cbn  

রিয়াজ উদ্দিন, পেকুয়া:

পেকুয়ায় কিশোরের সাথে সৌদি প্রবাসী স্ত্রীর অসম প্রেম কাহিনী নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যকর পরিস্থিতি তৈরী হয়েছে। কিশোর ছোট্র মুদির দোকানী। গ্রামের গলিতে তার দোকান। এ সুবাধে প্রবাসী স্ত্রীর নজর কাড়েন কিশোর। দৃষ্টিনন্দন চেহারা উঠতি কিশোরের প্রতি আকৃষ্ট হন ওই নারী। প্রথমে চুপিসারে প্রেম। অত:পর তাকে নিয়ে পালানোর প্রস্তাব দেন এ নারী। কিশোর যৌবন ও তারুন্যে এ নারীর প্রতি অনেকটা আকৃষ্ট হন। এমনকি গত ১ বছর ধরে চলে দুইজনের মধ্যে পরকীয়া সম্পর্ক। প্রায় সময় দুই জনের গতিবিধি সন্দেহ জনক ছিল। স্বামী প্রবাসে থাকে। স্ত্রী কম বয়সী কিশোরের সাথে পরকীয়ায় মত্ত। এ নিয়ে অনেকে এ নারীকে নিয়ে মুখরোচক করেছেন। এরই মধ্যে সতর্কও করা হয়েছে একাধিকবার। তবে সম্প্রতি দুইজনের সম্পর্কের অবনতি ঘটেছে। প্রবাসীর স্ত্রী তার পরকীয়া প্রেমিকের বিরুদ্ধে পেকুয়া থানায় ধর্ষন চেষ্টায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। পেকুয়া থানা পুলিশ ওই স্থান পরিদর্শন করেছেন। তবে গ্রেফতার এড়াতে কিশোর তার ব্যবসা প্রতিষ্টান বন্ধ রেখে গা ঢাকা দিয়েছে। তবে এ নিয়ে পরষ্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গত কয়েক দিন আগে প্রবাসী স্ত্রীর ভাসুর আবুল কালাম ও দোকানীর মধ্যে পাওনা টাকা সংক্রান্ত বিষয়ে হাতাহাতি হয়েছে। আবুল কালাম দোকান থেকে বাকীতে মালামাল ক্রয় করে। টাকা পাওনা নিয়ে ওই কিশোরের মধ্যে বিরোধ হয়েছে। প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে আবুল কালাম তার ছোট ভাইয়ের স্ত্রীকে চাপ প্রয়োগ করে। এ সময় ভাসুরের কথায় এ অভিযোগটি করেছেন বলে স্থানীয়রা জানান। উপজেলার বারবাকিয়া ইউনিয়নের রাখাইনপাড়া পাহাড়িয়াখালী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, ৮ নভেম্বর রাত ১০ টার দিকে একই ইউনিয়নের পূর্বপাড়া এলাকার মনির আহমদের ছেলে হেফাজ উদ্দিন(১৫) রাখাইনপাড়া বদিউল আলমের বাড়িতে যান। এ সময় বাড়িতে ঢুকে প্রবাসী বদিউল আলমের স্ত্রী সুমি আক্তার(২৩)কে ধর্ষনের জন্য চেষ্টা চালায়। এ সময় ওই মহিলা আর্তচিৎকার করে। অভিযোগে জানানো হয়েছে, হেফাজ উদ্দিন একজন বখাটে। প্রায় সময় ওই নারীকে উত্ত্যক্তসহ কুপ্রস্তাব দিত। মুঠোফোনে তাকে প্রায় সময় বিরক্ত করত। তবে স্থানীয়রা ওই অভিযোগ নাকচ করেছেন। তারা এ অভিযোগটিকে হাস্যকর ও সাজানো নাটক বলে আখ্যায়িত করেছেন। এ ব্যাপারে কিশোর হেফাজ উদ্দিন জানায়, আমি নুরুজ্জামানের ছেলে আবুল কালাম দোকান থেকে বাকীতে মালামাল নেয়। আমি তার কাছ থেকে টাকা পাওনা আছি। এ নিয়ে হাতাহাতি হয়েছে। পরে জেনেছি তার ভাইয়ের বউকে দিয়ে আমার বিরুদ্ধে ধর্ষন চেষ্টার অভিযোগ দেন। এটি সাজানো। আমি এমন অপরাধ করেনি। আমি ছোট্র মুদির দোকান নিয়ে ব্যবসা করি।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •