ক্যান্সার আক্রান্ত শিশু নাজিম উদ্দিন বাঁচতে চায়

মোঃ জয়নাল আবেদীন টুক্কু, নাইক্ষ্যংছড়ি:
নাইক্ষ্যংছড়ির পার্শ্ববর্তী রামু উপজেলার গর্জনিয়া ইউনিয়নের সাড়ে তিন বছরের শিশু নাজিম উদ্দিন ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে বিগত দেড় মাস ধরে যন্ত্রনায় ভুগছে। কক্সবাজার, চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন হাসপাতালে তাকে চিকিৎসার জন্য নেন পিতা মোঃ হোসেন। সেখানে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে ডাক্তার শিশু নাজিমের লিভারে ব্লাড ক্যান্সার ধরা পড়ার কথা জানান।
এ প্রতিবেদক গর্জনিয়া বাজারের সহকারী ডাক্তার শফিক আহম্মদের চেম্বারে গেলে উক্ত শিশুর মা হালিমা বেগমের কোলে সাড়ে তিন বছরের এ শিশু দেখে জিজ্ঞাসা করলে উঠে আসে এ বিষয়। খোঁজ নিয়ে জানা যায় পিতা-মাতা ও এলাকাবাসীর মতে গরীব, অসহায় পরিবারে ছোট শিশুটি যন্ত্রনা থেকে মুক্তি পেয়ে বাঁচতে চায়।
শিশুটির বয়স এখন খেলাধুলা করে কাটানোর সময়। কিন্তু সাড়ে তিন বছর বয়সে পেটের ভিতর লিভারে ব্লাড ক্যান্সারের মতো রোগ হয়ে পৃথিবী থেকে বিদায় নেওয়ার পথে এ শিশুটি। দরিদ্র পিতার ঘরে জন্ম নেওয়া নাজিম ৫ বোন ২ ভাইয়ের মধ্যে সবার ছোট। বড় ভাই কৃষিকাজ করে আর বাবা দিন মজুরী করে টানাটানির মধ্যে চলছে সংসার। এর মাঝে ছোট ছেলের জন্য হওলাদ ও বাড়ীর মালামাল বিক্রি করে চিকিৎসা খরচ করেন এত দিন। এখন আর পারছেনা শিশুর চিকিৎসা খরচ জোগাতে।

টাকা না থাকায় এখন চিকিৎসা করতে পারছে না। বাবা মোঃ হোসেন জানান প্রথমে কক্সবাজার পরে চট্টগ্রামসহ সরকারী বেসরকারী কয়েকটি হাসপাতালে এত দিন চিকিৎসা করেছেন ধার দেনা করে লাখ টাকার মতো খরচ করেও কোন ফল পান নাই। ডাক্তার বলেছেন ভাল চিকিৎসা দিতে হলে বিদেশে অথবা ভারত নিতে হবে।
তবে কঠিন এই রোগ থেকে মুক্তি পেতে ৪০ লক্ষ টাকার প্রয়োজন বলে জানান চিকিৎসকরা। কিন্তু কোথায় পাবে? কে করবে ব্যয়বহুল এ চিকিৎসার ব্যবস্থা? গর্জনিয়া বাজারের চিকিৎসক শফিক আহম্মদ ও ছেলের চাচা মোঃ তৈয়ব জানান শিশু নাজিমকে বাঁচাতে অনেক টাকার প্রয়োজন।
তাই বিভিন্ন জনের সাথে যোগাযোগ করে তার চিকিৎসার জন্য গর্জনিয়া বাজার ব্যাংক এশিয়া শাখায় দেশবাসীর সাহায্য ও সহযোগিতা পেতে একটি হিসাব নং খোলা হয়েছে যার নং-১০৮৩৪২২০০২৭০৬ এবং যোগাযোগ নং ০১৮২৩৯৭৫০৩৮। শিশুটির চিকিৎসার জন্য আর্থিক সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিতে এলাকার বিত্তশালী, বিভিন্ন এনজিও, মানবাধিকার সংস্থার প্রতি আকুল আহ্বান জানান শিশুটির পরিবার। গত কাল খবর পেয়ে রোগে আক্রন্ত উক্ত শিশুর হিসাব নম্বারে এক ব্যক্তি ১০ হাজার টাকা দিয়ে প্রথম সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন বলে জানা গেছে।
কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলার গর্জনিয়া ইউনিয়নের জাউচ পাড়া গ্রামের নাজিম উদ্দিন নামের এ শিশুটি তার কি হয়েছে সে জানেনা কিন্তু তার খুব কষ্ট হয় প্রচন্ড ব্যাথা করে পেটে। মা হালিমা বেগম জানান, আমার ছেলেকে দেখলে এবং রাতে খব কষ্ট হয়। দেশের সবাই মিলে যদি আমার ছেলেটির চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন আমি সবার জন্য আল্লাহর নিকট দোয়া করবো।

সর্বশেষ সংবাদ

চকরিয়ায় চারুকলা গবেষণা কেন্দ্রের জেলা কমিটির অভিষেক ও শপথ

ঈদগড়ে তুচ্ছ ঘটনায় প্রতিপক্ষের দোকানে মল নিক্ষেপ

ডুলাফকির নূরানী মাদ্রাসার বার্ষিক সভা শুক্রবার

সমাজসেবায় মাদার তেরেসা স্বর্ণ পদক পেলেন কামরুল হাসান

পরিচালকের যৌনতার অভিযোগে প্রিন্সিপ্যালের পদত্যাগ

ফেঁসে গেলো খরুলিয়ার ভূমিদস্যু শফিক, ১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা

বসতভিটা রক্ষার চেষ্টাই কাল হলো তাদের

বর্তমান শাসনামলে খেলাপি ঋণ সবচেয়ে বেশি বেড়েছে: মেনন

সকল মানুষের কাছে চিরকাল স্মরণীয় হয়ে থাকবেন কবি আল মাহমুদ

নুসরাত হত্যাকারিদের দ্রুত শাস্তি দাবী পূজা উদযাপন পরিষদের

খরুলিয়ার জমি সংক্রান্ত বিরোধের ঘটনাস্থল পরিদর্শনে এমপি কমল

চকরিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় এনজিও কর্মী নিহত

পেকুয়ায় কাছারীমোড়া সাহিত্যকেন্দ্রের উদ্বোধন

বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ হিসেবে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে -ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

শৃংখলা মেনে চললে যানজটের ও দুর্ঘটনাও কমে আসবে – ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার

শ্রীলঙ্কা হামলায় আইএসের বুনো উল্লাস

শ্রীলঙ্কায় হামলার পেছনে ‘ন্যাশনাল তৌহিদ জামাত’

চট্টগ্রামে আসামি ধরতে গিয়ে গোলাগুলিতে আহত ৬ পুলিশ

মক্কা থেকে হারিয়ে গেল কক্সবাজারের সাদ

আল্লাহর কসম খেয়ে বলছি মাদকের সাথে আমি জড়িত নই- দিদার বলী