প্রশাসনের নির্দেশ মানছে না এলসিটি কুতুবদিয়া: ১২০০ যাত্রী ধারণ!

বিশেষ প্রতিবেদক:

টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌ-রুটে চলাচলকারী পর্যটকবাহী জাহাজ এলসিটি কুতুবদিয়া নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় ও কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের আরোপিত নিয়ম কোনভাবেই মানছেনা। এই জাহাজ পর্যটক সেবার পরিবর্তে পর্যটকদের উপর চালাচ্ছে গলাকাটা বাণিজ্য। জাহাজের প্রতিনিধি এবং দালালের হাতে প্রায় সময় পর্যটকরা প্রতারিত হয়ে আসছে বলে ভূক্তভোগীরা অভিযোগ করেছেন। পর্যটকবাহী দূরপাল্লার বাস, প্রাইভেটকার দমদমিয়া নামক স্থানে পৌছার পর ঐসব দালালের খপ্পরে পড়ছে ভ্রমণ পিপাসুরা। জাহাজে বুকিং নিতে গিয়ে অনেক সময় পর্যটকরা দালালের হাতে টানা হেঁচড়ার শিকার হচ্ছেন। এখানে প্রশাসন এবং কোস্টগার্ড বাহিনীর মনিটরিং থাকার পরও অতিরিক্ত পর্যটক যাত্রী প্রতিনিয়তই জাহাজে বহন করা হচ্ছে।

অভিযোগ রয়েছে, ইতিপূর্বে প্রশাসন কয়েকবার ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেও অতিরিক্ত যাত্রী উঠানো ঠেকাতে পারছে না। জরিমানা আদায়কে মামুলি ও গা সওয়া ব্যাপার হিসেবে ধরে নিয়ে তারা এ যাত্রা অব্যহত রেখেছে। সর্বশেষ ২ মার্চ শুক্রবার এলসিটি কুতুবদিয়া জাহাজ প্রায় ১২০০ যাত্রী নিয়ে সেন্টমার্টিন যাত্রা করেছে। অথচ এই জাহাজের ধারনক্ষমতা ও অনুমতি আছে ২৫০ জনের। সেই আইন তারা কোন কিছুইতে মানছে না। তাদের জাহাজে সংশ্লিষ্ট প্রশানের কেউ গেলে তাদের মোটাংক টাকা দিয়ে ম্যানেজ করে। এভাবে চলছে লক্করঝঁক্কর এ জাহাজ।

পর্যটকরা অভিযোগ করেছেন, এলসিটি কুতুবদিয়া নিয়ন্ত্রণহীনভাবে চলছে দমদমিয়া জাহাজ জেটি ঘাটে। টেকনাফ সেন্টমার্টিন নৌ-রুটে যে কয়টি জাহাজ চলাচল করছে, তার মধ্যে এটি সবচেয়ে বাজে জাহাজ। ঢাকা ও কক্সবাজার থেকে অতিরিক্ত যাত্রী বুকিং নিয়ে টেকনাফস্থ দমদমিয়া জেটিতে আসার পর পর্যটকেরা নানা বিব্রতকর অবস্থার মধ্যে পড়ে যায়। টাকা দিয়েও অনেক পর্যটক সিট না পেয়ে পুরো আড়াই ঘণ্টার পথ দাঁড়িয়ে সেন্টমার্টিন পৌঁছে যাচ্ছে।

এদিকে জাহাজে নিয়োজিত প্রতিনিধি বা দালালেরা পর্যটকদের কাছ থেকে টিকেটের ডিসকাউন্টের নামে জাহাজের মালিকের অগোচরে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এরই ফলে জাহাজে অতিরিক্ত যাত্রী বহণ একটি রেওয়াজে পরিণত হয়েছে।

অপরদিকে তাদের জেটি ঘাটে স্থাপিত গাড়ি পার্কিং এবং জেটি পারাপারের নামে পর্যটকদের কাছ থেকে প্রতিদিন লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে জাহাজ কর্র্র্র্তৃপক্ষ ও এক শ্রেণীর প্রভাবশালী মহল। ঐসব টাকা রাঘব বোয়ালের পকেটেই চলে যাচ্ছে। সুবিধা হাসিল করছে স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী। সরকার পর্যটন বিকাশের উদ্যোগ নিলেও এই উদ্যোগ এখানে কিঞ্চিত পরিমাণ বাস্তবায়ন হচ্ছে না। ফলে পর্যটকেরা বাঁধ্য হয়ে বেসরকারি খাতের প্রতি নির্ভরশীল হয়ে পড়ছে।

২মার্চ শুক্রবার সকালে ও বিকেলে সরেজমিন দমদমিয়া জাহাজ ঘাট এলাকা পরিদর্শন করে জানা গেছে, সব জাহাজ প্রশাসনের নিয়ম মানলেও এলসিটি কুতুবদিয়া সরকারি নিয়ম নীতি তোয়াক্কা না করে জাহাজে অতিরিক্ত যাত্রী বহন করে করছে। এই দৃশ্য দেখে সংবাদকর্মী ছাড়াও সচেতন মহল হতভম্ব হয়ে পড়ে।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

আইসিসি নিজেই মিয়ানমারের বিচারে সক্ষম: জাতিসংঘ মহাসচিব

বান্দরবানের কোথায় কী দেখবেন

নিজেদের সংশোধন করি, আইন মানার সংস্কৃতি গড়ে তুলি- ইলিয়াস কাঞ্চন

বিএনপি ক্ষমতার লোভে অন্ধ হয়ে গেছে : কর্ণফুলীতে ওবায়দুল কাদের

ক্যান্সার, হৃদরোগ, শ্বাসযন্ত্রের রোগ ও ডায়াবেটিসের কাছে হারছে মানুষ

মাতারবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মাস্টার মাহমুদুল্লাহ কারাগারে

রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে গায়েবি মামলার তদন্ত বন্ধের নির্দেশনা চেয়ে রিট

অনুপ্রবেশের অপেক্ষায় আরও ৫ লাখ রোহিঙ্গা

চকরিয়া পালাকাটা দাখিল মাদ্রাসার প্রাক্তন ছাত্র সংসদের পূর্ণাঙ্গ কমিটি 

চট্টগ্রামে প্রাইভেটকার-মাইক্রোবাস-অটোরিকশার সংঘর্ষে নিহত ২

৬০ হাজার রোহিঙ্গা শিশুকে ভাষা শেখাবে সরকার

ক্যান্সার চিকিৎসায় কত লাগে?

সরকারের সেবায় সোনালী ব্যাংকের ক্ষতি হাজার কোটি টাকা

যেসব আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী চূড়ান্ত

ঈদগাঁওতে মাধ্যমিক শিক্ষকদের এমপি ও কউক চেয়ারম্যানের সহযোগিতার আশ্বাস

কাঁচা মরিচের অনেক ঔষধি গুণ রয়েছে। এবার কাঁচা মরিচের ৫ গুণ জেনে নিন

কোটি কোটি টাকার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এখন ধ্বংসস্তূপ!

মুখ ধোওয়ার সময় যে ভুল করবেন না

তুরস্কে মেঘ আর মসজিদের মিতালি!

মালয়েশিয়ায় ব্যাপক ধর-পাকড়, ৫৫ বাংলাদেশি আটক