বান্দরবানে শান্তি চুক্তির ২০তম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে আনন্দ র‌্যালী

নুরুল কবির বান্দরবান :

পার্বত্য শান্তির চুক্তির ২০ বছর পূর্তী উপলক্ষে বান্দরবানে প্রথমবারের মতো নানা কর্মসূচী শুরু হয়েছে। এসব কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে আনন্দ র‌্যালী, মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জলন, কেক কাটা, আলোচনা সভা, বিনামূল্যে চিকিৎসা শিবির, শীত বস্ত্র বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। বৃহস্পতিবার সকালে এ উপলক্ষে জেলা প্রশাসক কার্যালয় প্রাঙ্গণ থেকে একটি বর্নাঢ্য র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালীটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলো প্রদক্ষিণ করে। র‌্যালীটিতে বান্দরবানের ১১টি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীসহ মোট ১২ সম্প্রদায়ের নারী পুরুষ নানা রঙ্গের পোষাক পরে অংশ গ্রহণ করেন। এছাড়া বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র ছাত্রী র‌্যালীতে অংশ নেয়। পরে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্প্রীতির মঞ্চে মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জলন, কেক কাটা, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বান্দরবান জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা। এসময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের যুগ্ন সচিব মো. শওকত আলী, ডিজিএফআই’র অধিনায়ক লে. কর্নেল আরিফুজ্জামান, পুলিশ সুপার সজ্ঞিত কুমার রায়, আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য শফিকুর রহমান, পৌর মেয়র মো. ইসলাম বেবী, জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক থানজামা লুসাই ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী এর পরিচালক মংনু চিং প্রমুখ। এদিকে, পাবত্য শান্তি চুক্তির বিশ বছরপূর্তী উপলক্ষে আগামী ২ ডিসেম্বর শহরের রাজার মাঠে সেনা রিজিয়নের উদ্যোগে দু দিন ব্যাপী বিভিন্ন কমসুচি পালন করা হবে। এ নিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে সেনা রিজিয়নে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্টিত হয়। সেনা রিজিয়নের জিএসটু মেজর আবু সাইদ মো: মেহেদী হাসান জানান, ২ডিসেম্বর সকালে গরীব দুঃস্থদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ ও বিনামূল্যে চিকিৎসা শিবিরের ও পরের দিন রোববার বিকালে জেলা স্টেডিয়ামে প্রীতি ফুটবল ম্যাচ এবং সন্ধ্যায় রাজার মাঠে কনসেট অনুষ্টানের হবে।

উল্লেখ, ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর তৎকালীন আওয়ামীলীগ সরকারের সাথে পাহাড়ের আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল জন সংহতি সমিতির (জেএসএস) মধ্যে পার্বত্য চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এর ফলে পাহাড়ে দীর্ঘ দুই দশক ধরে চলা শান্তি বাহিনীর সংঘর্ষ হানাহানি বন্ধ হয়। চুক্তি স্বাক্ষরের দীর্ঘ ১৯ বছর পেরিয়ে গেছে। জেএসএস নেতৃবৃন্দ বলছেন চুক্তিটি রাজনৈতিক হলেও বিভিন্ন সরকার চুক্তির বাস্তবায়ন নিয়ে গড়ি মসি করেছে। দীর্ঘ সময়েও চুক্তির মৌলিক ও গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো বান্তবায়িত হয়নি। ফলে পাহাড়ে ভূমি সমস্যাসহ নানা সমস্যাগুলো ক্রমেই বাড়ছে। বাড়ছে জটিলতা। তবে সরকারি দল আওয়ামী লীগের নেতারা বলছেন চুক্তির গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো এবং বেশির ভাগ বিষয়ই বান্তবায়িত হয়েছে। বরং জেএসএসের অসহযোগিতার কারনে চুক্তির অন্যান্য বিষয়গুলো বাস্তবান করা যাচ্ছে না।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

কোটালীপাড়ায় নিজ জমিতে অবরুদ্ধ ৬১ পরিবার : মই বেয়ে যাদের যাতায়াত

জামায়াত নেতা শামসুল ইসলামকে গ্রেফতারের প্রতিবাদ ও মুক্তি দাবী

দুর্ঘটনারোধে সচেতনতার বিকল্প নেই : ইলিয়াস কাঞ্চন

Google looking to future after 20 years of search

ইবাদত-বন্দেগিতে মানুষ যে ভুল করে

শেখ হাসিনাকে পাল্টা চ্যালেঞ্জ বি. চৌধুরীর

পর্যটকবান্ধব আদর্শ রাঙামাটি শহর গড়তে জেলা প্রশাসনের অভিযান চলছে

জামায়াত নেতা শামসুল ইসলামকে গ্রেফতারের প্রতিবাদ ও মুক্তি দাবী

ঈদগাঁও থেকে ৭ হাজার ইয়াবাসহ আটক ৩, বাস জব্দ

জুতায় লুকিয়ে পাচারের পথে ৩১০০ ইয়াবাসহ যুবক আটক

জাতিসংঘের হস্তক্ষেপের কোনও অধিকার নেই: মিয়ানমার সেনাপ্রধান

বৃহস্পতিবার ঢাকায় বিএনপির সমাবেশ

দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করা কি শুধু ইসলামেই নিষেধ?

খুটাখালীর ব্যবসায়ী নুরুল ইসলামের ইন্তেকাল

যেভাবে ব্রাশ করলে দাঁতের ক্ষতি হয়

আমি সৌভাগ্যবান যে তোমাকে পেয়েছি : বিবাহবার্ষিকীতে মুশফিক

মালদ্বীপের বিতর্কিত নির্বাচনে বিরোধী নেতার জয়

ইমরান খানের স্পর্ধা আর মেধায় বিস্মিত মোদি

ফেসবুক লিডারশিপ প্রোগ্রামে নির্বাচিত হলেন বাংলাদেশের রাজীব আহমেদ

কঠিন প্রতিশোধের হুমকি ইরানের