সিবিএন:
কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে বিশেষ প্রক্রিয়ায় জসিম উদ্দিন (২৩) নামের এক পাচারকারীর পায়ুপথ দিয়ে বের করে আনা হলো ২০০০ ইয়াবা। শনিবার (১৬ ডিসেম্বর) সকালে ইয়াবাগুলো বের করা হয়। একই দিন কক্সবাজার আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।
জসিম উদ্দিন টেকনাফের হোয়াইক্ষ্যং আমতলী এলাকার সুলতান আহমদের ছেলে। উদ্ধারকৃত ইয়াবাসমূহ সে পাচারের উদ্দেশ্যে গলধকরণ করে রেখেছিল। তাকে গত ১৪ ডিসেম্বর বিকালে কক্সবাজার বিমানবন্দর এলাকা থেকে আটক করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের চৌকষ অভিযানকারী দল।
ওই দিনই জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করানো হয় মাদক পাচারকারী জসিম উদ্দিনকে।
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর কক্সবাজার কার্যালয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে সে নিজেকে ইয়াবা পাচারকারী বলে স্বীকার করেছে।
আগেও বেশ কয়েকবার বিশেষ কৌশলে ইয়াবা পাচার করেছিল। ঢাকা ও চট্টগ্রামকেন্দ্রিক একটি মাদকচক্রের সঙ্গে তার ব্যবসা।
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর কক্সবাজার কার্যালয়ের পরিদর্শক ধনঞ্জয় চন্দ্র দেব নাথ জানান, পাচারের উদ্দেশ্যে ইয়াবার ৪০ টি পোটলা গলধকরণ করে রাখে।
বিশেষ সোর্সের দেয়া তথ্যে তাকে আটকের পর জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ১৬ ডিসেম্বর সকালে মলত্যাগের সময় ২০০০ ইয়াবা মলদ্বার দিয়ে বের হয়।
তিনি জানান, আটক পাচারকারীর বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট আইনে করা মামলায় কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •