জীবন থমকে গেছে রাখাইনে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের উত্তরের এক লাখ ৮০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গার জীবন থমকে গেছে বলে জানিয়েছে রেড ক্রসের আন্তর্জাতিক কমিটি। বুধবার রেড ক্রসের পক্ষ থেকে এ ধরনের মন্তব্য করা হয়।

চলতি বছরের ২৫ আগস্ট মিয়ানমার সেনাবাহনী ও পুলিশের বেশ কিছু তল্লাশি চৌকিতে হামলার অযুহাতে রোহিঙ্গা নিধন শুরু করে দেশটির সেনাবাহিনী। জীবন বাঁচাতে বাধ্য হয়ে ছয় লাখ ২৫ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে।

আইসিআরসির পরিচালক ডোমিনিক স্টিলহার্ট জানান, সেখানে এখনও উত্তেজনা বিরাজ করছে। রোহিঙ্গাদের দোকান খুলতে এবং বাজারে যেতে বাধা দিচ্ছে সংখ্যাগুরু বৌদ্ধরা।

২৫ আগস্টের পর থেকে শুরু হওয়া সংঘর্ষকে পাঠ্যপুস্তকে উল্লিখিত গণহত্যার উদাহরণের সঙ্গে তুলনা করেছে জাতিসংঘ। সংঘর্ষের মধ্যেই আইসিআরসি একমাত্র সংস্থা যারা রাখাইন রাজ্যে সাহায্য পাঠানোর জন্য কাজ করেছে।

এদিকে রোহিঙ্গা ফিরিয়ে নেয়ার ব্যাপারে চুক্তি স্বাক্ষর করেছে মিয়ানমার এবং বাংলাদেশ সরকার। সেই চুক্তি অনুসারে রোহিঙ্গা ফিরিয়ে নেয়ার পর আবারও সহিংসতার আশঙ্কা প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ।

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা বলছে, রাখাইন রাজ্যের পরিস্থিতি এখনও সঙ্কটাপন্ন। সে ক্ষেত্রে রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব ছাড়াই ফিরিয়ে নেয়ার ফল ভাল হবে না।

অবশ্য রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব দিয়ে ফিরিয়ে নেয়ার ব্যাপারে মিয়ানমারের পক্ষ থেকে কোনো প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়নি। জাতিসংঘের দাবি, আন্তর্জাতিক আইন অনুসরণ করে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে হবে। একই দাবি বাংলাদেশের পক্ষ থেকেও জানানো হয়েছে।

তবে সেসব দাবি উপেক্ষা করে মিয়ানমার বলছে, তারা দিনে তিনশ জনের বেশি করে ফিরিয়ে নিতে পারবে না। সেই হিসেবে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে পাঁচ বছরের বেশি সময় লেগে যেতে পারে।

রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়া হলেও তাদেরকে ঠিক কোথায় পুনর্বাসন করা হবে সে ব্যাপারেও স্পষ্ট করে কিছু জানা যায়নি। মিয়ানমার বলছে, কেবল বৈধ প্রমাণ সাপেক্ষে নিজেদের দেশের নাগরিকদের ফিরিয়ে নেয়া হবে।

যদিও বংশ পরম্পরায় বসবাস করে আসলেও রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের নাগরিক হিসেবে স্বীকৃতি পায়নি। তাছাড়া সহিংসতার মধ্যে রাখাইন ছেড়ে পালিয়ে আসা শরণার্থীদের কাছে তেমন নথিপত্রও নেই। সে কারণে বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন, রোহিঙ্গা ফেরানোর প্রক্রিয়া অনেকটাই জটিল হবে।

সর্বশেষ সংবাদ

শিক্ষার্থীদের উপস্থিতিতে শিক্ষকদের ধূমপানে নিষেধাজ্ঞা, পুরস্কারে বন্ধ ক্রোকারিজ

চৌধুরী পাড়া রাখাইন পল্লীতে বিরল প্রজাতির প্রাণী উদ্ধার

নাইক্ষ্যংছড়িতে প্রতিপক্ষের হামলায় উখিয়ার যুবক খুন

মোমবাতির আগুনে পুড়লো ৪টি বসতবাড়ি : ৪০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি

কক্সবাজার-চট্টগ্রাম সড়কে দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ

হোটেল সীগালে অগ্নি প্রতিরোধ, নির্বাপন ও চিকিৎসা বিষয়ক প্রশিক্ষণ

নাইক্ষ্যংছড়িতে ৫ কোটি ৭৭ লাখ টাকার উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করলেন বীর বাহাদুর

প্রেমিককে ভিডিও কলে রেখেই ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে পড়েন প্রেমিকা

‘২ বছরের মধ্যে কুতুবদিয়ায় জাতীয় গ্রীড থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত হবে’

ঈদগাঁওতে যুবলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা

সুপারবাগ: বাংলাদেশে আইসিইউ-তে রোগী মৃত্যুর বড় কারণ!

৪০ তম জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলায় কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের প্রথম স্থান অর্জন

পান-সিগারেট খেয়ে ক্লাসে যেতে পারবেন না শিক্ষকরা

যুবলীগ নেতাসহ দুই যুবককে ছুরিকাঘাত করলো কেরুনতলীর সন্ত্রাসীরা

বনানী কবরস্থানে জায়ানের দাফন সম্পন্ন

ঈদগাঁওতে পল্লীবিদ্যুতের ভেল্কিবাজিতে  জনজীবন অতিষ্ঠ

মহেশখালীতে প্রেমপ্রস্তাবে ব্যর্থ হয়ে তরুণীকে ধর্ষণের চেষ্টা ও হামলা আহত ২

সিএসবি সম্পাদক পলাশ বড়ুয়া’র জন্মদিন উদযাপন

ফোন চুরি যাওয়ায় সাংবাদিকদের আটকে রাখলেন শমী কায়সার!

টেকনাফে ইয়াবাসহ ৪ যুবক আটক