চুক্তিতে আতঙ্কিত রোহিঙ্গারা!

বাংলাদেশ প্রতিদিন:

উখিয়ার বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প-২-এর একটি ব্লকের মাঝি মুস্তাকিম উল্লাহ। তার অধীনে রয়েছে ১২০টি রোহিঙ্গা তাঁবু। এসব তাঁবুতে আছে প্রায় ৭০০ রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশু। এর মধ্যে গর্ভবতী মহিলা আছেন ৩৮ জন, শারীরিক প্রতিবন্ধী দুজন এবং রয়েছেন মিয়ানমার সেনা সদস্য দ্বারা ধর্ষিতা দুজন নারীও। টেকনাফ-কক্সবাজার সড়ক লাগোয়া এই তাঁবুগুলোয় ত্রাণের তেমন ঘাটতি নেই। তাই এখন অভাবও এদের তাড়া করছে না। কিন্তু কয়েক দিন ধরে এদের অনেকের ভিতর একটি বিষয় বেশ তাড়া দিচ্ছে, আর তা হচ্ছে আতঙ্ক— মিয়ানমারে তাদের ফিরিয়ে নেওয়া চুক্তির আতঙ্ক! গত বৃহস্পতিবার মিয়ানমার সরকারের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের একটি সমঝোতা হয়েছে— দুই মাসের মধ্যে রোহিঙ্গা ফেরত নেওয়া শুরু করবে মিয়ানমার। এর পর থেকেই জানা-অজানা আতঙ্ক ভর করেছে রোহিঙ্গাদের মধ্যে।
তারা বলছেন, ‘এখানে কষ্টে আছি। তবু বেঁচে তো আছি। দেশে গেলে বেঁচে থাকতে পারব তো!’

মাঝি মুস্তাকিম উল্লাহ বলেন, ‘এখানকার অধিকাংশ রোহিঙ্গা নিজ দেশে ফিরে যেতে চায়, নিজেদের বসতভিটায় স্বাধীনভাবে নিঃশ্বাস ফেলতে চায়।

কিন্তু মিয়ানমার মিলিটারি যদি আবার নির্যাতন শুরু করে, আবার যদি আমাদের বাড়ি-ঘর জ্বালিয়ে দেয় তাহলে কী হবে। যদি মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশ আবার সন্ত্রাসী-জঙ্গি দমনের নামে নারী নির্যাতন, ধ্বংসাত্মক তাণ্ডব চালায় তাহলে আমরা কোথায় যাব?’
এই কথা শুধু একজন মুস্তাকিমের নয়, মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা এখন সে দেশে ফিরে যাওয়ার আতঙ্কে রয়েছেন। তারা তাদের নিরাপত্তা নিয়ে যেমন আতঙ্কে, তেমন তাদের ভিটেমাটি ফেরত পাবেন কিনা, তা নিয়েও আশঙ্কায় রয়েছেন। বালুখালী ক্যাম্পেই কথা হয় মিয়ানমারের বুসিদংয়ের মেরুল্যাপাড়া থেকে আসা গর্ভবতী নুরখিস বেগমের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আঁরা এতে অত বেশি ভালা নাই, ছোড় ছোড় তাঁবু ঘরত থাইকতে আঁরার বেশ কষ্ট অয়। কিন্তু এড়ে তো পরান লই বাঁচি আছি। যদি চলি যাই তো অয়, আঁরা পোয়াইন্দে লই বাঁচি থাহিত পাইরগুমনি? (আমরা এখানে খুব বেশি ভালো নেই, ছোট ছোট তাঁবুতে থাকতে আমাদের বেশ কষ্ট হচ্ছে। কিন্তু এখানে তো প্রাণটা নিয়ে বেঁচে আছি। যদি চলে যেতে হয়, আমরা ছেলেমেয়ে নিয়ে বেঁচে থাকতে পারব তো?)’

এদিকে রোহিঙ্গাদের একটি অংশ মনে করে, তাদের ফেরত নেওয়া হলেও আগের সেই বসতভিটা, জমিজমা আর ফেরত দেবে না মিয়ানমার সরকার। তাদের মতে, মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুনে দীর্ঘদিন ধরে প্রায় ৫ লাখ রোহিঙ্গা রয়েছে শরণার্থী হিসেবে। তাদের নিজেদের যেমন বাড়িঘর নেই, নেই জাতিগত পরিচয়ও। শরণার্থী করেই রাখা হয়েছে এই ৫ লাখ রোহিঙ্গাকে। নিজ দেশে শরণার্থী হয়ে থাকতে হবে কিনা, তা নিয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা নতুন-পুরান রোহিঙ্গারা বেশ আতঙ্কিত। তারা রোহিঙ্গা পরিচয়েই তাদের মাটিতে ফিরে যেতে চায় এবং স্বাধীনভাবে বেঁচে থাকতে চায়। এ ক্ষেত্রে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের শিক্ষিত ও সচেতন মহল বাংলাদেশ সরকারের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক সহযোগিতা চায়। দীর্ঘদিনের এই সমস্যার যেন স্থায়ী সমাধান হয়, সেটাই তাদের প্রত্যাশা।

জানা গেছে, বাংলাদেশ-মিয়ানমারের মধ্যে ১৯৯২ সালে সম্পাদিত যৌথ চুক্তির আলোকে রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে প্রত্যাবাসন করা হবে। আগামী তিন সপ্তাহের মধ্যে একটি ‘জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ’ তৈরি করা হবে। এ ছাড়া দ্রুত সময়ের মধ্যে আরেকটি চুক্তি বা সমঝোতা স্বাক্ষরের মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার মূল কার্যক্রম শুরু হবে।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

ইসলামাবাদে বিয়ের আগেই হবু স্বামীর আত্নহত্যা!

ব্রেকাপ

জেলার উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে শিল্প মন্ত্রীর মতবিনিময়

মুক্তিপণ দিয়ে ছাড় পেল অপহৃত তারেক!

৩দিন সাগরে ভেসে ফিরে আসল কুতুবজোমের জেলে রফিক

১০ হাজার ইয়াবাসহ ট্রাক চালক ও হেলপার আটক

এমপি হওয়া বড় কথা নয়, শেখ হাসিনাকে প্রধানমন্ত্রী করাই বড় কথা

লুৎফুর রহমান কাজলের স্টাটাস : নাড়া দিয়েছে সচেতন মহলে

মাতৃস্বাস্থ্যের সেবাদানে কুতুপালং আইওএম ক্লিনিক জাতীয় পুরস্কারের জন্য মনোনীত

কলাতলী থেকে মেরিন ড্রাইভ সড়ক পর্যন্ত সড়কের বেহাল দশা

পেকুয়ায় ৩০ পরিবারের চলাচলের একমাত্র রাস্তা বন্ধ করে দিল প্রভাবশালী

সকল ষড়যন্ত্র প্রতিহত করে আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিজয়ী হবে : আমু

শিল্পমন্ত্রীকে আমির হোসেন আমুকে ফুলেল শুভেচ্ছা

মেয়র মুজিবের আবেদনে শহরের প্রধান সড়ক সংস্কারের নির্দেশ মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের

কক্সবাজার সদর মডেল থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার- ১৩

পেকুয়ায় পুকুরে ডুবে শিশুর মৃত্যু

পেকুয়ায় ইয়াবা সহ যুবক আটক

চকরিয়ায় সাজাপ্রাপ্তসহ ৪ আসামি গ্রেফতার

নাইক্ষ্যংছড়িতে পরিচ্ছনতা অভিযান

কক্সবাজারে কিন্ডার গার্ডেন এসোসিয়েশন’র বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠান সম্পন্ন