ডেস্ক নিউজ: চট্টগ্রামে গোয়েন্দা পুলিশ ইয়াবা তৈরির কারখানায় অভিযান চালিয়ে ইয়াবা তৈরির দুইটি মেশিন, ২ লাখ ৫০ হাজার পিস ইয়াবা এবং ১০ লাখ পিস ইয়াবা তৈরির কাঁচামাল উদ্ধার করেছে।
এ ঘটনায় ৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

তারা হলেন চট্টগ্রাম জেলার রাউজান উপজেরার বিনাজুরী গ্রামের নারায়ন মজুমদারের পুত্র শ্যামল মজুমদার (৩৭)। তিনি নগরীর ডবলমুরিং বেপারী পাড়ার আবুল হোসেন সওদাগরের বাড়ির তৃতীয় তলার ভাড়াটিয়া।

চট্টগ্রাম জেলার লোহাগাড়া থানার মজিদের পাড়া পেশকার বাড়ির বশির আহম্মদের পুত্র আব্দুল্লাহ আল আমান (৩৪)। তিনি ডবলমুরিং বেপারী পাড়ার মজিদ মাঝির বাড়ির ভাড়াটিয়া।
কুমিল্লা জেলার ব্রাহ্মণ পাড়া জহুর আলী ভূইয়া বাড়ীর মৃত আমিনুল হকের পুত্র মো. মামুন হোসেন (৩২)। তিনি ডবলমুরিং মনছুরাবাদ বাই লেইনের সুমন ভিলার ভাড়িটিয়া।
চট্টগ্রাম জেলার লোহাগাড়া থানার জমিদার বাড়ির নছর উল্ল্যাহ স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা (২৭)। তিনি ডবমুরিং বেপারী পাড়ার আবুল হোসেন সওদাগরের ভাড়াটিয়া।

সিএমপি আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, মঙ্গলবার (২৬ ডিসেম্বর) দিনগত রাত ১১টার দিকে মহানগর গোয়েন্দা বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি-পশ্চিম) এএএম হুমায়ুন কবিরের নেতৃত্বে একটি দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ডবলমুরিং থানাধীন বেপারীপাড়া কমিশনার গলি আবুল হোসেন সওদাগরের পঞ্চম তলা বিল্ডিংয়ের তৃতীয় তলার মধ্যম ফ্ল্যাটে অভিযান পরিচালিত হয়। অভিযানে ২ লাখ ৫০ হাজার পিস ইয়াবা, তিনটি সাদা প্লাষ্টিকের বস্তায় পলিথিনে মোড়ানো লাল গোলাপী রংয়ের ইয়াবা তৈরীর কাঁচামাল (এ্যামফিটামিনযুক্ত পাউডার), তিনটি সাদা প্লাষ্টিকের বস্তায় পলিথিনে মোড়ানো সাদা রংয়ের ইয়াবা ট্যাবলেট তৈরীর পাউডার, ইয়াবা তৈরীর দুইটি মেশিন, ৪টি ইয়াবা তৈরীর ষ্টিলের ডাইস, ২টি প্রেশার মেশিন, ১টি ডিজিটাল স্কেল, ১টি সাদা জারে ইয়াবা তৈরীর কাজে ব্যবহৃত ৪ লিটার তরল গোলাপী রং উদ্ধার করা হয়।
গ্রেপ্তার হওয়া চারজন জিজ্ঞাসাবাদে জানান, তারা স্থানীয় বাজার থেকে বিভিন্ন কাঁচামাল সংগ্রহ করে মেশিনের মাধ্যমে ইয়াবা ট্যাবলেট তৈরী করে চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় বিক্রয় করে থাকে।

তাদের বিরুদ্ধে ডবলমুরিং থানায় মামলা দায়েক করা হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •