দৃশ্যপট পেকুয়া: ২৪ ঘণ্টায় এক রোগীর চার ধরণের রিপোর্ট !

ইমরান হোসাইন, পেকুয়া:

পেকুয়ায় সরকারী নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে ব্যাঙ’য়ের ছাতার মত গজিয়ে উঠা প্রাইভেট হাসপাতাল গুলোর বিরুদ্ধে প্রতারণার মাধ্যমে রোগীদের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার গুরুতর অভিযোগ উঠেছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, সুষ্ঠ তদারকির অভাবে দীর্ঘদিন ধরে পেকুয়ায় এ অপকর্ম চলে আসলেও দৃশ্যত কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, চোখ ধাঁধানো বিজ্ঞাপন দিয়ে রোগীদের প্রলোভিত করছে হাসপাতাল গুলো। তাছাড়া নিজস্ব দালাল দিয়েও রোগী টানতে ব্যস্ত তারা। কিন্তু সেবার মান বরাবরই হতাশাজনক।

মোঃ আনোয়ার ইসলাম নামের এক রোগী বলেন, রোগাক্রান্ত হয়ে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী আমি জন্ডিস পরীক্ষার জন্য পেকুয়া জেনারেল হাসপাতালে যাই। সেখানে থেকে দেওয়া পরীক্ষার রিপোর্ট দেখে হতবাক হই আমি। তার রিপোর্ট এসজিপিটি (ইউ/এল) ৪৬০, বিলুরুবিন ০.৮(এমজি/ডিএল)। এ রিপোর্ট দেখে আমি দ্রুত ছুটে যাই ডাক্তারের কাছে। ডাক্তারও যথারীতি অবাক। তিনি পরামর্শ দিলেন অন্য ল্যাবে আরেকটি পরীক্ষা করানোর। গেলাম পেকুয়া লাইফ কেয়ার হসপিটালে। একই পরীক্ষায় তারা রিপোর্ট দিলেন ২০৩.৩। এই রিপোর্ট নিয়ে গেলাম পেকুয়া জেনারেল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে। কিন্তু বরাবরই তাদের রিপোর্ট সঠিক দাবী করেন তারা।

তিনি আরো বলেন, ভুল-সঠিকের দ্বন্ধে পড়ে যাই আমি। দুই হাসপাতালের সপক্ষে তুলে ধরা যুক্তি শুনে আমি দিশেহারা। তখন সিদ্ধান্ত নিই, অন্য ল্যাব গুলোতেও পরীক্ষা করিয়ে দেখি। গেলাম পেকুয়া মেডিকেল সেন্টারে। তারা রিপোর্ট দিলো ২৭১.২১। এরপরে গেলাম নুর হসপিটাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে। তারা পরীক্ষা করে রিপোর্ট দিলো ৪২। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে চারটি ল্যাবের রিপোর্ট চার রকম। যা দেখে আমার চিকিৎসা খুবই হতবাক হলেন। তিনি আমার শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করে পূর্বের ওষুধ চালিয়ে যেতে বলেন। পেকুয়ার প্রাইভেট হসপিটাল গুলো আমার রোগের পরিমাণ নির্ণয় তো করতেই পারেনি। পাশাপাশি কেটে নিয়েছে আমার পকেট। আমার মত আরো অসংখ্য রোগী তাদের হাতে নিয়মিত হয়রানী হচ্ছে।

এ ব্যাপার পেকুয়া উপজেলা হাসপাতালের টিএইচএ (ভারপ্রাপ্ত) ডাঃ মুজিবুর রহমান বলেন, লিভারের চারটি এনজাইম। রোগী যদি ক্যান্সার প্রতিরোধক ওষুধ সেবন না করে থাকেন তাহলে, এসজিপিটি এত বেড়ে যাওয়া স্বাভাবিক নয়। কারণ এসজিপিটি বাড়লে বিলিরুরিনও বাড়বে। তাই রিপোর্ট দেখে মনেহচ্ছে পেকুয়া জেলারেল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের দেয়া রিপোর্টটি সম্পূর্ণ ভুল। এছাড়াও ডাক্তারের ব্যবস্থাপত্রে লিখা রোগীর শারীরিক অবস্থার বর্ণনা পড়ে অপর দুটি (পেকুয়া লাইফ কেয়ার ও পেকুয়া মেডিকেল সেন্টার) ল্যাবের রিপোর্টও ভুল বলে প্রাথমিকভাবে মনেহচ্ছে।

পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুবুল করিম বলেন, ল্যাব টেকনোলজিস্টদের রিপোর্টে সাক্ষর করার নিয়ম নেই। আমি এব্যাপারে আইনগতভাবে যথাযথ ব্যবস্থা নিচ্ছি।

সর্বশেষ সংবাদ

এড: আমজাদ হোসেন’র মৃত্যুতে কক্সবাজার সিটি কলেজের শোক

ইয়াবাবাজীর দায়ে এক রোহিঙ্গার ৮ বছরের কারাদন্ড

প্রকাশিত সংবাদ প্রসঙ্গে হ্নীলার জালালের প্রতিবাদ

এড. আমজাদ হোসেনের প্রথম নামাজে জানাজা আদালত প্রাঙ্গনে সম্পন্ন

রামুর ঐতিহ্যবাহী মল্লনের বিলের প্রাচীনতম কবরস্থানটি রক্ষায় সরকারী পদক্ষেপ জরুরী

ভারতে জোর করে ‘জয় শ্রীরাম’ বলানোর পর মুসলিম যুবককে পিটিয়ে হত্যা

মাত্র ১০৩ টাকায় পুলিশের কনস্টেবল নিয়োগের প্রচার সর্বত্র সাড়া জাগিয়েছে

রামু চৌমুহনীতে উচ্ছেদ অভিযানে ইউএনওকে সর্বস্তরের মানুষের সাধুবাদ

এডঃ আমজাদ হোসেন এর মৃত্যুতে কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির শোক প্রকাশ

মোবাইল ব্যবহারে বাধা দেওয়ায় বিষপানে কিশোরীর আত্মহত্যা

রামুর সমাজসেবক শিমুল বড়ুয়া পরলোকে

বেনাপোল সীমান্তে চোরাচালানী সিন্ডিকেট প্রধান জাহিদ আটক, ৬ নারী পুরুষ উদ্ধার

এডভোকেট আমজাদ হোসেনের জানাজা কখন কোথায়?

আওয়ামী লীগ নেতা এডভোকেট আমজাদ হোসেনের মৃত্যু

সাবেক ছাত্রদল নেতা এস.ডি. বাবুর মায়ের পরলোক গমনে জেলা ছাত্রদল এর শোক

ভাইরাস জ্বর সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য জেনে নিন

চারমাসেও উদ্ধার হয়নি চকরিয়ার মুক্তিযোদ্ধার ছেলে ইঞ্জিনিয়ার আরিফ

সুখী দাম্পত্যের জন্য মনে রাখা চাই যেসব বিষয়

রোহিঙ্গা প্রত্যর্পণে আন্তর্জাতিক তদারকি চান মাহাথির

ডিআইজি মিজানের বিরুদ্ধে দুদক দফতরেই মামলা