মহেশখালীতে ছেলের বিষপান: স্ট্রোকে মায়ের মৃত্যু

এস. এম. রুবেল, মহেশখালী:
মহেশখালীতে ছেলের বিষপানে আত্মহত্যা চেষ্টার ঘটনায় শোকে বিহ্বল এক মায়ের ষ্ট্রোকে  মৃত্যু হয়েছে। ১ মার্চ সকালে উপজেলার ছোট মহেশখালী ইউনিয়নের উত্তরকুল গ্রামে এই মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে।
মৃত্যুবরণকারী মায়ের নাম ছুরা খাতুন। তিনি ওই এলাকার আব্দু শুক্কুরের স্ত্রী।
পারিবাকির সূত্রে জানা যায়, সকাল ৯টায় পারিবারিক কলহের জের ধরে ছেলে আব্দুর রহিম বিষ পান করে। এসময় তাকে উদ্ধার করে মা ছুরা খাতুন সহ স্বজনরা মহেশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। তখন কর্তব্যরত চিকিৎসক অাব্দুর রহিমের চিকিৎসা শুরু করেন। এসময় হঠাৎ সুরা খাতুন বুকে ব্যথা অনুভব করে পড়ে যায়। তার অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। সেখানেই হতভাগ্য মা সুরা খাতুন মারা যান।
 ছেলের বিষপানের ঘটনা সহ্য করতে না পেরে মা সুরা খাতুনের মৃত্যুতে আত্মীয়-স্বজন সহ এলাকায় শোকের মাতম বইছে।
এদিকে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বিষপান করা যুবক আব্দুর রহিম মহেশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অাছে। তার অবস্থা আশংকাজনক বলে দায়িত্বরত চিকিৎসক জানান।

cbn
কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির ভবন বর্ধিতকরণে দেড় কোটি টাকা বরাদ্দ

রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে জলবসন্ত রোগের প্রাদুর্ভাব

টেকনাফে ইয়াবাসহ রামুর নুর আটক

পেকুয়া বিএনপির ১১ নেতাকর্মী কারাগারে

চবি ছাত্রের কোটি টাকা উৎস ইয়াবা ব্যবসা!

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নতুন আতঙ্ক আরাকান আর্মি

মুসলিম উম্মাহকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

চট্টগ্রামে কাভার্ড ভ্যান চাপায় কলেজছাত্রীর মৃত্যু

২৭ ফেব্রুয়ারি বন্ধ হচ্ছে ৭ দিনের নিচের নেট প্যাকেজ

পেঁপে চাষে ভাগ্য বদল!

পেকুয়ায় পুকুরে পড়ে দুই সন্তানের জননীর মৃত্যু

উচ্ছেদ আতঙ্কে পশ্চিম বাহারছড়ার ৫০০ পরিবার

পেকুয়ার চেয়ারম্যান ওয়াসিমসহ ৭জন কারাগারে

জীবনে সফল হতে চান? আজ থেকেই পবিত্র কোরআনের চার পরামর্শ মেনে চলুন

প্রাথমিক-ইবতেদায়ির বৃত্তির ফল মার্চের প্রথম সপ্তাহে

আইসিসির নতুন প্রধান নির্বাহী ভারতীয় মানু সনি

জামায়াতের মনোযোগ সংগঠনে

কী ঘটতে যাচ্ছে ব্রিটেনে?

বদলে গেছে ফারজানা ব্রাউনিয়ার জীবন

আত্মসমর্পণ করতে যাচ্ছে বদির ভাই ও স্বজনেরা