে না একটি সমাজ ও দেশ।

প্রধান অতিথি ড. শিরিন আকতার বলেন, দক্ষিণ চট্টগ্রামের এটি একটি নজিরবিহীন ঘটনা। কারণ, আগে মানুষ বিনা চিকিৎসায় মারা যেত। সঠিক ও সময় মতো চিকিৎসা সেবা পেত না। এ অঞ্চলের মেয়েদের শিশু থেকে কিশোরী হতে না হতেই বিয়ের পিঁড়িতে বসতে হতো। বর্তমানে সেই যুগ নেই। শিক্ষা ও সামাজিক ব্যবস্থা উন্নত হওয়ায় এ অঞ্চলে এ রকম একটি প্রতিষ্ঠান আলোর মুখ দেখতে পেল। যা উন্নয়নশীল প্রতিষ্ঠানের একটি মডেল স্বরূপ।

সর্বশেষ সংবাদ

ঈদগাঁওতে জমছে নিবার্চনী লড়াই : ভোট ব্যাংকে আঘাত হানতে মরিয়া প্রার্থীরা

৪০ হাজার ‘নিষিদ্ধ’ সিগারেটসহ দুই রোহিঙ্গা আটক

নিউজিল্যান্ডের প্রধান পত্রিকাগুলোর প্রথম পাতায় ‘সালাম’

নিউজিল্যান্ডে জুমার নামাজ সরাসরি সম্প্রচার, বিশ্বজুড়ে তোলপাড়

২৩ মার্চ বিশ্ব আবহাওয়া দিবস : কক্সবাজারে বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ

আচরণবিধি লঙ্ঘন, মহেশখালীতে দুই প্রার্থীকে জরিমানা

কক্সবাজারে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৩

কক্সবাজারে সাংবাদিকের মোটর সাইকেল চুরি

সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ ও জবর-দখলমুক্ত নিরাপদ পেকুয়া গড়তে চান আবুল কাশেম

ভাসানচরে পুনর্বাসনকে স্বাগত জানালো ইউএনএইচসিআর

নিরাপদ ও পরিচ্ছন্ন শহর গড়তে বই মার্কাকে বিজয়ী করুন: রশিদ মিয়া

শেখ হাসিনার মনোনিত প্রার্থী জুয়েলকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করুন : মেয়র মুজিবুর রহমান

বঙ্গবন্ধু প্রেমিকেরা কোনদিন নৌকার সাথে বেঈমানী করতে পারেনা

কক্সবাজার শহরে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় সংবাদকর্মীর উপর হামলা

উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক কোরক বিদ্যাপীঠের প্রধান শিক্ষক নুরুল আখের

উপজেলা পর্যায়ে আবারও শ্রেষ্ঠ শিক্ষক অধ্যাপক পদ্মলোচন বড়ুয়া

কক্সবাজার মার্কেট মালিক ফোরাম গঠিত

লাকড়ি চুরির আপবাদে দুই শিশুকে গাছে বেঁধে নির্যাতন

কক্সবাজারের ৬ টি উপজেলায় রোববার সাধারণ ছুটি ঘোষণা

নবীন আইনজীবীদের রাষ্ট্রীয়ভাবে ন্যূনতম ৫ বছর ভাতা দেয়া উচিৎ : ব্যারিস্টার খোকন