শাহেদ মিজান, সিবিএন:
কক্সবাজার শহরে দাপিয়ে বেড়ানো আরো নয়জন পেশাদার ছিনতাইকারীকে গ্রেফতার করেছে কক্সবাজার সদর মডেল থানা পুলিশ। বৃহস্পতিবার ভোর রাতে কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ রনজিত কুমার বড়–য়ার নেতৃত্বে পুলিশ শহরের কলাতলীস্থ চন্দ্রিমা মাঠ এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করেন। এসময় গ্রেফতার ছিনতাইকারীদের কাছ থেকে ছয়টি ছুরি, পাঁচটি মুখোশ ও সাতটি লোহার রড উদ্ধার করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতরা হলো- পেশকার পাড়ার আবদুল করিম এর ছেলে খালেকুজ্জামান ওরফে ছাহিল ওরফে ছানি (২০), মধ্যম বাহারছড়ার মৃত মোঃ হানিফ এর ছেলে নিহাত ওরফে নেহাত (২০), লাইট হাউজ পাড়ার শুক্কুর মিয়ার ছেলে মোঃ রুবেল (২২), বাহারছড়া এলাকার কেরামত আলীর ছেলে মহিউদ্দিন ওরফে বাপ্পা (২০), পেকুয়া থানার উলিদিয়া সবুজ বাজার এলাকার আবুল কাশেম প্রকাশ কসাই কাশেম এর ছেলে আকাশ (২০), বাদশা ঘোনার এলাকার নুর আলীর ছেলে আলী আকবর(২০), সৈকত পোষ্ট অফিস এলাকার আবদুছ সবুর এর ছেলে মিশাল ওরফে আবিদ (২০), ঝাউতলা গাড়ীর মাঠ এলাকার মৃত সেলিম এর ছেলে শাখাওয়াত হোসেন ওরফে হৃদয়(২০) এবং মৃত জামাল এর ছেলে শফিউল ইসলাম ওরফে শফি(১৯)।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ রনজিত কুমার বড়ুয়া জানান, তার নেতৃত্বে ইন্সপেক্টর (তদন্ত) কামরুল আজম, ইন্সপেক্টর মাইন উদ্দিন (অপারেশন), ইন্সপেক্টর আতিকুর রহমান, এসআই মোঃ খালেদ, এসআই দেবব্রত রায়, এসআই দীপক কুমার সিংহ, এএসআই প্রভাকর বড়ুয়া, এএসআই দেলোয়ার হোসেন, এএসআই মোঃ রাশেদ ও সঙ্গীয় অফিসার ফোর্স সহ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কক্সবাজার পৌরসভার কলাতলীস্থ হাইওয়ে রেস্ট হাউজ সংলগ্ন দক্ষিন পশ্চিমাংশে চন্দ্রিমা মাঠে যাওয়ার পথে রাস্তার পশ্চিম পাশে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে এসব ডাকাতদেও গ্রেফতরা করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে ছয়টি ছুরি, পাঁচটি মুখোশ ও সাতটি লোহার রড উদ্ধার করা হয়।

রনজিত কুমার বড়ুয়া বলেন, ধৃত ডাকাতদের বিরুদ্ধে ডাকাতি, ছিনতাই, দস্যুতার অভিযোগে একাধিক মামলা রয়েছে।
কক্সবাজার শহর ও শহরতলীর পর্যটকসহ সকল নাগরিকের নিরাপত্তা বিধানে পুলিশের বিভিন্ন টিমের এই অভিযান অব্যাহত আছে বলে জানান তিনি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •