নুসরাত পাইরিন,কক্সবাজার,

কক্সবাজার শহরের প্রধান সড়ক ও অলি গলি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে ।

কক্সবাজার শহরের পৌরসভার অধিকাংশ সড়ক দীর্ঘদিন যাবত সংস্কার ও মেরামতের অভাবে বর্তমান বেহালদশা হয়ে পড়েছে,চলতি বর্ষা ও মৌসুমে প্রবল বর্ষণ,পৌরসভার সুষ্টু পরিকল্পনার অভাব ও বিভিন্ন সময়ে নিম্নমানের কাজের কারণে বর্তমানে কক্সবাজার শহরের অধিকাংশ সড়ক চলাচলের অযোগ্য এবং মরণ-ফাঁদে পরিণত হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে,কক্সবাজার পৌরসভার আলীর জাহাল এলাকা,রুমালিয়ার ছড়া নতুন রাস্তার মাথা,বাজারঘাটা,মুক্তিযোদ্ধা সরনী,লালদীঘির পাড়,ঝিনুক মার্কেট এলাকা,স্টেডিয়াম এলাকা,হাসপাতাল সড়ক,গোলদীঘির পাড়,ম্যালেরিয়া রোড়, টেকপাড়া,কোর্ট বিল্ডিং এলাকা,সি গাল রোড সহ অধিকাংশ সড়ক ও অলি গলি ভাঙ্গা চোরা ও খানা খন্দকে ভরে গেছে।এসব সংস্কারের জন্য দেখার মতো কেউ নেই ।

বসবাসকারী পৌরবাসীদের অভিযোগ  , পৌরসভার সব উন্নয়ন কাজ জনপ্রতিনিধিরা ভাগবাটোয়ারা করে নেয় । ফলে কাজের মান ও অত্যন্ত নিম্নমানের । যার কারণে  রাস্তাঘাট বেশীদিন ভাল অবস্থায় থাকেনা । এলাকাবাসী প্রতিবাদ করতেও ভয় পায় ।

পৌরসভার রাস্তাগুলো এমনিতেই সরু।তার ওপর ফুটপাত দখল এ সমস্যাকে আরো প্রকট করে তুলছে।তাছাড়া ভাঙ্গাচোরা রাস্তায় হেঁটে চলাও দায়।সড়ক ও জনপথ আওতাধীন হলিডে মোড় থেকে বাসটার্মিনাল পর্যন্ত শহরের প্রধান সড়ক হিসেবে জানলে ও মনে হয় বেওয়ারিশ লাশ যা পর্যটন রাজধানীকে ধ্বংসে অগ্রণী ভুমিকা পালন করে যাচ্ছে।

সড়ক ও জনপথ বিভাগের ২টি সড়ক ছাড়া পৌরসভা নিয়ন্ত্রিত সড়কগুলো রিক্সা ও যানবাহনে চলাচলের সর্ম্পূণ অনুপযোগী হয়ে পড়ছে । ফলে শহরবাসীর দুর্ভোগ চরমে পৌছেছে কক্সবাজার শহরের ব্যসÍতম বাণিজ্যিক এলাকাসহ বিভিন্ন আবাসিক এলাকার সড়কগুলোতে খানা-খন্দকের সৃষ্টি হওয়ায় পথচারীর হেঁটে চলার সময় সতর্কভাবে পা ফেলতে হয়। অধিকাংশ নি¤œমানের কাজের কারণে সড়কের সিলকোট ও কার্পেটিংসহ ইটের খোয়া ওঠে গিয়ে সৃষ্টি হয়েছে ছোট-বড় অসংখ্যা গর্ত।পথ চলতে গিয়ে প্রতিদিনই কেউ না কেউ শিকার হচ্ছে দুর্ঘটনায় ।বিশেষ করে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল সড়কটি চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।এর ফলে মুমূর্ষ রোগীদের সংকট আরো বেড়ে গেছে। এর থেকে পরিত্রাণ পেতে চায় কক্সবাজার পৌরবাসী ।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •