ফরিদুল আলম দেওয়ান, মহেশখালী:
মহেশখালী চ্যানেলে ৮ জানুয়ারি সোমবার দুপুর ১২টায় ১১ জন পর্যটকবাহী এক স্পীড বোট দুর্ঘটনায় ২ শিশু সহ অাহত ৮ পর্যটক ও সাময়িক নিখোঁজ ২ যাত্রীকে জীবিত উদ্ধার করা হলেও দূর্ঘটনা কবলিত স্পীডবোট  চালক মোঃ অানাস প্রকাশ অানিসকে গতকাল মঙ্গলবার রাত ৯টা পর্যন্ত গত ২ দুদিনেও জীবিত বা মৃত উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। তার পারিবারিক উদ্যোগে অাত্নীয় স্বজন এখনও সাগরে ট্রলার নিয়ে তল্লাশী চালিয়ে যাচ্ছে।
নিখোঁজ চালক অানাস মহেশখালী পৌরসভার চর পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসর প্রাপ্ত শিক্ষক মৌঃ জমির উদ্দিনের পুত্র।
নিখোঁ চালক অানাসের মামা শাহাব উদ্দিন সিকদার জানান, সোমবার সকার ১১ টা ৫০মিনিট এর সময় কক্সবাজারের ৬নং ঘাট থেকে ১১জন যাত্রী নিয়ে আনাস তার স্পীড বোটটি মহেশখালীর উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। পথিমধ্যে বাঁকখালী নদীতে ড্রেজিং কাজে নোঙ্গর করে থাকা একটি ড্রেজার ট্রলির রশিতে আটকে স্পীড বোটটি ডুবে যায়। খবর পেয়ে কোস্টগার্ড, ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরী ও স্থানীয় জেলেরা উদ্ধার অভিযান চালিয়ে ৮ যাত্রীকে তাৎক্ষনিক অাহত অবস্থায় এবং নিখোঁজ ৩ যাত্রীকে পরে উদ্ধার করতে সক্ষম হলেও চালক আনাসকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।  উদ্ধার হওয়া যাত্রীরা ছিল ভারতীয় পর্যটক। এদের দু’জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন, ভারতের কলকতার বাসিন্দা মঞ্জু লাল ঘোষ (৫৮) ও বিধিকা মন্ডল (৪০)। তাদেরকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •