আরাকান রোহিঙ্গা ইউনিয়নের বিবৃতি : সার্বিক সমাধানের দাবি

এস, এম, মহিউদ্দীন( মুকুল)

আরাকান রোহিঙ্গা ইউনিয়ন ওআইসি’র (ইসলামি সহযোগিতা সংস্থা) প্রস্তাবের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত এবং স্বীকৃত সংস্থা (OIC প্রস্তাব নং OIC-CFM NO 4/37-M.M)। এটি ৬১টি রোহিঙ্গা সংগঠনের কেন্দ্রীয় সংস্থা এবং যুক্তরাষ্ট্রে রেজিস্ট্রিকৃত।
এ সংগঠনের পক্ষ থেকে ড. ওয়াকার উদ্দিন (সূত্র নং [email protected] arunion.org) বিশ্ব সম্প্রদায়ের কাছে যে আবেদন জানিয়েছেন এর সারসংক্ষেপ নিম্নে উল্লেখ করা হলো।

বিবৃতিতে আরাকানের মংডু, বুথিডং, রাথারডং ও অন্যান্য এলাকায় সামরিক বাহিনী, পুলিশ ও বিজিপির ছত্রছায়ায় বৌদ্ধ রাখাইন মিলিশিয়া যে ধ্বংসলীলা ও গণহত্যা চালিয়েছে তা উল্লেখ করা হয়। তারা বলেন যে, মিয়ানমার সরকারেরঅধিকার রয়েছে সন্ত্রাসী অস্ত্রধারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার। তবে বেসামরিক নাগরিকদের রক্ষা করা ও তাদের দায়িত্ব। তাদের দাবিনামা নিম্নরূপ-
(১) মিয়ানমার সরকারকে অবিলম্বে সাধারণ জনগণের বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান বন্ধ করতে হবে।
(২) অবিলম্বে বাস্তুচ্যুতদের নিরাপদে ঘরের ফিরে আসার ব্যবস্থা করতে হবে। (৩) কফি আনান কমিশনের রিপোর্ট কার্যকর করতে হবে, যাতে রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব দেয়ার এবং নাগরিক অধিকার নিশ্চিত করার কথা বলা হয়েছে। (৪) সবআন্তর্জাতিক সংগঠন এবং মিডিয়াকে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় আসতে দিতে হবে। (৫) সন্ত্রাসী রাখাইন মিলিশিয়া গ্রুপগুলোকে ট্রেনিং দেয়া, অস্ত্র দেয়া, সংগঠিত করা বন্ধ করতে হবে। (৬) রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার বন্ধ করতে হবে। মিয়ানমারেরসরকারসমর্থিত গোষ্ঠীই রোহিঙ্গা গ্রামে ও শহরে আগুন দিয়ে বিশ্ব জনমতকে বিভ্রান্ত করার জন্য অপপ্রচার করছে।

আরাকান রোহিঙ্গা ইউনিয়ন বিশ্ব সম্প্রদায়ের কাছে আরো দাবি জানায়-
(১) মিয়ানমার সরকারকে চাপ দিতে হবে যেন তারা রোহিঙ্গা সংখ্যালঘুদের জাতিগতভাবে নির্মূল করার উদ্যোগে বন্ধ করে। (২) এ সমস্যা নিয়ে যেন জাতিসঙ্ঘ নিরাপত্তা পরিষদে আলোচনা করে মিয়ানমারের রাখাইনে সংখ্যালঘুদের জন্য‘নিরাপদ অঞ্চল (safe zone)’ গঠন করা হয়। (৩) ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন, ওআইসি, যুক্তরাষ্ট্র, জাতিসঙ্ঘ সাধারণ পরিষদ, নিরাপত্তা পরিষদ এবং মানবাধিকার সংস্থাগুলো যেন রোহিঙ্গাদের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করে। (৪) মিয়ানমারেরবিরুদ্ধে Sanction কিছু বিষয় নিষিদ্ধ করা বা পুনর্বহাল করা হোক।
আমি মনে করি যে, আরাকান রোহিঙ্গা ইউনিয়ন (ARU) খুবই যুক্তিসঙ্গত দাবি জানিয়েছে। সে সব দাবি গ্রহণ করা উচিত।

বিশ্ববাসী যেসব বিষয় দাবি করছে তা হচ্ছে (১) রোহিঙ্গা রিফিউজিদের এখন আশ্রয় দেয়া, তাদের সাময়িকভাবে থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করা, (২) তাদের অবিলম্বে মিয়ানমারের নাগরিকত্ব দেয়া, (৩) তাদের জন্য মিয়ানমারের রাখাইন স্টেটেনিরাপদ আশ্রয় অঞ্চল (Safe Zone) সৃষ্টি করা, তারপর তাদের স্থায়ী পুনর্বাসন করা, (৪) মিয়ানমারের ঘটনাগুলোর আন্তর্জাতিক তদন্ত এবং দোষী ব্যক্তিদের শাস্তি দেয়া।

লেখক :এস,এম, মহিউদ্দীন(মুকুল)সম্পাদক নাইক্ষ্যংছড়ী নিউজডটকম

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

টেকনাফ উপজেলা যুবদলের কমিটি গঠিত

সাপ্তাহিক মাতামুহুরী’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন

টেকনাফে র‌্যাবের পৃথক অভিযানে বিদেশী মদ বিয়ারসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক

টেকনাফে হত্যা ও মানব পাচার মামলার আসামী গ্রেফতার

চকরিয়ায় ছুরিকাঘাতে যুবক খুন

খালেকুজ্জামান বেঁচে আছেন জনতার মাঝে

মরহুম এড. খালেকুজ্জামান স্মরণে ৫ম দিনেও বিভিন্ন মসজিদে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

`রাঙামাটির রূপ দিনদিন হারিয়ে যেতে চলেছে’

বান্দরবানে শ্রেষ্ঠ উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা কালাম হোসেন

বর্তমান সরকারই পাহাড়ের মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে : বীর বাহাদুর এমপি

কুতুবদিয়ায় শহীদ উদ্দিন ছোটনসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে ফের গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

লামায় ক্যাম্প প্রত্যাহার ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদ ও রাজার সনদ বাতিল দাবীতে মানববন্ধন

লবণ আমদানি হবেনা, মজুদদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা -শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু

১ লাখ ৬০ হাজার মেট্রিকটন লবণ উদ্বৃত্ত, তবু আমদানির চক্রান্ত

ঈদগাঁও থেকে দোকানদার অপহরণঃ ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবী!

‘হিংসাবিহীন মানুষ পাওয়া কঠিন’

যখন দশম শ্রেণির ছাত্রী এই সময়ের পিয়া

উখিয়ায় অসহায় মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন এসিল্যান্ড একরামুল ছিদ্দিক

কক্সবাজার শহরে বেড়েই চলছে চুরি ছিনতাই

হোটেল সী-গালের সংবর্ধনায় সিক্ত মেয়র মুজিবুর রহমান