সংবাদ বিজ্ঞপ্তি :

বাংলার লোকসঙ্গীতের সুর তথা ভাটার টানে নৌকা চলাকালীন মাঝিরা যে সুরে গান গাইত,সেই উজান বাওয়ার গানে প্রাণছোঁয়া সুরের সাথে স্বভাবসূলভ গায়কি ঢংয়ে কক্সবাজার মাতিয়ে গেলেন কিংবদন্তী কন্ঠশিল্পী মোস্তফা জামান আব্বাসী। হোক না বয়স একাশি। তাতে কী, একটানা প্রায় দুই ঘণ্টা

ভাওয়াইয়া,ভাটিয়ালি এবং পল্লীগীতির প্রাণছোঁয়া সুরের মূর্ছনা আর সুরের সুমধুর কম্পনে দর্শক ভক্তদের বিমোহিত করতে একটুকু কার্পন্য করেননি তিনি। প্রিয় নবীর শানে কবি নজরুলের সেই বিখ্যাত গান “আমার মুহাম্মদের নামের ধ্যান হৃদয়ে যার রয়” দিয়ে শুরু করে তিনি একে একে গাইলেন তাঁর বাবা আব্বাস উদ্দিনের গেয়ে যাওয়া হারানো দিনের গান এবং সবশেষে গাইলেন “কোন দিন আসিবেন বন্ধু কইয়া যাওরে”। সুরের নেশায় নিমগ্ন দর্শক-শ্রোতারাও মোস্তফা জামান আব্বাসীর এই একক সঙ্গীতের স্বরগ্রামের উঠানামার বিভিন্ন পর্যায়ে প্রাণ খুলে তাঁর সাথে কণ্ঠ মিলিয়েছেন নিজের অজান্তে। এমনই একটি মনকাড়া স্বদেশী সুরের আসর বসেছিল শনিবার সন্ধ্যায় কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে। অনুষ্ঠানের নাম ছিল ‘শিকড় সন্ধানী কাজী নজরুল ইসলাম ও সুরস¤্রাট আব্বাস উদ্দিন’।

এটি আয়োজন করেছেন ‘নজরুল-আব্বাস উদ্দিন সেন্টার কক্সবাজার’। অনুষ্ঠানের শুরুতে এই গুণী শিল্পীকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন অ্যাডভোকেট রমিজ আহমদ।

পরে শিল্পী মোস্তফা জামান আব্বাসীর হাত থেকে ফুল নেন নজরুল আব্বাস উদ্দিন সেন্টারের পরিচালকবৃন্দ। এতে সংক্ষিপ্ত আলোচনা ছাড়াও ছিল কক্সবাজারের স্থানীয় সঙ্গীত শিল্পীদের পরিবেশনায় নজরুল আব্বাস উদ্দিনের গান, আবৃত্তি ও কৌতুক। এতে অংশ নেন কক্সবাজারের কন্ঠশিল্পী যথাক্রমে অধ্যাপক ফরিদুল আলম, মোরশেদ উল্লাহ, নুরুল আলম হেলালী, সিরাজুল কবির, শামসুল আলম শ্রাবন, সাংবাদিক ছৈয়দ আলম, মোহাম্মদ আবদুল্লাহ, জয়নাল আবেদীন, আখেরুজ্জামান, সায়েদ বিন হেলালী, তামিম মোহাম্মদ, কাব্য, লাবিব, হামিম, ¯েœহা ও তাফহীমা মোহছেনা। ‘নজরুল-আব্বাস উদ্দিন সেন্টার কক্সবাজার’ এর সভাপতি অ্যাডভোকেট রমিজ আহমদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য দেন সেন্টারের নির্বাহী পরিচালক জি এ এম আশেক উল্লাহ। অনুষ্ঠান শেষে অতিথি শিল্পী ও আয়োজক প্রতিষ্ঠানের প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে বক্তব্য রাখেন জেলা পরিষদের সদস্য ও কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আলহাজ্ব শফিক মিয়া, কক্সবাজার পৌরসভা মেয়র সরওয়ার কামাল, কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সদস্য প্রকৌশলী বদিউল আলম, দৈনিক সৈকত সম্পাদক মাহবুবুর রহমান, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ মোঃ নাছির উদ্দিন ও রাজবিহারী চৌধুরী, অ্যাডভোকেট আকতার উদ্দিন হেলালী, অ্যাডভোকেট হোসাইন আহমদ আনসারী। সেন্টারের সভাপতি অ্যাডভোকেট রমিজ আমদের কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপনের মাধ্যমে এই মনোজ্ঞ সুরানুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •