ভারত কি বদলে যাচ্ছে?

-তসলিমা নাসরিন

কাল একজনের সঙ্গে দেখা হল। যা বলল , তা হলো, ভারতকে হিন্দু রাষ্ট্র করা হবে, অহিন্দু যারা আছে, তাদের সবাইকে মেরে ফেলা হবে, যদি মরতে না চায় ওরা, তবে ওদের সবাইকে হিন্দু হতে হবে, নয়তো ভারত থেকে তাদের চলে যেতে হবে। মসজিদ্গুলোকে সব মন্দির করে ফেলা হবে।

আমি ঠিক জানি না, এরকম যারা ভাবছে, তাদের সংখ্যা অনেক কিনা। ভারতকে সেক্যুলার রাষ্ট্র হিসেবে জানি, তাই ভালবাসি, আস্থা রাখি। ভারত কি বদলে যাচ্ছে? বদলে যাবে? হিন্দু ধর্মের উদারতার কথা জানি, কেউ একে মানতেও পারে, না মানতেও পারে, মানার জন্য ইসলাম ধর্মের মতো জোর জবরদস্তি নেই। না মানলে দুররা মারা, জেলে ভরা, ফাঁসি দেওয়া, শুলে চড়ানো, কুপিয়ে মেরে ফেলা– এসব নেই। প্রচুর কুসংস্কার আছে। কিন্তু অনেক কুসংস্কার সময়ের সঙ্গে চলেও গেছে। শুধু হিন্দু থাকবে ভারতে, আর কেউ থাকতে পারবে না, হিন্দু বা হিন্দুত্ব নিয়ে কোনও কথা বললে গুলি করে মেরে দেব — এই কথাগুলো আমার কাছে নতুন। সেই আশির দশক থেকে নারীর সমানাধিকার নিয়ে কথা বলতে গিয়ে সব ধর্ম আর সব ধর্মীয় মৌলবাদের সমালোচনা করছি। হিন্দু ধর্ম আর হিন্দু সমাজের নারীবিরোধী কুসংস্কারের সমালোচনা ভারতের পত্র পত্রিকাতেও লিখেছি। মানুষ লেখার প্রশংসা করেছে। কিন্তু আজ ‘ ‘করভা চৌত’ কি পুরুষেরা করে স্ত্রীর মঙ্গলের জন্য?’ এই প্রশ্নটি করার সঙ্গে সঙ্গে হাজারো মানুষ পঙ্গপালের মতো ঘিরে ধরে আমাকে, গালিগালিতে ভাসিয়ে ফেলে, ভারত থেকে যেন দূর হয়ে যাই হুমকি দেয়। এ এক নতুন ভারত। কল্পনার অতীত এক ভারত। অনেকের আচরণ। সত্যি বলতে কী, মুসলমান মৌলবাদিদের মত। চরম অসহিষ্ণু ।

আমি হিন্দু রাষ্ট্র ভারতের কথা ভাবি। ওই ভারতে কি সব উদারপন্থী এবং কট্টরপন্থী হিন্দু সুখে শান্তিতে বাস করতে পারবেন? ছোট জাত, বড় জাতে কোনও অসন্তোষ থাকবে না, নারী পুরুষে কোনো বৈষম্য? শুধু হিন্দুদের জন্য রাষ্ট্র! হতেই পারে। ইহুদিরা যেমন শুধু ইহুদিদের জন্য একটা দেশ বানিয়ে নিয়েছে, তেমন শুধু হিন্দুদের জন্য হতেই পারে একটি দেশ।

হিন্দু রাষ্ট্র থেকে আমাকেও বিদেয় নিতে হবে। কারণ আমি তো হিন্দু হতে যাবো না। আমি নাস্তিক, মানববাদ আমার ধর্ম। এটি নিয়েই আমি থাকবো। গৌরি লঙ্কেশ বোধ হয় মানববাদি ছিলেন, তিনিও তো হিন্দু রাষ্ট্রের জন্য যোগ্য ছিলেন না, আমিও যোগ্য নই।

তবে সবার মঙ্গল চাই আমি। ইহুদি রাষ্ট্রে ইহুদিরা ভালো থাকুক, হিন্দু রাষ্ট্রে হিন্দুরা ভালো থাকুক। মুসলমানের দেশে মুসলমানেরা ভালো থাকুক। আমি যেখানেই থাকি, থাকবো ব্রহ্মান্ডকে আমার পৃথিবী ভেবে, এই গ্যালাক্সিকে আমার দেশ ভেবে, সৌর জগতকে গ্রাম ভেবে, আর পৃথিবীকে আমার ঘর ভেবে। ধর্মে নয়, বিজ্ঞানে বিশ্বাস করা, কুসংস্কারে নয়, বিবর্তনে বিশ্বাস করা, মানুষকে হিন্দু মুসলিম খ্রিস্টান বৌদ্ধ ইহুদি না ভেবে মানুষ বলে মনে করা, ধর্মীয় বা অধর্মীয় কোনও জাতীয়তাবাদে বিশ্বাস না করা মানুষটি যেখানেই বাঁচি, বা যতদিনই বাঁচি, নিজের সততা আর সাহসটাকে মরতে দেব না।

-ফেসবুক থেকে সংগৃহিত

সর্বশেষ সংবাদ

একবার ভেবে দেখবেন কী !

কনস্টেবল স্বাস্থ্য পরীক্ষায় ৩৮৬ জনের বিপরীতে ৭৫৩ জন উত্তীর্ণ : বৃহস্পতিবার লিখিত পরীক্ষা

একটি সাদা কাফনের সফর নামা – (৭ম পর্ব)

হোপ ফাউন্ডেশনের ফিস্টুলা সেন্টারের অনুমোদনপত্র হস্তান্তর করলো কউক

অপরাধ দমনে শ্রেষ্ট অফিসার চকরিয়া থানার এএসআই আকবর মিয়া

জেলা মৎস্যজীবি শ্রমিকলীগের কমিটি গঠন

চকরিয়ায় আন্তর্জাতিক মাদক বিরোধী দিবস পালিত

সন্ত্রাসীর সঙ্গে যুদ্ধ করেও স্বামীকে বাঁচাতে পারলেন না স্ত্রী

বিশ্ব বিবেক নাড়িয়ে দেওয়া আরেকটি ছবি

মাদক ঠেকাতে পাড়া-মহল্লায় প্রচারণা, ঘরে ঘরে হুশিয়ারি

‘ঈদগাহ উপজেলা’ গঠন প্রক্রিয়া শুরু

মাদকের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে : ডিসি কামাল

হ্নীলায় রাশেদ, ফাঁসিয়াখালীতে গিয়াস ও বড়ঘোপে কালাম মেম্বার

কক্সবাজারে তিন দিনব্যাপী কৃষি ও প্রযুক্তি মেলা সম্পন্ন

নাইক্ষ্যংছড়িতে উপজেলা পর্যায়ে ক্ষুদ্রঋণ কর্মসূচি বাস্তবায়নে প্রশিক্ষণ কর্মশালা

পারিবারিক সু-শিক্ষাই পারে মাদকমুক্ত সমাজ গড়তে

উখিয়ায় ৩ দিন ব্যাপী দূযোর্গ বিষয়ক প্রশিক্ষন কর্মশালা

নাইক্ষ্যংছড়ি-রামুতে মাদক মুক্তির অঙ্গিকার

ইসলামাবাদে মসজিদের দোকান দখল

বৃক্ষরোপণ আন্দোলনে অংশগ্রহণ করে দেশকে সবুজ দেশে পরিণত করতে হবে’