টেকনাফে পালিত হলো ‘উপকূল দিবস’

জসিম মাহমুদ, টেকনাফ:

উপকূলবাসীর জীবনমান উন্নয়নসহ উপকূল সুরক্ষার লক্ষ্যকে সামনে রেখে এবার দেশে প্রথমবারের মতো ‘উপকূল দিবস’ পালনের অংশ হিসেবে বাংলাদেশের সর্বদক্ষিণের সীমান্ত উপজেলার টেকনাফে পালিত হয়েছে। ১৯৭০ সালের ১২ নভেম্বরের প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসের ধ্বংসযজ্ঞের স্মরণে উপকূলবর্তী ১৫ জেলার ৩২ উপজেলার একটি টেকনাফ উপজেলায় এ দিবসটি পালন করা হয়। টেকনাফ সাংবাদিক ইউনিটি ও শাহ পরীর দ্বীপ আলোকযাত্রা দল এর উদ্দ্যোগে ১২ নভেম্বর বিকাল ৪টায় ‘উপকূল দিবস’ পালন উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে র‌্যালী, আলোচনা সভা এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ হোসেন ছিদ্দিকের কাছে ১২ নভেম্বর ‘উপকূল দিবস’ পালনের দাবি স্মারকলিপি প্রদান করেন ।

র‌্যালী, আলোচনা সভা ও স্মারকলিপি প্রদানকালে অংশ নেন, টেকনাফ সাংবাদিক ইউনিটির উপদেষ্টা জেড করিম জিয়া, সভাপতি সাইফুল ইসলাম সাইফী, সাধারণ সম্পাদক নুরুল হোসাইন, রেড ক্রিসেন্ট কর্মকর্তা আবদুল মতিন, লম্বরী মলকাবানু উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ ইসমাইল, উপজেলা সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা মো : শহিদ, উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ন সম্পাদক আবদুল বাসেদ, সাংবাদিক আবুল আলী, নুর হাকিম আনোয়ার, আবদুল কাইয়ুম, শিল্পী হাফেজ আহমদ, আবদুর রহিম, উপকূল দিবস বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য জসিম মাহমুদ, যুবনেতা আবদুস সালাম আবদুস্যা, মো :রফিক প্রমূখ।

স্মারকলিপি প্রদান কালে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ হোসেন ছিদ্দিক বলেন, এটি একটি খুব ভাল কাজ, টেকনাফ উপকূলের মানুষ খুবই সাহসী, সাগরের সাথে লড়াই করে বেঁেচ আছে। কিন্তু স্বাভাবিক সময়েও তাদের জীবন যে কতটা অস্বাভাবিক, সে বিষয়ে খুব একটা খোঁজ রাখা হয় না। উপকূলের দিকে গণমাধ্যম ও নীতিনির্ধারকদের নজর বাড়িয়ে উপকূলবাসীর জীবনমান উন্নয়ন ঘটানোই উপকূলের জন্য একটি দিবস প্রস্তাবের মূল লক্ষ্য।

১৯৭০ সালের ১২ নভেম্বর এই দিনটি উপকূলবাসীর জন্য স্মরণীয় দিন, এদিন বাংলাদেশের উপকূলের উপর দিয়ে বয়ে যায় সবচেয়ে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ‘ভোলা সাইকোন’। এই ঘূর্ণিঝড় লন্ডভন্ড করে দেয় উপকূল।

বহু মানুষ প্রাণ হারান। ঘরবাড়ি হারিয়ে পথে বসেন। এই ঘূর্ণিঝড় গোটা বিশ্বকে কাঁপিয়ে দিয়েছিল। এটি সিম্পসন স্কেলে ক্যাটাগরি ৩ মাত্রার ঘূর্ণিঝড় ছিল। ঘূর্ণিঝড়টি ৮ই নভেম্বর বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট হয়। ক্রমশ শক্তিশালী হতে হতে এটি উত্তর দিকে অগ্রসর হতে থাকে। ১১ নভেম্বর এটির সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘন্টায় ১৮৫-২২৫ কিলোমিটারে পৌঁছায়।ওই রাতেই উপকূলে আঘাত হানে। জলোচ্ছ্বাসের কারণে উপকূলীয় অঞ্চল ও দ্বীপসমূহ প্লাবিত হয়। ওই ঘূর্ণিঝড়ে প্রায় পাঁচ লাখ লোকের প্রাণহানি ঘটেছে বলে জানানো হলেও বেসরকারি হিসাবে প্রয় দশ লাখ।

সর্বশেষ সংবাদ

তাহলে কী জাফর-আশেক-কানিজ-বদি পাচ্ছেন নৌকার টিকেট!

ইসলামাবাদে যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় যুবক নিহত

‘নেতানিয়াহু, ট্রাম্প ও বিন সালমান শয়তানের ৩ অক্ষশক্তি’

উখিয়ায় অপহৃত যুবক উদ্ধার, দুই অপহরণকারী আটক

চ্যানেল কর্ণফুলীর কক্সবাজার প্রতিনিধি সেলিম উদ্দীন

‘পারস্পরিক কল্যাণকামিতার মাধ্যমেই সমৃদ্ধ রাষ্ট্র গঠন সম্ভব’

ধানের শীষে নির্বাচন করবে জামায়াত!

কুতুবদিয়ায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়ক মহড়া অনুষ্ঠিত

কক্সবাজারে আয়কর মেলা, তিনদিনে ৫৯ লাখ টাকা রাজস্ব আদায়

পোকখালীতে চিংড়ি ঘেরে ডাকাতির চেষ্টা, মালিককে কুপিয়ে জখম

মহেশখালীতে ৩দিন ব্যাপী কঠিন চীবর দানোৎসব শুরু

ইন্টারনেট সুবিধার আওতায় কক্সবাজার প্রেসক্লাব

আওয়ামীলীগ ভাওতাবাজিতে চ্যাম্পিয়ন : ড. কামাল

সত্য বলায় এসকে সিনহাকে জোর করে বিদেশ পাঠানো হয়েছে: মির্জা ফখরুল

সাতকানিয়ায় মাদকসহ আটক ২

কক্সবাজারে হোটেল থেকে বন্দী ঢাকার তরুণী উদ্ধার

৩০০ আসনে প্রার্থী চূড়ান্ত ইসলামী আন্দোলনের

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে খেলনা বেলুনের সিলিন্ডার বিস্ফোরণে আহত ৯

চকরিয়া আসছেন পুলিশের আইজি, উদ্বোধন করবেন থানার নতুন ভবন

না ফেরার দেশে গর্জনিয়ার জমিদার পরিবারের দুই মহিয়সী নারী