পাহাড়ে নারীদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়াচ্ছে লামা আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়

মো. নুরুল করিম আরমান, লামা

বান্দরবানের লামা উপজেলায় একমাত্র নারী শিক্ষা কেন্দ্র আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। দীর্ঘ দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় নারী শিক্ষায় আলো ছড়াচ্ছে এ বিদ্যালয়। শুধু পড়া লেখাই নয়; খেলাধূলা, সাংস্কৃতিক, সাহিত্য চর্চা, বাহ্যিক জ্ঞানসহ শিক্ষামূলক নানা কর্মকান্ডের মাধ্যমেও এ বিদ্যালয়ের অবস্থান শীর্ষে। পৌর শহরের প্রাণ কেন্দ্রেই বিদ্যালয়টির অবস্থান। কোমলমতি ছাত্রিদের লেখাপড়ায় অত্যন্ত নিরিবিলি ও মনোরম পরিবেশ রয়েছে বিদ্যালয়টিতে। এলাকার নারী শিক্ষাকে সামনে এগিয়ে নিতে চলেছে এ বিদ্যালয়। তবে এক্ষেত্রে বিদ্যালয়ে ছাত্রী হোস্টেল না থাকায় দূর-দূরান্তের ছাত্রীদের ভোগান্তির কথা চিন্তা করে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর এমপি একটি হোস্টেল নির্মাণের আশ^াস দেন। শিঘ্রই এ হোস্টেল নির্মাণ কাজ শুরু হবে জানা গেছে। অপরদিকে এ বিদ্যালয়টি জাতীয়করণ করা হলে অবহেলিত পাহাড়ি এলাকার নারী শিক্ষা আরও অগ্রগতি হবে বলে মনে করছেন সচেতন মহল। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি নেতৃবৃন্দ, শিক্ষক, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়টিকে জাতীয়করণ করার জোর দাবী জানান।

বিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, ১৯৯১ সালে তৎকালীন নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ইকবাল বাহার উপজেলায় নারী শিক্ষা প্রসারে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেন। তাঁর এ উদ্যোগে এতদাঞ্চলে নারী শিক্ষার গুরুত্ব উপলব্দি করে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মো. আলী মিয়া, পার্বত্য জেলা পরিষদের সাবেক সদস্য মোহাম্মদ ইউনুছ, এডভোকেট মোজাম্মেল হক, আবদুর রশিদ ও আবু মুছাসহ সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল মালেক। তাঁদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বিদ্যালয়টি স্থাপিত হয়। তখন মাত্র ১৮জন ছাত্রী নিয়ে এ বিদ্যালয়টির যাত্রা শুরু করে। বর্তমানে এতে ছাত্রীর সংখ্যা ৬৩২জন। তম্মধ্যে বান্দরবান সদর, রোয়াংছড়ি, রুমা ও থানছি উপজেলার ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি সম্প্রদায়ের ৪৫জন গরীব ছাত্রী এ বিদ্যালয়ে পড়ালেখা করছে। বিদ্যালয়ে ১৫ জন শিক্ষক ও ৬ জন বিভিন্ন স্তরের কর্মচারী কর্মরত আছেন। রয়েছে ৩ একর জমিও। এখানে কম্পিউটার ল্যাব, বিজ্ঞানারগার, মাল্টিমিডিয়া ক্লাশ রুম ও লাইব্রেরী রয়েছে। সহ-পাঠ্যক্রমিক কার্যক্রম যেমন- বিতর্ক, বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক ও নানা শিক্ষামূলক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় নিয়মিত এ বিদ্যালয়ে। ১৯৯৪ সালের ১ জানুয়ারী এমপিও ভুক্ত হয়ে নিম্ম মাধ্যমিক ও একই সালের ১ জুলাই মাধ্যমিকের অনুমতি পায় বিদ্যালয়টি। বর্তমানে ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত বিদ্যালয়টির ক্লাস কার্যক্রম চলে। প্রতিষ্ঠাকালীন থেকে যাঁরা বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করেছেন তাঁদের অনেকেই জীবিত নেই। বর্তমানে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ ইসমাইল বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। মহি উদ্দিন সাঈদী, ফরহাদ হায়দার ও হামিদা আক্তার শিক্ষক প্রতিনিধি হিসেবে আছেন। বর্তমান প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করছেন, আবদুল্লাহ মোহাম্মদ ইমতিয়াজ। তিনি ২০১৬ সালে বান্দরবান জেলার শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক নির্বাচিত হন। ১৭ সালে তিনি আইসিটি শিক্ষা সফরে ফিলিপাইন ভ্রমন গেছেন। মূলত তিনিই সাফল্যের ধারাবাহিকতার মাধ্যমে বিদ্যালয়টির ঐতিহ্যের হাল ধরে রেখেছেন। তার নেতৃত্বে এমপিওভুক্ত আরও ১৪জন ও খন্ডকালীন ১জন শিক্ষক এ প্রতিষ্ঠানে পাঠদান করে যাচ্ছেন। ২০১৭ সালে জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নিবাচিত হয়। শ্রেষ্ঠ শিক্ষার্থী নির্বাচিত বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্রী গোধূলী চৌধুরী। বাংলাদেশ যুব গেমস্ এ ৫০ কেজি কুমিতে দশম শ্রেণীর ছাত্রী নুমে মার্মা প্রথম স্থান অর্জন করেন। দশম শ্রেণীর ছাত্রী উম্মে হানি রুমি পাট দিবসে বিভাগীয় পর্যায়ে প্রথম স্থান অর্জন করে প্রধানমন্ত্রীর পুরস্কার পান। ১৬ সালে দশম শ্রেণীর ছাত্রী রাখি দাশ স্বর্ণ কিশোরী নির্বাচিত হয়। আগামী ১৫ এপ্রিল আইসিটি শিক্ষক অলক ভট্টাচার্য ১৫ দিনের প্রশিক্ষণে ফিলিপাইন যাবেন।

এ বিদ্যালয়ে ২০১৭ সালে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় ১১৯জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে ১১১জন পাস করেছে। তন্মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৫জন। এস.এস.সি পরীক্ষায় পাসের হার ৯৩%। গত বারে ছিল ৯২%। বিদ্যালয়ের প্রাক্তন কৃতী ছাত্রি মারজানা আক্তার ও উম্মে সালমা স্বর্ণা মেডিকেল কলেজে অধ্যয়নরত। এছাড়া সরকারী বেসরকারী বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে চাকুরী করছেন এ বিদ্যালয়ের ছাত্রীরা। ২০১৬ সালের জাতীয় পর্যায়ে গ্রামীণ খেলাধূলায় স্কিপিং এ দ্বিতীয় স্থান অর্জন করে বিদ্যালয়টি। ছাত্রীদের লেখাপড়ায় গতিশীলতা এবং আরও মনযোগি করে তুলতে আয়োজন করা হয়ে থাকে, মা ও অভিভাবক সমাবেশ। এছাড়া ছাত্রীদের বাহ্যিক জ্ঞান, প্রতিভা বিকাশ ও উদ্যোমী করে তুলতে দেওয়ালিকা প্রকাশ, বিতর্ক ও দাবা প্রতিযোগিতাসহ জাতীয় দিবসগুলো যথাযথ ভাবে পালন করা হয় এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। বিদ্যালয়টি সকল শিক্ষক তাদের মেধা, শ্রম ও আন্তরিকতা দিয়ে শিক্ষার্থীদের সুনাগরিক গড়ে তুলতে ও ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে বছরের প্রথম থেকেই শুরু করে পাঠদান কার্যক্রম ও পরিকল্পনা। গত বছর পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুরের সহধর্মিনী বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে বিদ্যালয়ে একটি ছাত্রী হোস্টেল নির্মাণের ঘোষনা দেন। এ প্রেক্ষিতে দুই কোটি টাকার প্রকল্প তৈরি পূর্বক সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের জন্য প্রেরণ করা হয়েছে বলে বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে। বর্তমানে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর কর্তৃক একটি আধুনিক কম্পিউটার ল্যাব তৈরি করা হয়। এছাড়া বিদ্যালয়টি জাতীয় করণের জন্য গত বছরের ফ্রেব্রুয়ারী মাসে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবরে ডিওলেটারসহ আবেদন করা হয়। জাতীয়করণ করা হলে দুর্গম পাহাড়ি এলাকার ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি ও বাঙ্গালী সম্প্রদায়ের শিক্ষার্থীরা আরও বেশি সুযোগ সুবিধা পাবে। এতে করে অবহেলিত এলাকার অভিভাবকরা তাদের কন্যা সন্তানদের শিক্ষায় আরও আগ্রহি হয়ে উঠবেন।

বিদ্যালযের ছাত্রী অভিভাবক আবদুল শহীদ ও মো. ইসহাক বলেন, উপজেলা সদর থেকে আমাদের বাড়ি ১০ কিলোমিটার দূরে রুপসীপাড়া বাজার এলাকায় অবস্থিত। দুর্গম পাহাড়ি এলাকা হওয়ায় সময়মত গাড়িও পাওয়া যায়না। ঘন্টার পর ঘন্টা গাড়ির জন্য অপেক্ষা করতে হয়। বর্ষা মৌসুমে বেশির ভাগ সময একেবারেই যাওয়া সম্ভব হয় না। বিদ্যালয়ে একটি ছাত্রী হোস্টেল করা হলে এ দুর্ভোগ লাঘব হত এবং আমাদের মত দুর্গম পাহাড়ি এলাকার অভিভাবকরা তাদের কন্যা সন্তানদের শিক্ষা দিক্ষায় এগিয়ে নিতে আরও বেশি আগ্রহী হয়ে উঠত।

বিদ্যালয়ে ছাত্রী হোস্টেল না থাকার কারনে দূর-দূরান্ত ছাত্রীদের ভোগান্তির সত্যতা স্বীকার করে প্রধান শিক্ষক আবদুল্লাহ মোহাম্মদ ইমতিয়াজ জানান, এখান থেকে পড়াশোনা করে অনেক কৃতি ছাত্রী দেশবরেণ্য হয়েছেন। বিদ্যালয় ক্যাম্পাসে একটি ছাত্রী হোস্টেল নির্মান করা হলে শিক্ষা বন্ধব পরিবেশ সৃষ্টির পাশাপাশি দুর্গম পাহাড়ি এলাকার শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ লাঘব হবে। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বিদ্যালয়টি সবদিকে শীর্ষে হলেও একটি হোস্টেল না থাকায় দূর দূরান্তের ছাত্রীরা চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। তাই দুর্ভোগ লাঘবে একটি হোস্টেল নির্মাণ জরুরী।

cbn
কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

উখিয়ায় জেলা প্রশাসকের কম্বল ও গৃহসামগ্রী বিতরণ

বদরখালী পৌরসভা, মাতামুহুরী হবে উপজেলা- এমপি জাফর আলম

বিজয় সমাবেশ সফল করতে কক্সবাজারে আ. লীগের প্রস্তুতি সভা

বালুখালীতে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা: টাকা লুট, অস্ত্র উদ্ধার

কক্সবাজার শহরে প্রাইভেট কারে আগুন

প্রখ্যাত সাংবাদিক আমানুল্লাহ কবীরের মৃত্যুতে সাংবাদিক ইউনিয়নর কক্সবাজার’র শোক

চকরিয়ায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সেবার মানোন্নয়নে সনাক মতবিনিময় সভা

সুশাসন প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে উন্নয়নে কক্সবাজার-রামুকে এগিয়ে নেয়া হবে- এমপি কমল

১৫ হোটেল ও রেস্তোরাঁকে দুই লাখ ৪৫ হাজার টাকা জরিমানা

চকরিয়ায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সেবার মাননোন্নয়নে সনাক এর মতবিনিময় সভা 

‘কাজী রাসেলকে সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চায় জনগণ’

কক্সবাজার সদর থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার- ১২

চকরিয়া পৌরসভায় ৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ছয়টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্ভোধন

পেকুয়ার ইটভাটা থেকে বিদ্যালয়ে ফিরলো ১২ শিশুশ্রমিক

কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির ভবন বর্ধিতকরণে দেড় কোটি টাকা বরাদ্দ

রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে জলবসন্ত রোগের প্রাদুর্ভাব

টেকনাফে ইয়াবাসহ রামুর নুর আটক

পেকুয়া বিএনপির ১১ নেতাকর্মী কারাগারে

চবি ছাত্রের কোটি টাকা উৎস ইয়াবা ব্যবসা!

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নতুন আতঙ্ক আরাকান আর্মি