শাহেদ মিজান, সিবিএন:
দুর্ঘটনার ৭ ঘন্টা পেরিয়ে গেলেও এখনো খোঁজ মিলেনি নিখোঁজ স্পীডবোট চালক আনাসের। তিনি গোরকঘাটা সিকদার পাড়ার হেলাল উদ্দীনের পুত্র। তার খোঁজে এখনো উদ্ধার কার্যক্রম চালানো হচ্ছে।

সোমবার পৌনে ১২টায় কক্সবাজার-মহেশখালী নৌপথের বাঁকখালী মোহনায় ড্রেজারের সাথে ধাক্কা লেগে একটি স্পীডবোট ডুবে যায়। এতে দুই নারীসহ তিন ভারতীয় পর্যটক ও বোটের চালক নিখোঁজ হয়। পরে ভারতীয় পর্যটকদের জীবিত উদ্ধার করতে পারলেও দুর্ঘটনা ৭ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও খোঁজ মিলেনি চালক আনাসের। তার খোঁজে স্থানীয় প্রশাসনের সমন্বয়ে স্পীডবোট মালিক সমিতির পক্ষ থেকে সাগরে তল্লাশী চালানো হচ্ছে। একটি গামবোট ও কয়েকটি স্পীড বোট নিয়ে বেশকয়েকজন লোক এই তল্লাশী কার্যক্রম চালাচ্ছে।

প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল কালাম জানান, পর্যটকবাহী স্পীডবোটটি কক্সবাজার থেকে মহেশখালীর উদ্দেশ্য যাচ্ছিল। এক পর্যায়ে বাঁকখালী মোহনায় এসে সাগর থেকে বালু উত্তোলনরত একটি ড্রেজারের বোটি ধাক্কা খায়। এতে স্পীডবোটি উল্টে সকল যাত্রী নদীতে পড়ে যায়। এসময় অন্যবাটের লোকজন সাগরে পড়ে যাওয়া সাত পর্যটক যাত্রীকে তাৎক্ষণিক উদ্ধার করতে সক্ষম। তবে দুই নারীসহ অন্য তিন পর্যটক ও স্পীড বোটটির চালক আনিছ নিখোঁজ হয়। পরে উদ্ধারকারী বাহিনীর নিখোঁজ তিন ভারতীয় পর্যটককে মুমূর্ষু অবস্থায় করেন। তবে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত চালক আনাসের খোঁজ মিলেনি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •