ফেসবুকে পবিত্র কোরআন অবমাননার আজগুবি স্ট্যাটাস, আটক ১

সিবিএন ডেস্ক:
ফেসবুকে পবিত্র কোরআন অবমাননার আজগুবি স্ট্যাটাস পোস্ট করার ঘটনায় কক্সবাজারের রামুতে আবারো তোলপাড় চলছে। এ ঘটনায় পুলিশ চট্টগ্রাম শহর থেকে এক ব্যক্তিকে বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারী) সকালে আটক করেছেন।

আটক হওয়া ব্যক্তির নাম আফাজ খান। তিনি চট্টগ্রাম শহরের নুর আহমদ সড়কের বাসিন্দা এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগ রাজনীতির সাথে জড়িত। চট্টগ্রামের শংখ মার্কা সরিষার তেল মিলের মালিকও তিনি।

এ বিষয়ে চট্টগ্রামের কোতোয়ালী থানার ওসি মোঃ জসিম উদ্দীন জানান, বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারী) আফাজ খানকে আটক করা হয়। তিনি আমাদের কাছে স্বীকার করেছেন, তার ফেসবুক আইডি থেকে স্ট্যাটাসটি বিভিন্ন জনকে পোস্ট করেছেন। আটক ব্যক্তিকে চট্টগ্রাম ডিবি পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ রুহুল কুদ্দুস তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চট্টগ্রাম গেছেন।

ওসি আরো জানান, আটক হওয়া আফাজ খানের আইডিতে রামুর জনৈক বাবলা স্ট্যাটাসটি পাঠিয়েছেন। স্ট্যাটাসে লেখা রয়েছে ‘রামুর জয়া বড়ুয়া পবিত্র কোরআনের উপর পা দিয়েছে। তার শাস্তি চাই। আপনি মুসলিম হলে এটি ১০ জনকে পাঠান’। ওসি জসিম আটক ব্যক্তিকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করে জানান, আসলে ভদ্রলোক কোন খারাপ উদ্দেশ্য নিয়ে এরকম স্ট্যাটাস দিয়েছে বলে মনে হয়নি। তিন হয়তোবা সরল মনেই এরকম দিয়ে থাকতে পারেন। তবে তদন্তেই সব বেরিয়ে আসবে।

গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাতে ফেসবুকের আকস্মিক এমন একটি স্ট্যাটাস নিয়ে কক্সবাজারে নামানো হয় বিজিবি, র‍্যাব ও পুলিশ। ফেসবুক স্ট্যাটাসের গুজব নিয়ে যাতে কোন মহল সুযোগ নিতে না পারে সেজন্য রামু ও কক্সবাজার শহরে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারি সংস্থার সদস্যরা সতর্ক অবস্থান নেয়। রামু কেন্দ্রীয় সীমা বিহারের সহকারি অধ্যক্ষ প্রজ্ঞানন্দ ভিক্ষু জানান, রামু বৌদ্ধ পল্লীতে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মোঃ আলী হোসেন বিষয়টি নিয়ে আজ বুধবার জানান, মঙ্গলবার মধ্যরাতের পর খবর পাই যে, রামুতে গত ২০১২ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর বৌদ্ধ মন্দিরে আগুন লাগানোর ঘটনাটি যেভাবে উৎপত্তি হয়েছিল অনুরুপ একটি ফেসবুক স্ট্যাটাস ছেড়ে দেয়া হয়েছে। একারণে সাথে সাথেই বিজিবি, র‍্যাব ও পুলিশ টহলের ব্যবস্থা করি, যাতে রামুর সেই ঘটনার কোন পুনরাবৃত্তি না ঘটে। তিনি জানান, একুশের মত এরকম বিশেষ দিনকে টার্গেট করেই মহল বিশেষ তাদের স্বার্থসিদ্ধির সুযোগ নিয়ে থাকে।

এ প্রসঙ্গে রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ শাহজাহান আলী বলেন ‘২০১২ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর রাতে একযোগে রামুর ১৭টি বৌদ্ধ মন্দিরে হামলা চালিয়ে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়েছিল। সেই ঘটনাটিও ঘটেছিল রামুর উত্তম বড়ুয়া নামের একজন বৌদ্ধ যুবকের এরকমই একটি স্ট্যাটাস নিয়ে।

সুত্র: কালেরকন্ঠ

সর্বশেষ সংবাদ

পুরান ঢাকার চকবাজারে আগুন, ৫৬ লাশ উদ্ধার

ভারুয়াখালীতে স্কুলছাত্রকে অপহরণের চেষ্টা  ‘ভাই গ্রুপের’

আজ আন্তর্জা‌তিক মাতৃভাষা দিবস

মুজিবুর রহমান ও এমপি জাফরের দোয়া নিলেন ফজলুল করিম সাঈদী

মাতৃভাষার প্রতি আগ্রহ হারাচ্ছে রাখাইনদের নতুন প্রজন্ম

শুদ্ধ সংস্কৃতির চর্চার মধ্য দিয়ে অপশক্তিকে রুখতে হবে- মেয়র মুজিব

একুশে ফেব্রুয়ারি : প্রাপ্তি ও প্রত্যাশা

টেকনাফে সাড়ে ১৫ লক্ষ টাকার স্বর্ণালংকার উদ্ধার

চকরিয়ায় শিশু ও নারী নির্যাতন মামলার ৫ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার

২০ হাজার ইয়াবাসহ দুইজন আটক

এডভোকেট রানা দাশগুপ্তের সাথে কক্সবাজার জেলা নেতৃবৃন্দের মতবিনিময়

ইসলামে মাতৃভাষার গুরুত্ব ও তাৎপর্য

ঈদগাঁওতে পুজা কমিটির সম্মেলন নিয়ে সংঘাতের আশংকা

কক্সবাজার সিটি কলেজে শিক্ষকদের জন্য আইসিটি প্রশিক্ষণ শুরু

উখিয়ায় হাতির আক্রমণে রোহিঙ্গা যুবকের মৃত্যু

এস আলম গ্রুপের ৩ হাজার ১৭০ কোটি টাকার কর মওকুফ

মালয়েশিয়ায় ভবনে আগুন : বাংলাদেশিসহ নিহত ৬

মহেশখালীতে মনোনয়ন দৌড়ে এগিয়ে মোস্তফা আনোয়ার

চকরিয়ায় ইয়াবাসহ দুই ব্যবসায়ী আটক

চকরিয়ার চেয়ারম্যান পদে ২ জনসহ ৫ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল