সিবিএন:

মিথ্যা কথার স্ট্যান্ডবাজি ছাড়া বিএনপির আর কোনো পুঁজি নেই। দলটি আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে না এলে এর পরিণতি মুসলিম লীগের মতো হবে। বললেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।
সোমবার সকালে কক্সবাজারের অভিজাত এক হোটেলে বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান থেকে রোহিঙ্গাদের জন্য ত্রাণ ও নগদ টাকা গ্রহণ শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে তিনি আলাপকালে এসব কথা বলেন।
ওবায়দুল কাদের বলেন, তারা (বিএনপি) নিজেরাও জানে, আগামী নির্বাচনে না এলে মুসলিম লীগের মতো করুণ পরিণতি তাদের জন্য অপেক্ষা করছে।
ওবায়দুল কাদের রোহিঙ্গা বিষয়ে বলেন, রোহিঙ্গাদের কারণে বর্তমানে কক্সবাজারে খুবই অস্বস্তিকর অবস্থা তৈরি হয়েছে। কক্সবাজারের অর্থনীতি-পরিবেশ-পর্যটন ও প্রকৃতির ওপর প্রচণ্ড চাপ বেড়েছে। ছোট এই শহরটিতে দীর্ঘদিন রোহিঙ্গাদের চাপ সহ্য করা সম্ভব নয়। তাই দ্রুততম সময়ের মধ্যে তাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো সম্ভব না হলে রোহিঙ্গাদের কিছু অংশকে ভাসানচরে স্থানান্তরের ব্যবস্থা করবে সরকার।
আওয়ামী লীগের এ নেতা আরো বলেন, শেখ হাসিনার সরকার দেশে জঙ্গিবাদকে যেভাবে মোকাবেলা করে জঙ্গি সমস্যার সমাধান করেছে, ঠিক সেভাবেই রোহিঙ্গা সঙ্কটও মোকাবেলা করে তা সমাধান করবে। দেশের একটি দল ছাড়া বিশ্বের সবাই রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশ সরকারের প্রশংসা করছে।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী আরো বলেন, পাহাড়ে শান্তি ফেরাতেই আওয়ামী লীগ সরকার শান্তিচুক্তি করেছিল। এই চুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়নে পাহাড়িদের নেতা জনসংহতি সমিতির চেয়ারম্যান সন্তু লারমার সঙ্গে বৈঠকে বসা হবে।
এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন, পুলিশ সুপার ড. একেএম ইকবাল হোসেন, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম, সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান চেয়ারম্যান।
এর আগে সামশুল হক চৌধুরী এমপি ২০ লাখ, এরামুল করিম চৌধুরী এমপি ২০ লাখ, আওয়ামী লীগের সদস্য খন্দকার রুহুল আমিন ১০ লাখ, ডব্লিওটিসির পক্ষ থেকে ২০ লাখ, হাতিয়ার আওয়ামী লীগ নেতা মাহমুদ আলী রাতুলের পক্ষ থেকে ১০ লাখ ও এয়ারবেল গ্রুপের পক্ষ থেকে ৪ লাখ টাকার ওষুধ সামগ্রী গ্রহণ করেন তিনি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •