রাখাইনে খাদ্য, চিকিৎসা সংকট প্রকট: ভেলা ও নৌকায় ঢুকেছে আরো ৩ শতাধিক

আমান উল্লাহ আমান, টেকনাফ:
মিয়ানমার থেকে সাগর আর নদী রুট দিয়ে প্রতিদিন পালিয়ে আসছে রোহিঙ্গা। মোটেও কমছেনা অনুপ্রবেশ। এপারে আসার অপেক্ষায় রয়েছে আরো হাজার হাজার রোহিঙ্গা। ২০ নভেম্বর টেকনাফ শাহাপরীর দ্বীপের জালিয়াপাড়া, দক্ষিণপাড়া, পশ্চিমপাড়া, টেকনাফের নাইট্যংপাড়া ও সাগর সৈকত পয়েন্ট দিয়ে অর্ধশতাধিক রোহিঙ্গা নৌকা ও ট্রলার যোগে এবং ৮০ জন নারি পুরুষ এবং শিশু ভেলায় ভেসে এপারে ঢুকেছে। টেকনাফ থানার এসআই আশরাফ উজ্জামান জানিয়েছেন, সকাল থেকে শাহপরীর দ্বীপের বিভিন্ন সীমান্ত হয়ে আসা ২৬ জন রোহিঙ্গা নারী পুরুষকে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। তাদের মানবিক সহায়তা পূর্বক রোহিঙ্গা শিবিরগুলোতে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে। এছাড়া ভোর রাতে ট্রলারে করে বঙ্গাপসাগর হয়ে আসা দেড় শতাধিক রোহিঙ্গা নারী পুরুষ ও শিশু এপারে ঢুকে টেকনাফ বাস স্ট্যান্ডে জড়ো হয়। পরে থানা পুলিশ তাঁদেরকে সেনাবহিনীর ক্যাম্পে প্রেরণ করেছে।
এছাড়া নয়াপাড়া বিজিবি সুত্রে জানা গেছে, সকাল ১০ টার দিকে নাফ নদ দিয়ে একটি ভেলায় ভেসে ৮০ জন নারী-পুরুষ ও শিশু নয়াপাড়া সীমান্ত দিয়ে এপারে ঢুকেছে। তাদের সকলকে উদ্ধার করে মানবিক সহায়তা দেওয়া হয়েছে। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এদিকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা জানান, মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও পুলিশের অমানবিক অত্যাচারের মধ্যে খাদ্য ও কাজ কর্ম না থাকায় অর্ধাহারে অনাহারে দিন যাপন করতে হয়েছে। তাই তারা এপারে চলে এসেছেন। পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা বুচিডং পেরুল্লা, পুইমালী, তিতুকপাড়া, ইয়ংসং, হরমোড়াপাড়াসহ বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা। এসব এলাকার দিয়ে এক সাথে ৪ থেকে ৫ হাজার রোহিঙ্গা বের হয়েছিল। ২ থেকে ৩ শত রোহিঙ্গা আসতে পারলেও বাকিরা ধনখালী চর ও গর্জনদিয়া চরে এপারে আসার জন্য অপেক্ষায় রয়েছেন। বুছিডং থানার পেরুল্লা গ্রামের সত্তোর্ধ বৃদ্ধা ধৌলত খাতুন জানান, দেড় মাস পূর্বে পরিবারের অন্যান্য সদস্য এদেশে আশ্রয়ে আসলেও এক ছেলে ও এক নাতিসহ সে মিয়ানমারে রয়ে যায়। বৃদ্ধকালে নিজ জম্মভূমি ছেড়ে চলে আসতে না চাইলেও খাদ্য, চিকিৎসা ও কর্মের সংকট প্রকট হওয়ায় এপারে আসতে বাধ্য হয়েছি। গত ১৫ দিন আগে ঘর থেকে বের হলেও এপার থেকে নৌকা না যাওয়ায় রাখাইন সীমান্তের গর্জন দিয়া চরে অপেক্ষায় থাকি।
একই থানার ইয়ংসং গ্রামের আমিনা খাতুন (৩৫) জানান, পরিবারের ৭ জন সদস্য নিয়ে এপারে আশ্রয়ে আসার জন্য ৭ দিন ধরে গর্জনদিয়া চরে অপেক্ষায় থাকেন। সেখানে আরো ৫/৬ হাজার মতো রোহিঙ্গারা জড়ো হয়ে আছে। সেখানে সেনারা তালিকা তৈরী করছে। গ্রামে রাত দিন সেনাদের ভয়ে রাখাইনে বসবাস মুশকিল হয়ে পড়েছে। গত কয়েকদিন আগেও পাশের বাড়ীর লালুর মেয়ে মোস্তাকিমকে সেনারা তুলে নিয়ে যায়। এখনো তার কোন খবর নেই।
নতুর করে আসা রোহিঙ্গাদের মুখে আগুন ও নির্যাতনের বর্ণনা শুনা না গেলেও এখন খাদ্য, চিকিৎসা ও অঘোষিত অবরোধের একই কাহিনী সবার মুখে। তবে এবার আসা মানুষগুলো প্রায় হাড্ডিসার ও অসুস্থ অবস্থায় দেখা গেছে। যা খাদ্য ও প্রকট চিকিৎসা সংকট প্রতীয়মান।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

মানবতার মূর্ত প্রতীক শ্রীশ্রীঠাকুর অনুকূলচন্দ্র : মেয়র মুজিবুর রহমান

উদীচী, কক্সবাজার জেলা সংসদের দ্বিতীয় সম্মেলন বৃহস্পতিবার

বঙ্গবন্ধু জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্টে চকরিয়া-মহেশখালী ফাইনালে

মাদকে জড়িতদের বিরুদ্ধে আরো কঠোর হতে হবে -পুলিশ সুপার

সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধে উখিয়ায় প্রশাসনের ব্যাতিক্রমধর্মী উদ্যোগ

২৩ সেপ্টেম্বর জনসভা সফল করতে নাজনীন সরওয়ার কাবেরীর গণসংযোগ

কবি আমিরুদ্দীনের পিতার মৃত্যুতে কক্সবাজার সাহিত্য একাডেমীর শোক

কক্সবাজারে নবাগত পুলিশ সুপারের সাথে জেলা শ্রমিকলীগ নেতৃবৃন্দের সাক্ষাত

হোপ ফিল্ড হসপিটাল ফর উইমেন এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন বৃহস্পতিবার

মাদাম তুসোর মিউজিয়ামে স্থান পেল সানি লিওন!

এবার বয়ফ্রেন্ডও ভাড়া পাওয়া যাবে!

হোপ ফাউন্ডেশন একদিন বাংলাদেশের ‘রোল মডেল’ হবে- ইফতিখার মাহমুদ

সুপ্ত ভূষন ও দিপংকর পিন্টু’র জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও ডিসি’র সাথে সৌজন্য সাক্ষাত

লামায় পাহাড় কাটার দায়ে শ্রমিককে ১ লাখ টাকা জরিমানা

নতুন জেলা জজ কর্মস্থলে যোগ দিতে এখন কক্সবাজারে

‘সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধে সবার সচেতনতা প্রয়োজন’

টেকনাফে ঘুর্ণিঝড় প্রস্তুতিমূলক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

চট্টগ্রামে ছিনতাইকারী ধরতে ফায়ার সার্ভিস!

মাদক ব্যবসায়িদের গুলি করুন, কেউ কাঁদবে না

২৩ সেপ্টেম্বর কর্ণফুলীতে আসছেন সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের