ইলিশের নামে ক্রেতারা খাচ্ছেন বিষ!

ডেস্ক নিউজ:

দেখতে হুবহু ইলিশ মাছের মতোই। রাজধানীসহ সারাদেশে বিক্রেতারা পদ্মার ইলিশ বলে ক্রেতার কাছে চড়া দামে বিক্রি করছেন। বেশ বড় ও চকচকে রুপালি রং দেখে ক্রেতারাও খুশি মনে কিনে বাড়ি নিয়ে যাচ্ছেন। তবে রান্নার পর পদ্মার ইলিশের স্বাদ তো দূরের কথা খেতে একেবারেই বিস্বাদ, উটকো গন্ধ।

ক্রেতারা জানেন না ইলিশ মাছের নামে গাঁটের টাকা খরচ করে তারা কিনে খাচ্ছেন বিষ। দেশের বাজারে এ মাছটি চন্দনা বা চাদিনা নামে বিক্রি হচ্ছে। এক শ্রেণির মুনাফা লোভী ব্যবসায়ী সমুদ্র ও আকাশ পথে আমদানি করে প্রতিদিন দেশের বাজারে বিক্রির জন্য ইলিশ মাছের নামে নিয়ে আসছে বিষ।

বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের সদস্য (যুগ্ম সচিব) মাহবুব কবীর মিলন মঙ্গলবার নিজ দফতরে জাগো নিউজের সঙ্গে আলাপকালে জানান, হুবহু ইলিশ মাছের মতো দেখতে একই মাছ কলম্বো সাদ ও গিজার্ড সাদ নামে আমদানি করা হচ্ছে। দেশীয় বাজারে চান্দিনা বা চাদিনা নামে বিক্রি হওয়া এ দুটি মাছে জনস্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর হেভি মেটাল উপাদান পাওয়া গেছে। বাজার থেকে ক্রেতারা টাকা দিয়ে প্রকারান্তরে বিষ কিনে খাচ্ছেন।

তিনি জানান, স্বাভাবিক মাত্রায় মাছে (এমজি/কেজি) লেড এর পরিমাণ শূন্য দশমিক ৩ ভাগ হলেও ল্যাবরেটরির পরীক্ষায় ৫ গুণ বেশি সীসা (১ দশমিক ৫৫৯ ও ১ দশমিক ৬৯৯ (এমজি/কেজি) পাওয়া গেছে। এছাড়া দ্বিগুণের বেশি ক্যাডমিয়াম (সিডি) পাওয়া গেছে। তিনি জানান, মাছের নামে বিষ আমদানি বন্ধে আমদানিকৃত মাছের চালান ল্যাবরেটরি টেস্টের ফলাফল ছাড়া খালাস না করতে অনুরোধ জানিয়ে কাস্টমসকে চিঠি দিয়েছে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ (বাংলাদেশ ফুড সেইফটি অথরিটি)। আগামী দু’ একদিনের মধ্যে ল্যাবরেটরি চালান ছাড়া আমদানিকৃত মাছ খালাস বন্ধ হয়ে যাবে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মিয়ানমার, ফিলিপাইন ও ওমান থেকে আমদানিকৃত কথিত এ ইলিশ মাছ দেশের বাজারে আসছে। মিয়ানমার থেকে আনা মাছ টেকনাফে ভ্যাট কাষ্টমস্ কমিশনার কার্যালয় ও অন্যান্য দেশ থেকে আসা মাছ চট্টগ্রাম ও ঢাকা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়ে আসছে। বেশি মুনাফাজনক হওয়ায় এ মাছ দেদার আমদানি হচ্ছে। শুধু হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়ে প্রতি মাসে ১ টন মাছ আমদানি হচ্ছে।

বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, নববর্ষের প্রথম দিন নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ ল্যাবরেটরি টেস্ট ছাড়া মাছের চালান বন্ধ করার অনুরোধ জানিয়ে চট্টগ্রাম বন্দর, বিমানবন্দর ও টেকনাফে ভ্যাট কমিশনারকে চিঠি দেয়ার পর মৎস্য আমদানিকারকরা একাট্টা হয়ে মাঠে নেমেছে। নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের এ ধরনের চিঠি দেয়ার এখতিয়ার আছে কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মাহবুব কবির মিলন বলেন, খাদ্যে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে যেকোনো জনহিতকর সিদ্ধান্ত নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ নিতে পারে। সব সরকারি প্রতিষ্ঠানকে তাদের অনুরোধ আমলে নিয়ে কাজ করতে হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

প্লিজ ফেসবুক – তুমি মৃত্যুটাকে মিথ্যে প্রমাণ কর!

দুর্নীতির দায়ে সাবেক ইউএনও মামুনুর রশিদের ৮ বছরের কারাদণ্ড

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক কাজি মোঃ আবদুর রহমানকে টুয়াকের বিদায় সংবর্ধনা

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ধরে রাখার আহবান লুৎফুর রহমান কাজলের

চকরিয়ায় গরু চোর চক্রের সদস্য আটক

শহরের পূজামন্ডপ পরিদর্শনে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার

প্রথম আলো ও ডেইলী স্টারের মালিক লতিফুর রহমানকে দূদকে জিজ্ঞাসবাদ

সমুদ্র সৈকতে দেশের বৃহৎ প্রতিমা বিসর্জন শুক্রবার

পূজামন্ডপ পরিদর্শনে ইশতিয়াক আহমেদ জয়

শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষে লুৎফুর রহমান কাজলের শুভেচ্ছা বিনিময়

গর্জনিয়ায় বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ, যুবক কারাগারে

দুর্গোৎসবে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া উপহার বিতরণে অনিয়ম-স্বজনপ্রীতির অভিযোগ

পেকুয়ায় বনবিভাগের ৪ কর্মচারী বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি মামলা

ঈদগাঁওতে ২ গ্রামের সনাতন সম্প্রদায়ের হত দরিদ্ররা উপহার বঞ্চিত!

চট্টগ্রামে ওসি জসিমসহ ৬ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা

আকাশ আলোকিত করতে কৃত্রিম চাঁদ বানাচ্ছে চীন

নৌকা জয়ী হলে উন্নয়ন জোয়ারে ভাসবে গর্জনিয়া কচ্ছপিয়া- এমপি কমল

লামায় দু‘পক্ষের সংঘর্ষে আহত ২

চকরিয়ায় শারদৎসবে মেতে উঠেছে হিন্দু সম্প্রদায়

মাদক কারবারীদের বাসাবাড়ীতে বিশেষ অভিযান: এক জনের ৬ মাসের কারাদণ্ড