টেকনাফে পালিত হলো ‘উপকূল দিবস’

জসিম মাহমুদ, টেকনাফ:

উপকূলবাসীর জীবনমান উন্নয়নসহ উপকূল সুরক্ষার লক্ষ্যকে সামনে রেখে এবার দেশে প্রথমবারের মতো ‘উপকূল দিবস’ পালনের অংশ হিসেবে বাংলাদেশের সর্বদক্ষিণের সীমান্ত উপজেলার টেকনাফে পালিত হয়েছে। ১৯৭০ সালের ১২ নভেম্বরের প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসের ধ্বংসযজ্ঞের স্মরণে উপকূলবর্তী ১৫ জেলার ৩২ উপজেলার একটি টেকনাফ উপজেলায় এ দিবসটি পালন করা হয়। টেকনাফ সাংবাদিক ইউনিটি ও শাহ পরীর দ্বীপ আলোকযাত্রা দল এর উদ্দ্যোগে ১২ নভেম্বর বিকাল ৪টায় ‘উপকূল দিবস’ পালন উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে র‌্যালী, আলোচনা সভা এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ হোসেন ছিদ্দিকের কাছে ১২ নভেম্বর ‘উপকূল দিবস’ পালনের দাবি স্মারকলিপি প্রদান করেন ।

র‌্যালী, আলোচনা সভা ও স্মারকলিপি প্রদানকালে অংশ নেন, টেকনাফ সাংবাদিক ইউনিটির উপদেষ্টা জেড করিম জিয়া, সভাপতি সাইফুল ইসলাম সাইফী, সাধারণ সম্পাদক নুরুল হোসাইন, রেড ক্রিসেন্ট কর্মকর্তা আবদুল মতিন, লম্বরী মলকাবানু উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ ইসমাইল, উপজেলা সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা মো : শহিদ, উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ন সম্পাদক আবদুল বাসেদ, সাংবাদিক আবুল আলী, নুর হাকিম আনোয়ার, আবদুল কাইয়ুম, শিল্পী হাফেজ আহমদ, আবদুর রহিম, উপকূল দিবস বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য জসিম মাহমুদ, যুবনেতা আবদুস সালাম আবদুস্যা, মো :রফিক প্রমূখ।

স্মারকলিপি প্রদান কালে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ হোসেন ছিদ্দিক বলেন, এটি একটি খুব ভাল কাজ, টেকনাফ উপকূলের মানুষ খুবই সাহসী, সাগরের সাথে লড়াই করে বেঁেচ আছে। কিন্তু স্বাভাবিক সময়েও তাদের জীবন যে কতটা অস্বাভাবিক, সে বিষয়ে খুব একটা খোঁজ রাখা হয় না। উপকূলের দিকে গণমাধ্যম ও নীতিনির্ধারকদের নজর বাড়িয়ে উপকূলবাসীর জীবনমান উন্নয়ন ঘটানোই উপকূলের জন্য একটি দিবস প্রস্তাবের মূল লক্ষ্য।

১৯৭০ সালের ১২ নভেম্বর এই দিনটি উপকূলবাসীর জন্য স্মরণীয় দিন, এদিন বাংলাদেশের উপকূলের উপর দিয়ে বয়ে যায় সবচেয়ে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ‘ভোলা সাইকোন’। এই ঘূর্ণিঝড় লন্ডভন্ড করে দেয় উপকূল।

বহু মানুষ প্রাণ হারান। ঘরবাড়ি হারিয়ে পথে বসেন। এই ঘূর্ণিঝড় গোটা বিশ্বকে কাঁপিয়ে দিয়েছিল। এটি সিম্পসন স্কেলে ক্যাটাগরি ৩ মাত্রার ঘূর্ণিঝড় ছিল। ঘূর্ণিঝড়টি ৮ই নভেম্বর বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট হয়। ক্রমশ শক্তিশালী হতে হতে এটি উত্তর দিকে অগ্রসর হতে থাকে। ১১ নভেম্বর এটির সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘন্টায় ১৮৫-২২৫ কিলোমিটারে পৌঁছায়।ওই রাতেই উপকূলে আঘাত হানে। জলোচ্ছ্বাসের কারণে উপকূলীয় অঞ্চল ও দ্বীপসমূহ প্লাবিত হয়। ওই ঘূর্ণিঝড়ে প্রায় পাঁচ লাখ লোকের প্রাণহানি ঘটেছে বলে জানানো হলেও বেসরকারি হিসাবে প্রয় দশ লাখ।

সর্বশেষ সংবাদ

গোমাতলীর ছুরত হাজী আর নেই

মস্কোয় হাজারো মানুষের বিক্ষোভ

এবার ঈদের আগেই খালেদা জিয়ার মুক্তি!

দেশদ্রোহী হিসেবে প্রিয়ার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে

উদ্দেশ্য খুঁজতে প্রিয়া সাহার কল রেকর্ড-ট্রাভেল হিস্ট্রি যাচাই

২,৯৬০টি ইয়াবা নিয়ে ধরা পড়লো রোহিঙ্গা নারী

প্রথম-লঘু অপরাধে শাস্তি নয়, ‘শিক্ষানবিশ আইন’ চূড়ান্ত

চকরিয়ায় পুলিশের হাতে ইয়াবাসহ ২ পাচারকারী আটক

বদলে গেলো কক্সবাজার সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসা পদ্ধতি

‘নতুন যুগে’ প্রবেশ করলো কক্সবাজার সদর হাসপাতাল

ইসলামপুরে ৫ ট্রাক লবণ জব্দ, আমদানিকারক ও মিল মালিক সমিতি মুখোমুখি

কক্সবাজারে উন্নয়নের মহাযজ্ঞ বাস্তবায়ন করছে সরকার : সাংবাদিকদের ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া

উখিয়া সংবাদকর্মীর উপর ইয়াবা ব্যবসায়ীর হামলা

ট্রাম্পের কাছে করা অভিযোগের সাথে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটের কোন সম্পর্ক নেই : ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া

দৈনিক হিমছড়ি আয়োজিত বিশ্বকাপ কুইজের পুরষ্কার বিতরণ

রাজপথে নামুন, বিজয় সুনিশ্চিত ইনশাল্লাহ : নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে কাজল

উৎসব মুখর পরিবেশে কক্সভিশন লিমিটেডের এজিএম সম্পন্ন

‘পালংখালীতে নিরীহ লোকজনকে নির্যাতন ও বাড়ি ভাংচুর চালাচ্ছে কতিপয় বিজিবি সদস্য’

সাতকানিয়ায় বন্যা দুর্গত এলাকায় ত্রাণ সহায়তা দিলো লোহাগাড়ার হিলফুল ফুযুল

যেখানে বিএনপি, সেখানেই মৃত্যূঞ্জয়ী সালাহউদ্দিন