পোকখালীতে দিনদুপুরে গুলিবর্ষণকারী ধরাছোঁয়ার বাইরে, নিরাপত্তাহীনতায় আহতদের পরিবার

শাহিদ মোস্তফা শাহিদ, কক্সবাজার সদর:

কক্সবাজার সদর উপজেলার পোকখালীতে দিনদুপুরে সন্ত্রাসীদের গুলিবর্ষণের ঘটনায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। জনমনে দেখা দিয়েছে চরম আতংক। ঘটনার দু’দিন অতিবাহিত হলেও পুলিশ এখনো চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার করতে পারেনি। উদ্ধার হয়নি ঘটনার সময় ব্যবহৃত আগ্নেয়াস্ত্র।

স্থানীয় সূত্র জানায় পোকখালী ইউনিয়নের শীর্ষ সন্ত্রাসী তৈয়বের নেতৃত্বে একদল চিহ্নিত সন্ত্রাসী ১মার্চ বৃহস্পতিবার পশ্চিম পোকখালীর দিঘীর পাড় এলাকায় প্রকাশ্যে দিনদুপুরে নির্বিচারে গুলিবর্ষণ করে। এসময় সন্ত্রাসীরা ওই এলাকার হাজী মোহাম্মদ হোসাইনের শিশুপুত্র, কোরআনে হাফেজ মোহাম্মদ মুছা (১৩) ও মোহাম্মদ ইসা (১১) কে এলোপাতাড়ি বেপরোয়া ও ছুরিঘাত করে। এসময় স্থানীয় লোকজন মারাত্মক আহত শিশু দু’টিকে উদ্ধারে এগিয়ে গেলে সন্ত্রাসী তৈয়ব দুই হাতে দুটি আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে এলোপাতাড়ি গুলি বর্ষণ করে। পরবর্তীতে আহতদের পিতা মোহাম্মদ হোছাইন শিশুদেও চিকিৎসা দিতে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথে সন্ত্রাসীরা তাদের বহনকারী সিএনজি অটোরিক্সার গতি আটকে আবারো হামলা চালায় এবং গুলিবর্ষণ করে।

এসময় সন্ত্রাসীদের হামলায় ও গুলিবিদ্ধ হয়ে মোহাম্মদ হোছাইন মারাত্মক আহত হন। পরে আহতদের উদ্ধার করে স্বজনেরা কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করায়। ঘটনার সংবাদ পেয়ে ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের সহকারি উপ পরিদর্শক (এএসআই) লিটনুর রহমান জয়ের নেতৃত্বে পুলিশ দল ঘটনাস্থলে পৌঁছলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে পাশের নাইক্ষ্যংদিয়া গ্রামে অবস্থান নেয়। এছাড়া ঘটনার পরপরই স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রফিক আহমদ, ইউপি সদস্য মোহাম্মদ শাহজাহান ও লুৎফুর রহমান লুতু ঘটনাস্থলে পৌঁছে দীর্ঘসময় অবস্থান করে পরিস্থিতি সামাল দেয়ার এবং উপস্থিত শতশত বিক্ষুব্দ জনতাকে শান্ত করার চেষ্টা চালান।

ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এসআই জয় ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। চেয়ারম্যান রফিক আহমদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের দমনে আমার সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, পোকখালী ইউনিয়নের মধ্যম পোকখালী গ্রামের মৃত নজুর পুত্র, এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী ও অস্ত্রধারী মো. তৈয়ব এবং একই গ্রামের মৃত হানিফার পুত্র আরেক সন্ত্রাসী আক্তারের নেতৃত্বে ৭/৮ জনের চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে আসছিল। চাঁদাবাজি, নারী নির্যাতন, ধর্ষন, জমি জবরদখলসহ নানা অপকর্মে লিপ্ত এই সন্ত্রাসী দল। ঘটনার দিন পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এবং ইতোপূর্বে দাবিকৃত চাঁদা না দেওয়ায় মোহাম্মদ হোছাইনের ওই শিশু পুত্রদের উপর নারকীয় হামলা চালায়।

ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মিনহাজ মাহমুদ ভূঁইয়া জানান, জড়িতদের ধরতে পুলিশ অভিযান অব্যাহত রেখেছে।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

উখিয়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতিব হাফেজ আনোয়ার আর নেই

আরব আমিরাতে উখিয়া প্রবাসীদের মিলনমেলা উপলক্ষে আলোচনা সভা

আ’লীগ জনগনের সংগঠন, নির্বাচনের বিধি মেনে কাজ করুন : মেয়র নাছির

গায়েবি মামলা প্রত্যাহার চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে তালিকা দিল বিএনপি

রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে সু চিকে ভর্ৎসনা মাহাথিরের

হালদা নদীকে দুষণমুক্ত করতে সবার সহযোগিতা চাইলেন ইউএনও রুহুল আমিন

সুব্রত চৌধুরীকে দিয়ে অলির রাজত্ব খতম করতে চায় গণফোরাম

দলীয় পরিচয় বহাল রেখে অন্যের প্রতীকে ভোট নয় অনিবন্ধিতদের

জাতীয় হিফযুল কুরআন প্রতিযোগিতায় বিচারক মনোনীত হলেন মাওলানা মুহাম্মদ ইউনুস ফরাজী

১০ বিশিষ্ট ব্যক্তিকে নির্বাচনে সম্পৃক্ত করতে চান ড. কামাল

আবারও স্পেনের সেরা লিওনেল মেসি

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে সিএনএনের মামলা

জিএম রহিমুল্লাহ, ভিপি বাহাদুরসহ ৬ জনের আগাম জামিন

লক্ষ্যারচরে দরিদ্রদের মাঝে স্বল্প মূল্যে খাদ্যশস্য বিতরণ

কক্সবাজার ১ ও ২ থেকে সালাহউদ্দিন ও হাসিনা আহমদ’র মনোয়নপত্র গ্রহণ

চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে ক্যানসারের রেডিওথেরাপি চালু 

পেশকার পাড়ায় সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডের প্রামান্য চিত্র প্রদর্শন

পেকুয়ায় শ্রমিকলীগ নেতা শাহাদাতকে হত্যাচেষ্টার ঘটনায় অবশেষে মামলা

নুরুল বশর চৌধুরী কক্সবাজার-২ আসনের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন

পর্দা উঠলো ওয়ালটন বীচ ফুটবল টূর্ণামেন্ট’র উদ্বোধন