তুমব্রু বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তরক্ষীদের যৌথ টহল

নুরুল কবির, বান্দরবান:

বাংলাদেশে-মিয়ানমারের মধ্যেকার সীমান্তের ওপারে সৈন্যবৃদ্ধি নিয়ে বিরাজমান পরিস্থিতি প্রশমনে রোববার সকালে দুইদেশের সীমান্তরর্ক্ষীদের যৌথ টহলদান অনুষ্ঠিত হয়। ঘন্টাব্যাপী এই যৌথ টহলদান চলাকালে উভয়দেশের সীমান্তরর্ক্ষীদের মাঝে সোহার্দ্যপুণ ভাব বিরাজ করে বলে সীমান্তবাসীরা জানিয়েছেন। তুমরু সীমান্তে জিরো পয়েন্টে বসবাসকারী রোহিঙ্গা আবদুল আলিম ও রহিম উল্লাহ জানান, সকালে তারকাঁটা বেড়া ঘেঁষে উভয় দেশের বাহিনীকে টহল দিতে দেখা গেছে। এতে আমাদের মধ্যে স্বস্থি এসেছে। ক’দিন আগেও বিপরীত চিত্র দেখা গেছে এই সীমান্তে।

বান্দরবানের নাইক্ষংছড়ি উপজেলার সীমান্তবর্তী তুমব্রু কোনারপাড়া এলাকার পাশে জিরো লাইনে মিয়ানমানের সীমান্তরর্ক্ষী বিজিপি এবং বাংলাদেশের সীমান্তরর্ক্ষী বিজিবি স্বাভাবিক পরিস্থিতি বজায় রাখার লক্ষ্যে মুলত যৌথ টহলদান কার্যক্রম সম্পন্ন করেছে বলে জানিয়েছেন ককসবাজার ৩৪ বিজিবির ব্যাটালিয়ন কমান্ডার লে.কর্ণেল মন্জুরুল আহসান খান। তিনি আরো বলেন সীমান্তে যৌথ টহল কী করে আরো বাড়ানো যায় সেজন্য মিয়ানমারকে প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। সীমান্তে যৌথ টহল অব্যাহত থাকলে উত্তেজনা এমনিতেই কমে আসবে। সেই সঙ্গে উভয় দেশের মধ্যে সম্পকের উন্নয়নও হবে

নাইক্ষংছড়ির ঘুমধুম ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আজিজ বলেন, আমরা চাই সীমান্তে শান্তি বজায় থাকুক, যৌথ টহলদানের ফলে সীমান্তে বিরাজমান উত্তেজনাকর পরিস্থিতি প্রশমন হবে বলে আমরা আশা করছি।

উল্লেখ্য, গতবছরের ২৪আগষ্ট মিয়ানমারের রাখাইনে সহিংসতায় প্রায় ৭লক্ষাধিক রোহিঙ্গা সীমান্ত অতিক্রম করে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করেছে। এসব রোহিঙ্গা মধ্যে নাইক্ষংছড়ির তমুব্রু সীমান্তের কোনাপাড়ার জিরো পয়েন্টে আটকা পড়েন প্রায় সাড়ে ৬ হাজার রোহিঙ্গা। পরবর্তীতে মিয়ানমারের সৈন্যরা সীমন্ত পয়েন্টে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের ওপর নানামুখি হয়রানী সৃষ্টি করে। এপারে বিজিবি সদস্যরা তাদের টহলদানও বৃদ্ধি করে দেয়।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

এই জনপদটি ইয়াবা নামক বিষ বৃক্ষের আবক্ষে নিম্মজ্জিত : সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন

যুগ্মসচিব হলেন কক্সবাজারের সন্তান শফিউল আজিম : অভিনন্দন

ধর্মীয় শিক্ষা মানুষের মাঝে মূলবোধের সৃষ্টি করে-এমপি কমল

কক্সবাজার সদর মডেল থানা পুলিশের অভিযানে ১৪জন আসামী গ্রেফতার

কক্সবাজার জেলা পুলিশকে আইসিআরসির ২৫০ বডি ব্যাগ হস্তান্তর

চকরিয়ায় পল্লীবিদ্যুতের ভুতুড়ে জরিমানা নিয়ে আতঙ্ক!

ঈদগাঁওয়ে পাহাড় কাটার দায়ে এক নারীকে ১ বছর কারাদন্ড

শুধু চালককে অভিযুক্ত করে লাভ নেই আমাদেরও সচেতন হতে হবে-ইলিয়াছ কাঞ্চন

মাওলানা সিরাজুল্লাহর মৃত্যুতে জেলা জামায়াতের শোক

কক্সবাজারের ৩দিন ব্যাপী ‘প্রাথমিক চক্ষু পরিচর্যা’ কর্মশালার উদ্বোধন

‘ঘরের ছেলে’র বিদায়ে ব্যথিত পেকুয়াবাসী

শিল্পী ফাহমিদা গ্রেফতার : জামিনে মুক্ত

‘মাশরুম একটি অসীম সম্ভাবনাময় ফসল’

তথ্য প্রযুক্তি’র সেবা সাধারণের দোরগোড়ায় পৌঁছাতে সরকার বদ্ধ পরিকর : শফিউল আলম

চট্টগ্রামে জলসা মার্কেটের ছাদে ২ কিশোরী ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ৬

কোটালীপাড়ায় নিজ জমিতে অবরুদ্ধ ৬১ পরিবার : মই বেয়ে যাদের যাতায়াত

জামায়াত নেতা শামসুল ইসলামকে গ্রেফতারের প্রতিবাদ ও মুক্তি দাবী

দুর্ঘটনারোধে সচেতনতার বিকল্প নেই : ইলিয়াস কাঞ্চন

Google looking to future after 20 years of search

ইবাদত-বন্দেগিতে মানুষ যে ভুল করে