চুক্তিতে আতঙ্কিত রোহিঙ্গারা!

বাংলাদেশ প্রতিদিন:

উখিয়ার বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্প-২-এর একটি ব্লকের মাঝি মুস্তাকিম উল্লাহ। তার অধীনে রয়েছে ১২০টি রোহিঙ্গা তাঁবু। এসব তাঁবুতে আছে প্রায় ৭০০ রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশু। এর মধ্যে গর্ভবতী মহিলা আছেন ৩৮ জন, শারীরিক প্রতিবন্ধী দুজন এবং রয়েছেন মিয়ানমার সেনা সদস্য দ্বারা ধর্ষিতা দুজন নারীও। টেকনাফ-কক্সবাজার সড়ক লাগোয়া এই তাঁবুগুলোয় ত্রাণের তেমন ঘাটতি নেই। তাই এখন অভাবও এদের তাড়া করছে না। কিন্তু কয়েক দিন ধরে এদের অনেকের ভিতর একটি বিষয় বেশ তাড়া দিচ্ছে, আর তা হচ্ছে আতঙ্ক— মিয়ানমারে তাদের ফিরিয়ে নেওয়া চুক্তির আতঙ্ক! গত বৃহস্পতিবার মিয়ানমার সরকারের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের একটি সমঝোতা হয়েছে— দুই মাসের মধ্যে রোহিঙ্গা ফেরত নেওয়া শুরু করবে মিয়ানমার। এর পর থেকেই জানা-অজানা আতঙ্ক ভর করেছে রোহিঙ্গাদের মধ্যে।
তারা বলছেন, ‘এখানে কষ্টে আছি। তবু বেঁচে তো আছি। দেশে গেলে বেঁচে থাকতে পারব তো!’

মাঝি মুস্তাকিম উল্লাহ বলেন, ‘এখানকার অধিকাংশ রোহিঙ্গা নিজ দেশে ফিরে যেতে চায়, নিজেদের বসতভিটায় স্বাধীনভাবে নিঃশ্বাস ফেলতে চায়।

কিন্তু মিয়ানমার মিলিটারি যদি আবার নির্যাতন শুরু করে, আবার যদি আমাদের বাড়ি-ঘর জ্বালিয়ে দেয় তাহলে কী হবে। যদি মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশ আবার সন্ত্রাসী-জঙ্গি দমনের নামে নারী নির্যাতন, ধ্বংসাত্মক তাণ্ডব চালায় তাহলে আমরা কোথায় যাব?’
এই কথা শুধু একজন মুস্তাকিমের নয়, মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা এখন সে দেশে ফিরে যাওয়ার আতঙ্কে রয়েছেন। তারা তাদের নিরাপত্তা নিয়ে যেমন আতঙ্কে, তেমন তাদের ভিটেমাটি ফেরত পাবেন কিনা, তা নিয়েও আশঙ্কায় রয়েছেন। বালুখালী ক্যাম্পেই কথা হয় মিয়ানমারের বুসিদংয়ের মেরুল্যাপাড়া থেকে আসা গর্ভবতী নুরখিস বেগমের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আঁরা এতে অত বেশি ভালা নাই, ছোড় ছোড় তাঁবু ঘরত থাইকতে আঁরার বেশ কষ্ট অয়। কিন্তু এড়ে তো পরান লই বাঁচি আছি। যদি চলি যাই তো অয়, আঁরা পোয়াইন্দে লই বাঁচি থাহিত পাইরগুমনি? (আমরা এখানে খুব বেশি ভালো নেই, ছোট ছোট তাঁবুতে থাকতে আমাদের বেশ কষ্ট হচ্ছে। কিন্তু এখানে তো প্রাণটা নিয়ে বেঁচে আছি। যদি চলে যেতে হয়, আমরা ছেলেমেয়ে নিয়ে বেঁচে থাকতে পারব তো?)’

এদিকে রোহিঙ্গাদের একটি অংশ মনে করে, তাদের ফেরত নেওয়া হলেও আগের সেই বসতভিটা, জমিজমা আর ফেরত দেবে না মিয়ানমার সরকার। তাদের মতে, মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুনে দীর্ঘদিন ধরে প্রায় ৫ লাখ রোহিঙ্গা রয়েছে শরণার্থী হিসেবে। তাদের নিজেদের যেমন বাড়িঘর নেই, নেই জাতিগত পরিচয়ও। শরণার্থী করেই রাখা হয়েছে এই ৫ লাখ রোহিঙ্গাকে। নিজ দেশে শরণার্থী হয়ে থাকতে হবে কিনা, তা নিয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা নতুন-পুরান রোহিঙ্গারা বেশ আতঙ্কিত। তারা রোহিঙ্গা পরিচয়েই তাদের মাটিতে ফিরে যেতে চায় এবং স্বাধীনভাবে বেঁচে থাকতে চায়। এ ক্ষেত্রে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের শিক্ষিত ও সচেতন মহল বাংলাদেশ সরকারের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক সহযোগিতা চায়। দীর্ঘদিনের এই সমস্যার যেন স্থায়ী সমাধান হয়, সেটাই তাদের প্রত্যাশা।

জানা গেছে, বাংলাদেশ-মিয়ানমারের মধ্যে ১৯৯২ সালে সম্পাদিত যৌথ চুক্তির আলোকে রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে প্রত্যাবাসন করা হবে। আগামী তিন সপ্তাহের মধ্যে একটি ‘জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ’ তৈরি করা হবে। এ ছাড়া দ্রুত সময়ের মধ্যে আরেকটি চুক্তি বা সমঝোতা স্বাক্ষরের মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার মূল কার্যক্রম শুরু হবে।

সর্বশেষ সংবাদ

‘মধ্যরাতের পার্লামেন্ট’ নিয়ে ব্যাখ্যা দিলেন বিএনপি এমপি হারুন

২০ থেকে ২২ জুলাইয়ের মধ্যে এইচএসসির ফল

৪ জুলাই থেকে হজ ফ্লাইট শুরু

‘এলাকার সমস্যা সমাধানে সবাইকে এক হতে হবে’

কক্সবাজার সদর থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার-৯

সিগারেটের মতোই ক্ষতিকর কোমল পানীয়

টেকনাফের ইয়াবা ভুট্টোর বাড়ি ফিরে পেতে হাইকোর্টে করা আবেদন খারিজ

মোবাইল চার্জে দিয়ে গেম খেলার সময় স্কুলছাত্রের মৃত্যু

অবশেষে বার্সায় ফিরছেন নেইমার

কউক’র মহাপরিকল্পনা ও উন্নয়ন ভাবনা শীর্ষক সেমিনার

ডিটারজেন্ট ও এন্টিবায়োটিক মিলেছে প্রাণ-আড়ং-ইগলু-মিল্কভিটাসহ ৭ দুধে

লামায় কিশোর-কিশোরী স্বাস্থ্য বিষয়ক ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা 

সরকারি কর্মকর্তাদের মাদক পরীক্ষা কার্যকর হচ্ছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

কলাতলী পিকনিক স্পটে দুই শিক্ষার্থীকে ছুরিকাঘাত করে সর্বস্ব ছিনতাই

ভূমি অধিগ্রহণ ন্যায্য মূল্য না পাওয়ায় চট্টগ্রাম আদালতে আরবিট্রেশন মামলা

চট্টগ্রামে কাভার্ড ভ্যান চালকের মরদেহ উদ্ধার

কক্সবাজারে বিশেষ সাইরেন বাজিয়ে ‘স্বঘোষিত ভিআইপি’দের তৎপরতা বেড়েছে

কোস্ট গার্ড কর্তৃক ৬ হাজার পিস ইয়াবা জব্দ

রামুতে বন্য হাতির আক্রমণে এক বৃদ্ধা নিহত

কীর্তি মানের মৃত্যু নেই…