নাফনদীর ঢেউয়ের কাছে হেরে যাওয়া একজন ছৈয়দুল

হাবিব হাসান , রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে :

আজকে বন্ধু ইব্রাহীম এবং আমার কাজ ছিল বালুখালী রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পে। প্রায় ১.৫ কি:মি ক্যাম্পের ভেতর যাওয়ার পর রোহিঙ্গাদের একটি দোকানে আমরা বসলাম। হঠাৎ একজন রোহিঙ্গা শরণার্থী আমাদের পাশে এসে আমাদের কিছু একটা বলতে চাচ্ছিল। ওনাকে আমার পাশে বসালাম। ইব্রাহীম লোকটিকে বলল চাচা কেমন আছেন? লোকটির ভাল আছি বলার ধরনটিও ছিল অন্য রকম।
বৃদ্ধ লোকটির নাম ছৈয়দুল আলম (৭৩)। পূর্বে বাড়ি ছিল মায়ানমার (বার্মা) মন্ডুতে। চৌদ্দ বিগা জমির মালিক ছিলেন তিনি। এখন রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ছোট একটি বাড়িতে তার বাস। অামাদের ভাব জমে ওঠায়  ছৈয়দুল আলম  মনের সব কথা  বলতে লাগলেন। যেন এক বিশাল পাথর খন্ড শরীর থেকে নামানোর চেষ্টা করছেন।

বাংলাদেশে আসার সময় তার সাথে ছিল স্ত্রী, দুই মেয়ে, বড় মেয়ের জামাই এবং দুই নাতি। নয় দিন হাঁটার পর বাংলাদেশ সীমান্তে পৌছায় ছৈয়দুল আলমের পরিবার। নাফনদী পার হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে হবে তার পরিবারকে। পবিত্র ঈদুল আযহার দিন ভোর ছয়টায় তাঁর পরিবার নাফনদী পার হয়ে বাংলাদেশে আসবে। ছৈয়দুলের আশা ছিল যদি তাঁর পরিবার তাড়াতাড়ি নাফনদী পার করতে পারলে ঈদের নামাজটা  বাংলাদেশে পরবে। সেটা ছিল শুধু স্বপ্ন। নৌকায় তার পরিবারের সাত জন সদস্য সহ প্রায় চল্লিশ জন লোক ছিল। ভাগ্যের নির্মম পরিহাস নৌকাটি দশ-পনেরো মিনিট চলার পর নাফনদীর ঢেউয়ের কাছে হেরে যায়। ছৈয়দুল আলমের পরিবারের সব সদস্যসহ ঐ নৌকা ডুবে যায়। ঐ সময় ছৈয়দুল আলম এর কোলে ছিল তার ছোট নাতনী। মূহর্তের মধ্যে কে কোথায় চলে গেল বুঝতে পারেনি ছৈয়দুল। সে কথা বলতে না বলতেই চোখের জলে টলমল করছিল বৃদ্ধ ছৈয়দুলের চেহারা। জিজ্ঞাসা করলাম – তারপর কি হল ?
ডুবে যাওয়ার পর নাকি তার কোলে বসে থাকা নাতনীকে এক হাতে নিয়ে অনেকক্ষণ সাঁতার কাটেন তিনি। কিন্তু শক্তির কারণে নাতনীকে বেশীক্ষণ ধরে রাখতে পারেননি। একসময় নাতিকে হাত থেকে ছেড়ে দিতে বাধ্য হন।এর পর আর কিছু মনে নাই তার। পরে তিনি জানতে পারেন তাকে অন্য আরেকটি নৌকা মৃত মনে করে তুলে নেয়।  রাখে আল্লাহ মারে কে, ছৈয়দুল এখনো বেঁচে আছে কিন্তু পরিবারের কোন জীবিত সদস্যের সাথে তার আর দেখা হয়নি। ঐ ঘটনার তিনদিন পর তার বড় মেয়ের মরদেহ পাওয়া যায়। এর পর নাকি ছৈয়দুল একমাস নাফনদীর পাড়ে ছিল, যদি কারও লাশ পাওয়া যায় সে আশা নিয়ে। পরে দোকানদারের কাছে জানতে পারলাম কোন নতুন চেহারার মানুষ দেখলেই ছৈয়দুল তার মনের কষ্টের কথা বলে।
সৈয়দুল এখন শুধু একটা কথায় বলে যে, কখন তার মৃত্যু হবে । কখন এই কষ্টেভরা শূন্য জীবন থেকে মুক্তি পাবে।
এই বৃদ্ধ ছৈয়দুলের চোখের পানি দেখে তাকে শান্তনা দেওয়ার ভাষা হারিয়ে ফেলি আমরা।
এই রকম আরও অনেক ছৈয়দুল রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আছে, যারা তাদের সব সম্পত্তি টাকা পয়সা আত্মীয় স্বজন হারিয়ে নি:স্ব হয়ে  হাহাকার করছে।

হাবিব হাসান

কিন্তু সবচেয়ে কষ্টকর হচ্ছে,, টাকা-পয়সা, ধন-দৌলত একবার হারালে আবার পাওয়া যায়। কিন্তু জীবন চলে গেলে আর পাওয়া যায় না। সবকিছু হারানোর বেদনা নিয়ে ছৈয়দুলরা অপেক্ষায় আছে জীবনের অন্তিম মুহূর্তের , যেপারে গেলে নাফনদীর ঢেউয়ে হারিয়ে যাওয়াদের পাওয়া যাবে!

– ডিসেম্বর ০৬, ২০১৭

সর্বশেষ সংবাদ

কক্সবাজার সিটি কলেজে “চ্যারিটি কর্ণার” উদ্বোধন

জবানবন্দিতে পুলিশের শেখানো কথা বলেছি, বাবাকে মিন্নি

প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে ব্যারিস্টার সুমনের দায়েরকৃত মামলা খারিজ

প্রিয়ার ভয়ংকর মিথ্যাচার ,মার্কিন দূতাবাসের দুরভিসন্ধি প্রকাশ পেয়েছে : সজীব ওয়াজেদ জয়

মিন্নির জামিন নামঞ্জুর

রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে প্রিয়ার বিরুদ্ধে দুই মামলা

গজালিয়া সাতঘরিয়া পাড়ার গ্রামীন সড়কের বেহাল দশা : দেখার কেউ নেই

জজকোর্টের জারীকারক মনির আর নেই : রোববার জুহুরের পর জানাজা

‘ফুলটাইম’ রাজনীতি করবেন চিত্রনায়ক ফেরদৌস

টেকনাফে পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ইয়াবাকারবারি নিহত

পকেটে থাকা আগ্নেয়াস্ত্রে ঢাবিতে ছাত্রলীগ নেতা গুলিবিদ্ধ

গোমাতলীর ছুরত হাজী আর নেই

মস্কোয় হাজারো মানুষের বিক্ষোভ

এবার ঈদের আগেই খালেদা জিয়ার মুক্তি!

দেশদ্রোহী হিসেবে প্রিয়ার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে

উদ্দেশ্য খুঁজতে প্রিয়া সাহার কল রেকর্ড-ট্রাভেল হিস্ট্রি যাচাই

২,৯৬০টি ইয়াবা নিয়ে ধরা পড়লো রোহিঙ্গা নারী

প্রথম-লঘু অপরাধে শাস্তি নয়, ‘শিক্ষানবিশ আইন’ চূড়ান্ত

চকরিয়ায় পুলিশের হাতে ইয়াবাসহ ২ পাচারকারী আটক

বদলে গেলো কক্সবাজার সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসা পদ্ধতি