এম.মনছুর আলম,চকরিয়া:
কক্সবাজারের চকরিয়ায় দুর্বৃত্তরা হামলা চালিয়ে সীরাত মাহফিলে দাওয়াতে আসা মৌলানা ছলিম উল্লাহ (৩৫) নামের এক বক্তাকে বেদড়ক পিটিয়ে গুরুতর আহত করা হয়েছে।১৭জানুয়ারী বুধবার বিকেল সাড়ে ৪টার সময় উপজেলার বিএমচর ইউনিয়নের ৪নম্বর ওয়ার্ডের পরিষদ সংলগ্ন এলাকায় মর্মান্তিত এ ঘটনা ঘটে।আহত বক্তা সাতকানিয়া উপজেলার কেরানিহাটস্থ এডভোকেট কাসিম আলী ফাউন্ডেশনের পরিচালক,নানুপুকুর শাহী জামে মসজিদের খতিব ও বিএমচর দক্ষিণ বহদ্দার কাটা এলাকার হাফেজ নুরুল ইসলামের পুত্র।
স্থানীয় ও অভিযোগ সুত্রে জানাগেছে,উপজেলার বিএমচর ইউনিয়ন পরিষদের মাঠে বুধবার বিকালে স্থানীয় তরুণ যুবক ও মাদ্রাসা পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা ইসলামী সংগঠনের ব্যানারে প্রতি বছর সীরাত মাহফিল করে আসছিল।এ বছরেও ওই সংগঠনের নামে তাফসীরুল কোরআন মাহফিল অনুষ্টিত হয়।মাহফিলের পাশ্বোক্ত রাস্তার ধারে বুধবার বিকালে দক্ষিণ বহদ্দার কাটা এলাকার হাফেজ নুরুল ইসলামের পুত্র নাজেম উদ্দিনের সাথে একই এলাকার নজির আহমদের পুত্র হাসান আলীর সাথে পূর্ব শত্রুতার জেরে ও বসতভিটা জায়গা বিরোধ নিয়ে চরম বাকবিতণ্ডা ও তর্কাতর্কি সৃষ্টি হয়।ঘটনাটি নিয়ে এলাকায় প্রায় আধা ঘন্টা ধরে ব্যাপক ঘোলাটে পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে এক পর্যায়ে স্থানীয় লোকজন এসে ঘটনাটি ধামাচাপা দেন।
আহত ভাই নাজেম উদ্দিন বলেন,ঘটনার খানিকটা পরে তাফসিরুল কোরআন মাহফিলে তাফসির করার জন্য সিএনজিযোগে মাহফিলে আসেন আমার ছোট ভাই কেরানিহাটস্থ এডভোকেট কাসিম আলী ফাউন্ডেশনের পরিচালক ও নানুপুকুর শাহী জামে মসজিদের খতিব হাফেজ মৌলানা ছলিম উল্লাহ।তিনি গাড়ী থেকে নামার সাথে সাথে দক্ষিণ বহদ্দার কাটা এলাকার মো:জকরিয়া পুত্র রুহুল আমিন,নজির আহমদের পুত্র হাসান আলী ও মো:জকরিয়াসহ ৫/৬দুর্বৃত্ত অতর্কিত ভাবে তাফসির মাহফিলে আসা আগত বক্তা হাফেজ ছলিমকে বেদড়ক মারধর করে গুরুতর আহত করে মাঠিতে ফেলে রাখেন। স্থানীয় লোকজন ও পরিবারের সদস্যরা এগিয়ে এসে আহত বক্তাকে উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।এ ঘটনা নিয়ে মামলার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে বলে আহত ভাই জানান।
এ ব্যাপারে চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি)মো.বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরীর কাছে হানতে চাইলে তিনি বলেন,ঘটনার বিষয়টি কেউ আমাকে অবহিত করেনি।অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক আইনগত ভাবে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •