ডেস্ক নিউজ:

‘পাগলামি’ ও ‘অশ্লীল আচরণের’ জন্য মালিন্দো এয়ারের যাত্রী দিদার আলী মাহমুদকে (১৯) পুলিশে সোপর্দ করেছিল বিমানটি। তাকে ‘মানসিক ভারসাম্যহীন’ উল্লেখ করে হাসপাতালে পাঠানোর নির্দেশ দেয় শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

তবে ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে পরে ওই তরুণের ছবিটি। মালয়েশিয়া জুড়ে চলছে সমালোচনা।

বিমানের ভেতর থাকা প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে মালয়েশিয় পত্রিকা ‘দ্য সান ডেইলি’ শনিবার রাতে মালিন্দো এয়ারওয়েজের ওডি-১৬২ ফ্লাইটে কুয়ালালামপুর থেকে ঢাকায় আসছিল ফ্লাইটটি। ফ্লাইট ছাড়ার কিছুক্ষণ পর দিদার আলী ল্যাপটপে উচ্চ শব্দে পর্নো ভিডিও দেখছিল। কিছুক্ষণ পর সে তার শরীরের কাপড় খুলে ফেলে। কেবিন ক্রু’রা তাকে জামা পড়তে বললে সে কথা শোনেনি। এর কিছুক্ষণ পর বিমানের টয়লেটের সামনে এক গৃহবধূকে হয়রানি করেন।

দ্য সান আরও লিখেছে, হয়রানি ও হস্তমৈথুন করেই দিদার ক্ষান্ত হননি। সে কেবিন ক্রু’দের দিকে কয়েকবার তেড়ে আসেন, কখনো সিট থেকে উঠে দাঁড়িয়েছেন, ককপিটের দরজার সামনে হেঁটেছেন। ৩ ঘণ্টা ৫০ মিনিটের ফ্লাইটে যাত্রীরা এক ধরনের আতঙ্কের মধ্যে ছিলেন।

ছেলেটির পরিচয় সম্পর্কে বিমানবন্দরের থানার ডিউটি অফিসার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাঈদ  জানান, দিদার আলী মাহমুদ উত্তরার ১১ নম্বর সেক্টরের বাসিন্দা। সে ঢাকার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করে।

বিমানবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নূরে আযম মিয়া বলেন, ‘তাকে প্রসিকিউশন দিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতে পাঠানো হয়। আদালত তাকে মানসিক ভারসাম্যহীন উল্লেখ করে হাসপাতালে পাঠানোর নির্দেশ দেয়।’

–জাগো নিউজ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •