ডেস্ক নিউজ:

তরুণীকে গণধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে বরগুনার পাথরঘাটা ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ও সম্পাদকসহ তিন নেতা গ্রেফতার হওয়ায় ওই কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে। একই সঙ্গে এ ঘটনায় পাথরঘাটা উপজেলা ছাত্রলীগের অপর এক নেতা জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার হওয়ায় পাথরঘাটা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সম্পাদককে কারণ দর্শানোর নোটিস দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বরগুনা জেলা ছাত্রলীগের এক জরুরি সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। পরে রাত ৮টার দিকে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জুবায়ের আদনান অনিক এবং সাধারণ সম্পাদক মো. তানভীর হোসাইন স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে সংশ্লিষ্ট সকল ছাত্রলীগ নেতাকে সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দেয়া হয়।

এ বিষয়ে বরগুনা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জুবায়ের আদনান অনিক বলেন, তরুণীকে গণধর্ষণ ও হত্যার অভিযোগে গ্রেফতার হওয়ার পর পাথরঘাটা কলেজ ছাত্রলীগের সদ্য বহিষ্কৃত সভাপতি রুহি আনাল দানিয়াল, সম্পাদক মো. সাদ্দাম হোসেন ছোট্ট এবং সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মহিদুল ইসলাম রায়হানকে নিয়ে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। যা দেশব্যাপী ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি করে। তাই ওই কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত করে কমিটির সকলে নেতাকে দালীয় দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

একই সঙ্গে এ ঘটনায় পাথরঘাটা উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক মো. মাহমুদ জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার হওয়ায় উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হাফিজুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এনামুল হোসেনকে এ ঘটনা সম্পর্কে জানতে চেয়ে কারণ দর্শানোর নোটিস দেয়া হয়েছে। নোটিস পাওয়ার ৭২ ঘণ্টার মধ্যে তাদের লিখিত জবাব দিতে বলা হয়েছে। অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধেও সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান অনিক।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •