আতিকুর রহমান মানিক :
কক্সবাজার সদরের ইসলামপুর ইউনিয়নের নাপিতখালীতে বন বিভাগের জমি দখল করে নির্মিত হচ্ছে আলীশান বাড়ী। বনকর্মকর্তারা প্রথমে বাধা দিলেও পরে মোটা অংকের উৎকোচ নিয়ে নীরব ভূমিকা পালন করছেন বলে জানা গেছে। আর এতে সরকারী উক্ত মূল্যবান জমি বেদখল হয়ে যাচ্ছে।
প্রাপ্ত তথ্যে প্রকাশ, কক্সবাজার (উত্তর) বনবিভাগের নাপিতখালী বিটের আওতাধীন উত্তর নাপিতখালী গ্রামের পাহাড়ী এলাকায় ২০০৪ সালে সৃজিত বাগানের একাংশ সাবাড় করে গাছ কেটে সম্প্রতি দখলে নেয় স্হানীয় মোজাহের আহমদের ছেলে বনদস্যু শাহ আলম। পরে উক্ত জমি বাউন্ডারী ওয়াল ও কলাপসিবল গেইট দিয়ে ঘিরে ফেলে। এরপর বাড়ী পাকা বাড়ী নির্মান শুরু করে। সূত্রে প্রকাশ,
বনবিভাগের লোকজন প্রথমে বাঁধা দিয়ে কাজ বন্ধ করে দিলেও পরে মোটা অংকের উৎকোচে বশীভূত হয়ে নীরব থাকে। এ সুযোগে উক্ত জমিতে এখন দ্রুত বাড়ির কাজ এগিয়ে নিচ্ছে ধূর্ত শাহ আলম। স্হানীয়রা জানান, চারতলা ফাউন্ডেশন দিয়ে ইতিমধ্যেই নীচতলার কাজ প্রায় শেষ হওয়ার পথে। বন বিভাগের নাকের ডগায় এ জমি দখলে নিয়ে প্রতিদিন দ্রুততার সাথে বাড়ী নির্মানের কজ চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু রহস্য জনক ভাবে নীরব প্রত্যক্ষদর্শীর ভূমিকা পালন করছে বনকর্তারা। নাপিতখালী বিট কর্মকর্তা আজমল হোসেন মন্ডল বলেন এ জমি ব্যক্তিমালিকানাধীন তাই বন বিভাগের করার কিছু নাই। কিন্তু প্রথমে বাধা দিয়েছিলেন কেন জিজ্ঞেস করলে কোন সদুত্তর দিতে পারেননি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •