সংবাদদাতা:
বৃহত্তর রুমালিয়ারছড়া পিটিআই মাঠ রক্ষার দাবীতে বিক্ষোভ করেছে জেলার বৃহৎ সামাজিক আন্দোলন সেভ দ্যা নেচার অব বাংলাদেশ।
১৪ জানুয়ারী সংগঠনটির জেলা শাখার সভাপতি নাজমুল হক বাবুর সভাপতিত্বে ও জেলা সাধারণ সম্পাদক রানা শর্মার সঞ্চালনায় ককসবাজার ট্যাকনিকাল স্কুল এন্ড কলেজের সামনে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্টিত ।
নেতৃবৃন্দ বলেন, সারা দেশে মাদকের আগ্রাসন রোধে ছাত্র ছাত্রীদের পড়া লেখার পাশাপাশি খেলাধুলার বিকল্প নেই, তাছাড়া মানসিক বিকাশ ও শারীরিক সুস্ততায় খেলাধুলা গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে। আর তাই খেলাধুলা করার একমাত্র স্থান খেলার মাঠের চাহিদার অনুপাতে সংকট যখন চরমে তখনই ককসবাজার পৌরসভার রুমালিয়ারছড়া পি টি আই মাঠে একের পর এক চলছে খেলার মাঠ ধ্বংসের মহোৎসব।
বক্তারা বলেন, বিগত সময়ে দুবার মাঠের মূল অংশে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস নিজেদের অফিস ও বই রাখার গুদাম নির্মাণ করে মাঠের বিশাল অংশ ধ্বংস করেছে। এবার পুনরায় তারা লীডারশীপ ট্রেনিং সেন্টার নির্মানের নামে মাঠের পশ্চিম পাশে পর্যাপ্ত জমি থাকা সত্বেও মূল মাঠের পশ্চিম পাশে ভবন নির্মানের জন্য ইতিমধ্যে বিশাল অংশ টিনের সীমানা প্রাচীর নির্মান করা হয়েছে।
১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের প্রাক্যালে ককসবাজারে মুজিব বাহীনির গঠন পরবর্তী মুক্তিযোদ্ধাদের ট্রেনিং শুরু করা হয়েছিল পিটিআই মাঠে। আর সেই স্মৃতিবিজড়িত মাঠ আজ ধ্বংসের দ্বার প্রান্তে। আর তাই এই শতবর্ষী খেলার মাঠ রক্ষায় ককসবাজারের সর্বস্তরের শ্রেনী পেশার মানুষ সম্মিলিত ভাবে রাজপথে নেমে এসেছে।
মানববন্ধনে সেভ দ্যা নেচার অব বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসাইন রিয়াদ প্রধান অতিথির বক্তব্যে আন্দোলনের দিক নির্দেশনা ও কর্মসূচী ঘোষনা করে আগামী ৪৮ ঘন্টার মধ্যে খেলার মাঠে স্থাপিত সব ধরনের নির্মান সামগ্রী ও স্থাপনা সরিয়ে নিয়ে শিশুদের খেলাধুলার জন্য মাঠ অবমুক্ত করার দাবী জানান।
অন্যথায় সমগ্র ককসবাজার পৌরবাসীকে সাথে নিয়ে আন্দোলনের মাধ্যমে খেলার মাঠ রক্ষা করা হবে বলে হুঁশিয়ারী দেন।
মানববন্ধনের সাথে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন- দৈনিক ককসবাজারের পরিচালনা সম্পাদক মোহাম্মদ মুজিবুল ইসলাম, দৈনিক হিমছড়ির সম্পাদক হাসানুর রশিদ, ব্যারিস্টার আবুল আলা ছিদ্দিকী, ককসবাজার জেলা ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক মোর্শেদ হোসেন তানিম, জেলা কৃষকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক
সাবেক মেম্বার মোঃ শহীদুল্লাহ, বাঁচা মিয়ার ঘোনা সমাজ কমিটির সভাপতি আব্দুল লতিফ, সেভ দ্যা নেচার অব বাংলাদেশ ককসবাজার জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুজ্জামান সায়েম, মহেশখালী সমন্বয়ক নুরুল কাদের ও শহর শাখার সমন্বয়ক অন্তু ধর।
ককসবাজার জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক মিজানল ইসলাম, ৭ নং ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারন সম্পাদক ওমর ফারুক সোহাগ, জেলা নির্মান শ্রমিক উন্নয়ন সমিতির সহ সভাপতি মোহাম্মদ ছগির, জেলা ছাত্রলীগের নেতা নাজমুল হক শাকিল, মেহেদী হাসান ও ট্যাকনিকাল স্কুল এন্ড কলেজের ছাত্রলীগ নেতা ইসমাইল সোহাগ, সুমন, ফারিজ, বাকের , আলম, শ্রমিক নেতা সালেহ আহম্মদ সহ স্থানীয় সামাজিক ও পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
নেতৃবিন্দ বলেন, অপরিকল্পিত ভাবে খেলার মাঠ নষ্ট না করে মাঠের পশ্চিম পাশে পর্যাপ্ত জমি থাকা সত্বেও কেন মাঠে বহুতল ভবন নির্মান করছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর তা খতিয়ে দেখা উচিৎ। ককসবাজার শহরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এই মাঠ রক্ষায় প্রয়োজনে সকল পৌরবাসীকে সাথে নিয়ে দাবী আদায়ে রাজপথে নামতে বাধ্য হব যদি অবিলম্বে খেলার মাঠে ভবন নির্মান থেকে সংশ্লিষ্ট মহল সরে না আসে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •